আপডেট ৫১ মিনিট ৪১ সেকেন্ড

ঢাকা সোমবার, ১২ চৈত্র, ১৪২৫ , বসন্তকাল, ১৮ রজব, ১৪৪০

বিনোদন, লিড নিউজ, সাক্ষাৎকার ‘সামনে আর সময় পাব কি আরও ভালো কিছু করার?’

‘সামনে আর সময় পাব কি আরও ভালো কিছু করার?’

নিরাপদ নিউজ :  চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। জনপ্রিয় এ নায়কের আজ জন্মদিন। দিনটি উদযাপন, বর্তমান ব্যস্ততা ও সমসাময়িক প্রসঙ্গ নিয়ে আজ তিনি কথা বলেছেন দেশের জাতীয় গণমাধ্যমের সাথে। তার কিছু বিশেষ চুম্বকঅংশ পাঠক আপনাদের জন্য হুবুহু তুলে ধরা হলো:

* জীবন থেকে আরও একটি বছর চলে গেল। বিষয়টি ভাবতে কেমন লাগে?

** বয়স বাড়ছে। নিজের কাছে প্রশ্ন করি, কি করলাম এ জীবনে? কত কিছুই তো বাকি। সামনে আর সময় পাব কি আরও ভালো কিছু করার?

* জন্মদিন উপলক্ষে আজকের দিনের আয়োজন কি?

** কোনো আয়োজন নেই। আমি জন্মদিনে বিশ্বাসী নই। এ দিন উদযাপনের কোনো লাভ কিংবা পালন না করলে ক্ষতির কিছু দেখছি না। বেঁচেই তো আছি। সবসময় যেন সুস্থ থাকি এটাই কামনা করি।

* আজ কোথায় থাকবেন?

** আমার প্রাণের জায়গা ‘নিরাপদ সড়ক চাই’-এর অফিসে। ওখানে আজ সদস্যরা হয়তো জন্মদিন উপলক্ষে কিছু আয়োজন করবে। আগের দিনের মতোই সারাদিন এখানে থাকব। বিকালে বাসায় যাব।

* অভিনয়ে তো দেখাই যায় না আপনাকে। একেবারই বিদায় জানালেন নাকি?

** অভিনয়ের মাধ্যমেই তো আজকের ইলিয়াস কাঞ্চন হয়েছি। অভিনয়ের জন্য তো মন কাঁদে। কিন্তু ভালো গল্প বা চরিত্র না পেলে তো অভিনয় করা ঠিক হবে না। আমি আমার সম্মান ধরে রাখতে চাই। এখনও নিজেকে অভিনয়ের জন্য প্রস্তুত রেখেছি।

* মুক্তির অপেক্ষায় থাকা আপনার অভিনীত ‘বাংলার ফাটাকেস্ট’ ছবিটি কি আর দর্শক দেখতে পাবেন না?

** ছবিটি সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র পেয়েছিল। অনেক কাটাকাটি করা হয়েছে। এখন কি অবস্থা তা আমি জানি না। পরিচালক বা প্রযোজকের সঙ্গে আমার যোগাযোগ নেই। দর্শক ছবিটি দেখতে পাবেন কি না তাও বলতে পারছি না।

* নতুন কোনো ছবি বানানোর কি পরিকল্পনা আছে?

** ছবি বানানোর পরিবেশ তো আর নেই। কয়জন আছেন যে এখন ছবি বানিয়ে টাকা তুলতে পারেন? আমার এতো টাকা নেই যে, ছবি বানাব। গল্প আমার নিজের থাকলেও তা দিয়ে আমি ছবি বানাতে পারব বলে মনে হয় না। এখন আর কেউ ছবি বানাতে টাকা লগ্নি করতে চায় না।

* এ থেকে পরিত্রাণের উপায় কী?

** সবাইকে এক হতে হবে। সেটি সম্ভব হবে কী না জানি না। যদি হতে পারে, তাহলে হয়তো কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব।

উল্লেখ্য, ইলিয়াস কাঞ্চন তার অভিনয় জীবনে অনেক গুলো পুরস্কার অর্জন করেছেন। ১৯৮৬ সালে পরিণীতা এবং ২০০৬ শাস্তি চলচ্চিত্রের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউনডেশন পদক ১৯৯৬ সালে, মেরিল ভোরের কাগজ পুরস্কার ১৯৯৭ সালে। ফুলকুলি অ্যাওয়ার্ডস ১৯৯৮ সালে, জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ সমিতি পুরস্কার পান ১৯৯৮ সালে। ৩য় বাংলাদেশ ফ্লিম মুভমেন্ট পুরস্কার ১৯৯৯ সালে, বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যান সংস্থা স্বর্ণপদক ২০০০ সালে, অন্যনা সাংস্কৃতিক ও সমাজকল্যাণ পরিষদ পুরস্কার শেখ সাঈদ বক্স স্মৃতি যুব পদক এবং বাংলাদেশ কালচারাল মুভমেন্ট অ্যাওয়াডস পান ২০০১ সালে।

এছাড়াও তিনি আজীবন জাতীয় সন্মাননা পুরুস্কার লাভ করেন। এবং সমাজসেবায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ একুশে পদক লাভ করেন নিরাপদ সড়ক চাই এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, ঢাকাই চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। ব্যক্তি জীবনে ইলিয়াস কাঞ্চন সামাজিক আন্দলনে গুরত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। তিনি তার স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চন সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্য হবার পর থেকে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ নামে একটি সামাজিক আন্দোলন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। যে আন্দোলন কিনা আজ একটি সফল আন্দোলনের নাম। এবছর ১লা ডিসেম্বর এই আন্দোলনের রজতজয়ন্তী পালন করা হয়েছে অর্থাৎ ২৫বছর পেরিয়ে এই আন্দোলন এখন ২৬বছরে পা দিয়েছে। ইলিয়াস কাঞ্চন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনকে জাতীয় আন্দোলনে পরিণত করে ২২ অক্টোবরকে ‘জাতীয় নিরাপদ দিবস’-এর যাত্রা শুরু করান গত বছরে। গত বছর ৩১ ডিসেম্বর চলচ্চিত্রে অভিনয় জীবনের চার দশক পূর্ণ করেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিরসবুজ নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)