আপডেট নভেম্বর ২০, ২০১৮

ঢাকা শুক্রবার, ৪ ফাল্গুন, ১৪২৫ , বসন্তকাল, ১০ জমাদিউস-সানি, ১৪৪০

টিভি প্রোগ্রাম সকাল আহমেদের নতুন ধারাবাহিক নাটক ‘শান্তিপুরীতে অশান্তি’

সকাল আহমেদের নতুন ধারাবাহিক নাটক ‘শান্তিপুরীতে অশান্তি’

নিরাপদ নিউজ: আজ রাত ৮ টায় বৈশাখী টিভিতে শুরু হচ্ছে নতুন ধারাবাহিক নাটক ‘শান্তিপুরীতে অশান্তি’। প্রতি মঙ্গল থেকে বৃহষ্পতিবার সপ্তাহে তিনদিন একই সময় প্রচার হবে নাটকটি। অভিনয়ে-ওয়াহিদা মল্লিক জলি,রহমত আলী,তুষার খান,সাইকা আহমেদ,আরফান নিশো,আরমান পারভেজ মুরাদ,শবনম ফারিয়া,তানজিকা,অর্ষা,কায়েস চৌধুরী প্রমুখ। পরিচালনা সকাল আহমেদ।

নাটক নিয়ে সকাল আহমেদ বলেন,রাজধানী ঢাকার একটি বাড়ির নাম শান্তিপুর। অপার শান্তির আশাতেই এমন নাম দেওয়া হয় বাড়িটির। এ বিশাল বাড়ির মালিক দু’জন। রহমত আলী ও ওয়াহিদা মল্লিক জলি। সম্পর্কে তারা স্বামী-স্ত্রী হলেও কেউ কারো ধার ধারে না। প্রত্যেকেরই আলাদা ফ্ল্যাট, আলাদা ভাড়াটিয়া। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কটা সাপে-নেওলে। তাদের চিৎকার চেচামেচিতে শান্তিপুরী রুপ নেয় অশান্তিপুরীতে। এই অশান্তিপুরী থেকে ভাড়াটিয়ারাও বিদায় নেয় একে একে। এ অবস্থায় রহমত আলী কয়েকজন ব্যাচেলর ছেলেকে ভাড়া দিয়ে তার গ্যাং তৈরি করে। ব্যাচেলর ছেলেরা রহমত আলীর পরামর্শে ওয়াহিদা মল্লিক জলিকে নানা ভাবে অপমান করে। তাদের যন্ত্রনায় এক সময় অতিষ্ট হয়ে ওঠে জলি।

কি করবে ভেবে পায় না। পাশের বাসার সাইকা আহমেদের সঙ্গে পরামর্শ করে। তিনিও জলিকে কয়েকজন ব্যাচেলর মেয়েকে ভাড়া দেওয়ার পরামর্শ দেন। যে কথা সেই কাজ। ওয়াহিদা মল্লিক জলিও কয়েকজন মেয়ে ব্যাচেলরকে ভাড়া দিয়ে গ্যাং তৈরি করে। শুরু হয় একজনকে শায়েস্তা করতে অপরজনের নানা প্রতিযোগিতা। ফলে শান্ত শান্তিপুরী হয়ে ওঠে অশান্তিপুরী।

নানা রকম ঘটন-অঘটনের মধ্য দিয়ে এভাবেই এগিয়ে চলে ‘শান্তিপুরীতে অশান্তি’ ধারাবাহিকের কাহিনী। সকাল আরো বলেন, নাটকের সব শিল্পীই প্রচন্ড ব্যস্ত। তাদের যদি ঠিকমতো শিডিউল পাই এবং মেনটেইন করতে পারি তাহলে নাটকটিকে অনেক দূর নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছে আছে আমার। বাকিটা নির্ভর করছে দর্শক চাহিদার ওপর। আমার বিশ^াস নাটকটি দর্শকদের খুব ভাল লাগবে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)