ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১৩ মিনিট ২৬ সেকেন্ড

ঢাকা সোমবার, ৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২০ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১

জীবনযাপন সোনাতলায় পুরুষে রুপান্তরিত কলেজ ছাত্রী বিয়ে করলেন বান্ধবীকে!

সোনাতলায় পুরুষে রুপান্তরিত কলেজ ছাত্রী বিয়ে করলেন বান্ধবীকে!

c23
নিরাপদ নিউজ, মামুনুর রশিদ মামুনঃ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলায় কলেজ ছাত্রী পূরুষে রুপান্তরিত হওয়া ইদ্রিস আলী (নতুন নাম) এক মাস না পেরুতেই বিয়ের পিড়িতে বসেছে। মঙ্গলবার রাতে তার কলেজ বান্ধবী ছাবিনা আকতারকে ১ লাখ টাকা দেন মোহরানায় বিয়ে করেন ইদ্রিস আলী। বর ও কনে পক্ষের উপস্থিতিতে স্থানীয় মুলবাড়ি ঈদগাহ মাঠের ্্্্্্ঈমাম মাওলানা আবু মুসার বাড়ি ফাজিলপুর গ্রামে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। বিয়েতে বর ও কনেকে একনজর দেখতে এলাকার শতশত নারী পুরুষ ওই বাড়িতে ভীড় জমায়। স্থানীয় ও পরিবারের লোকজন জানান, উপজেলার দিগদাইড় ইউনিয়নের কোয়ালী পাড়া গ্রামের সোনা মিয়ার কন্যা ইতি আকতার (২১) একমাস পূবে পূরুষে রুপান্তরিত হয়। এরপর তার নাম ও বয়স এফিডেফিটের মাধ্যমে সংশোধন করা হয়। তার নাম ইতি আকতার থেকে রাখা হয় ইদ্রিস আলী। মাদ্রাসা ও কলেজ জীবনে ছাবিনা আকতার (১৮) তার ঘনিষ্ঠ বান্ধবী। সে উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের মধ্য দিঘলকান্দী গ্রামের আমজাদ হোসেন আকন্দের মেয়ে। তাই ইদ্রিস আলী ও ছাবিনা আকতার বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেয়।
বর ইদ্রিস আলী বলেন, তার স্ত্রী ছাবিনা আকতার তার ঘনিষ্ঠ বান্ধবী। মাদ্রাসা থেকে কলেজ পর্যন্ত একসাথেই লেখাপড়া করেছে। তাদের বান্ধবীর সম্পর্ক অনেক দিনের। তাই তারা দুজন বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে সুখে থাকার জন্য সবার দোয়া চেয়েছেন। কনে ছাবিনা আকতার বলেন, আমরা দুজনে খুব ঘনিষ্ঠ বান্ধবী ছিলাম। তাকে আমি অনেক আগে থেকেই চিনি। তাকে বিয়ে করেই সুখী হতে চাই। ইদ্রিস আলীর বাবা সোনা মিয়া বলেন, একটা ছেলের আশায় ৭ টি সন্তানের বাবা হয়েছেন তিনি। ৬টি মেয়ের পর আল্লাহ একজন পুত্র সন্তান দিয়েছে। আল্লাহর অশেষ কৃপায় আমার ছষ্ঠ মেয়ে ইতি আকতার পুরুষ হয়েছে। এখন আমার ছেলে সন্তানের সংখ্যা ২জন। এখন তার মেয়ে থেকে পূরুষে রুপান্তরিত হওয়া ছেলে ইদ্রিস আলী বিয়ে করায় সে খুব আনন্দিত বলে জানান। দিগদাইড় ইউনিয়নের কাজী (বিবাহ ও তালাক রেজিষ্টার) মোঃ রবিউল ইসলাম বলেন, ইদ্রিস আলীর বিয়েতে ১ লাখ টাকা দেন মোহরানায় ৬শ’ টাকা নগদ ও ৯৯ হাজার ৪শ’ টাকা বাকী রেখে বিয়ের রেজিষ্ট্রি করা হয়েছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল হান্নান বলেন, মেয়ে থেকে ছেলে হওয়ার কথা তিনি জানেন। মঙ্গলবার রাতে তার বিয়ে হয়েছে বলে তিনি জানান।
সোনাতলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ রকিবুল আলম চয়ন বলেন, জন্মগত ভাবে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ পৃথিবীতে আসে। এদের মধ্যে মেয়ে হয়ে জন্ম নেওয়াদের পুরুষ ভাব ও পুরুষ হয়ে জন্ম নেওয়াদের অনেকেই মেয়েলী ভাব থাকে। এটা জীনগত ভাবেই হয়। তাই জীনগত ভাবে সে আগে থেকেই পূরুষ ছিল। তার মাঝে মেয়েলি ভাব থাকার কারনে কেউ বুঝতে পারেনি। সৈয়দ আহম্মদ কলেজের অধ্যক্ষ সাইদুজ্জামান বলেন, সে চুল কাটা অবস্থায় সার্ট প্যান্ট পড়ে কলেজে আসে। এখন সে ছেলেদের সাথে মিশছে এবং মসজিদে সবার সাথে নামাজ পরছে। তবে তিনি বিয়ের কথা জানেন না।
উল্লেখ্য, সোনাতলা উপজেলার দিগদাইড় ইউনিয়নের কোয়ালীপাড়া গ্রামের সোনা মিয়ার মেয়ে ও সৈয়দ আহম্মদ বিশ্বঃ কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্রী ইতি আকতার পুরুষে রুপান্তরিত হয়। পরে তার নতুন নাম রাখা হয় ইদ্রিস আলী। সম্প্রতি পরিবারের লোকজনকে ইতি আকতার তার শারীরিক পরিবর্তনের কথা বললে তা লোকমুকে ছরিয়ে পরে। তাকে এক নজর দেখার জন্য বিভিন্ন এলাকার নারী পূরুষের ঢল নামে তার বাড়িতে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)