আপডেট জুন ১৫, ২০১৭

ঢাকা সোমবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ , গ্রীষ্মকাল, ১২ রমযান, ১৪৩৯

বিনোদন শুভ জন্মদিন শাবানা

শুভ জন্মদিন শাবানা

শুভ জন্মদিন শাবানা

১৫ জুন ২০১৭,নিরাপদ নিউজ : ১৭ বছর আগে সিনেপর্দা থেকে অন্তরালে চলে যান কিংবদন্তি অভিনেত্রী শাবানা। এরপর দু-একটি পারিবারিক অনুষ্ঠান ছাড়া আর প্রকাশ্যে দেখা যায়নি তাকে। এ নায়িকাকে নিয়ে ভক্তদের কৌতুহলের শেষ নেই আজো। শাবানার জন্মদিন বৃহস্পতিবার। ১৯৫২ সালের ১৫ জুন ঢাকার গেন্ডারিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

এ দিনে শাবানাকে স্মরণ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন অনেক ভক্ত ও বাংলা সিনেমাপ্রেমী। এছাড়া টেলিভিশন চ্যানেলে প্রতি সপ্তাহেই দেখানো হয় তার সিনেমা। সে থেকে বোঝা যায়, আজো তিনি কতটা জনপ্রিয়।

সম্প্রতি শোনা যায়, পরিচালক সমিতির দেওয়া ‘ওরা ১১ জন’ সিনেমার কলাকুশলীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে হাজির হবেন শাবানা। এ নিয়ে দারুণ উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা যায় সিনে মহলে। তবে তিনি হতাশ করেছেন ভক্তদের, প্রকাশ্য হননি।

শাবানার প্রকৃত নাম আফরোজা সুলতানা রত্না। পৈতৃক বাড়ি চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার ডাবুয়া গ্রামে। তার বাবার নাম ফয়েজ চৌধুরী ও মা ফজিলাতুন্নেসা। তিনি গেন্ডারিয়া হাই স্কুলে ভর্তি হলেও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ইতি ঘটে মাত্র ৯ বছর বয়সে।

১৯৬৭ সালে এহতেশামের ‘চকোরি’ ছবিতে প্রথমবার নায়িকা চরিত্রে অভিনয় করেন, রাতারাতি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান। শাবানা নামটি এ পরিচালকেরই দেওয়া। অবশ্য এর আগে কয়েকটি সিনেমায় সহশিল্পী হিসেবে অভিনয় করেন রত্মা নামে। ষাট থেকে নব্বই দশকে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে ছিলেন তিনি। তবে জনপ্রিয়তা থাকা সত্ত্বেও ২০০০ সালে রূপালি জগৎ থেকে নিজেকে আড়াল করে ফেলেন এ নায়িকা। তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র ছিল ‘ঘরে ঘরে যুদ্ধ’। বর্তমানে সপরিবার আমেরিকায় বসবাস করছেন শাবানা। এ সময়ের মধ্যে বেশ কয়েকবার ঢাকা আসলেও মিডিয়ার মুখোমুখি হননি তিনি।

জনগণ নন্দিত নায়িকা শাবানা

শাবানা অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে চকোরি, জংলী মেয়ে, চাঁদ আওর চাঁদনী, কুলি, একই অঙ্গে এত রূপ, ওরা ১১ জন, মুন্না আওর বিজলি, অবুঝ মন, মালকা বানু, অনেক প্রেম অনেক জ্বালা, ভাত দে, জীবন সাথী, রাজ দুলারী, বধূ বিদায়, কাপুরুষ, ফকির মজনু শাহ, চোখের মণি, সাথী তুমি কার, দুই পয়সার আলতা, লাল কাজল, বানজারান, মরণের পরে, কাজের বেটি রহিমা, স্বামীর আদেশ, অন্ধ বিশ্বাস প্রভৃতি।

এ অভিনেত্রী ১০বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন, যা একটি রেকর্ড। অন্যান্য পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে— প্রযোজক সমিতি পুরস্কার, দুইবার বাচসাস পুরস্কার, আর্ট ফোরাম পুরস্কার, আর্ট ফোরাম পুরস্কার, নাট্যসভা পুরস্কার, কামরুল হাসান পুরস্কার, নাট্য নিকেতন পুরস্কার, ললিতকলা একাডেমি পুরস্কার, সায়েন্স ক্লাব পুরস্কার, কথক একাডেমি পুরস্কার ও জাতীয় যুব সংগঠন পুরস্কার। এছাড়া মস্কো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, রোমানিয়া ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ও কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালসহ বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে যোগ দিয়েছিলেন।

সদ্য ঘোষিত ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৫’-এ আজীবন সম্মাননার জন্য চূড়ান্ত হয়েছেন শাবানা। তবে সম্মাননা গ্রহণের জন্য হাজির থাকবেন কি-না জানা যায়নি।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)