ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট এপ্রিল ২৮, ২০১৯

ঢাকা রবিবার, ৪ ভাদ্র, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৭ জিলহজ্জ, ১৪৪০

নারী ও শিশু সংবাদ শিশু অধিকার বিষয়ে একটি শিশু অধিদপ্তর গঠনের আহবান

শিশু অধিকার বিষয়ে একটি শিশু অধিদপ্তর গঠনের আহবান

ঢাকা, ২৮ এপ্রিল ২০১৯, নিরাপদ নিউজ: জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে শিশু অধিকার বিষয়ে একটি শিশু অধিদপ্তর গঠনের জন্য আহবান জানান। এসময় তিনি বলেন, শিশুদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর মমতার কারনেই সরকার বাংলাদেশে শিশু বাজেট বরাদ্দ করেছে। এর আগে কোন সরকার এধরণের বাজেট বরাদ্দ দেয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার শিশুদের কল্যানে সবসময় উদারতার পরিচয় দিয়েছেন এবং এখনও দিচ্ছেন। তাই সময়োপযোগী এ দাবীটাও প্রধানমন্ত্রীর নিকট গুরুত্বের সাথে উপস্থাপন করলে তিনি তা পুরণ করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ডেপুটি স্পিকার।আজ রাজধানীর শ্যামলীতে অবস্থিত এসএস চিল্ড্রেন ভিলেজ এর অডিটরিয়ামে আন্তর্জাতিক পথশিশু দিবস উপলক্ষে স্ট্রীট চিলড্রেন একটিভিস্টস নেটওয়ার্ক (স্ক্যান) বাংলাদেশ এর উদ্যোগে আয়োজিত জাতীয় সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। সংগঠনের সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন এর সভাপতিত্বে সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পথশিশু পুর্বাসন প্রকল্প পরিচালক ড. মোঃ আবুল হোসেন, কেএনএইচ জার্মানি কান্ট্রি কোঅর্ডিনেটর মারুফ রুমি মমতাজ, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের পাবলো নেরুদা, স্ক্যান সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মুকুলসহ দেশি বিদেশি এনজিও প্রতিনিধি, পথশিশু, গণমাধ্যম ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধি প্রমুখ।ডেপুটি স্পিকার বলেন, পথশিশুদের সঠিক পরিসংখ্যান নিরুপণ করে সরকারের নিকট একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করলে তাদের ভাগ্যন্নোয়নে সরকার অবশ্যই কাজ করবে। কিন্তু সেজন্য দরকার একটি শিশু বিষয়ক অধিদপ্তর যার মাধ্যমে একটি নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতিতে এসব শিশুদের নিয়ে কাজ করা সহজ হবে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশের কাতরে পদার্পণ করেছে। তাই পথশিশু এবং প্রতিবন্ধী শিশুদেরও মূলধারার সাথে সম্পৃক্ত করতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর এই উন্নয়নমুখী বাংলাদেশে এখনও কেন শিশুদের একটা অংশ রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে মানবেতর জীবনযাপন করবে। শিশুবান্ধব প্রধানমন্ত্রী কখনই এটা চাইবেন না। তাই সরকারের পাশাপাশি সকল সচেতন মানুষ, শিশুদের কল্যানে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় সমুহ এবং বেসরকারী সংস্থগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে।ডেপুটি স্পিকার বলেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে শিশুদের জন্য যে বাজেট বরাদ্দ করা হয় তা সঠিকভাবে সময়মত শিশুদের কল্যানে যাতে খরচ হয় সেজন্য মন্ত্রণালয়ের নজরদারি আরো বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। এসময় শিশুদের কল্যাণে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে বাজেটের সুষম ব্যায় নিশ্চিত করতে মনিটরিং ব্যবস্থা আরো বেশি জোরদার করার উপর গুরুত্বারোপ করেন ডেপুটি স্পিকার।এরপর ইন্টারন্যাশনাল ডে ফর স্ট্রীট চিল্ড্রেন ২০১৯ উপলক্ষে চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কৃত করার পাশাপাশি প্রথমবারের মত সুবিধাবঞ্চিত পথশিশুদের বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের জন্য নির্বাচিত LEEDO’র শিশুদের সম্বর্ধনা দেয়া হয়।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)