আপডেট ৭ মিনিট ২২ সেকেন্ড

ঢাকা শুক্রবার, ৫ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ২০ মুহাররম, ১৪৪১

নিসচা সংবাদ, লিড নিউজ, সড়ক সংবাদ সড়কে নিয়ম না মানলে ১ঘণ্টার কাউন্সিলিং: ট্রাফিক বিভাগের এমন উদ্যোগের প্রশংসা করলেন ইলিয়াস কাঞ্চন

সড়কে নিয়ম না মানলে ১ঘণ্টার কাউন্সিলিং: ট্রাফিক বিভাগের এমন উদ্যোগের প্রশংসা করলেন ইলিয়াস কাঞ্চন

নিরাপদ নিউজ: নির্ধারিত ফুট ওভারব্রিজে না উঠে সড়ক দিয়ে রাস্তা পার হলে এমনকি জেব্রাক্রসিং ব্যবহার না করলে বসতে হবে এক ঘণ্টার কাউন্সিলিং ক্লাসে। ট্রাফিক আইন ও সচেতনতাভিত্তিক জ্ঞান নিয়ে তবেই ছুটি পাওয়া যাবে ক্লাস থেকে। রাজধানীর বনানীতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক উত্তর বিভাগ এমনই এক কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক উত্তর বিভাগের এমন উদ্যোগের প্রশংসা করে ধন্যবাদ জানিয়েছেন নিরাপদ সড়ক চাই এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান চিত্র নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, দুর্ঘটনারোধে সচেতনতা বৃদ্ধিতে এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ সত্যি প্রশংসনীয় এবং এই কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে সড়কে চলাচলরত অসচেতন মানুষগুলো সচেতন হবে। রাজধানীর ভেতর দুর্ঘটনাগুলোর মূলে হচ্ছে সচেতনতার অভাব। তাই পথচারী ও নগরবাসীর মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে পুলিশের ৪৫ মিনিটের এমন কাউন্সিলিং অবশ্যই কাজে দেবে। মাত্র দুই মিনিট সময় সাশ্রয় করতে গিয়ে যারা একবার এমন রাস্তা পারাপারে ঘণ্টাব্যাপী কাউন্সিলিং ক্লাসে আসবে আশা করা যায় তারা আর দ্বিতীয়বার এই কাজ করবে না। ইলিয়াস কাঞ্চন আরো বলেন, শুধু বনানীতে নয় রাজধানীর প্রতিটি গুরুত্বপূণ্য স্থান সহ দেশের প্রতিটি জেলায় এই অভিযান অব্যহত রাখতে হবে। পাশাপাশি এই অভিযান কর্মসূচি শুধু একদিন বা সপ্তাহব্যাপী নয় সব সময়য় চালিয়ে যেতে হবে। সেই সাথে ইলিয়াস কাঞ্চন সড়কে চলা সকল যাত্রী/পথচারীদের উদ্দেশ্যে বলেন,আপনাদের জীবনের নিরাপত্তায় পুশিশের পক্ষ থেকে একম উদ্যোগ নেয়া হয়েছে আশা করি এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে আপনারা নিজেরাই নিজের থেকে সচেতন হবেন এবং সড়ক পথে চলার সময় দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেবেন। সড়কে যত্রতত্র পারাপার হবেন না ওভার ব্রীজ ব্যবহার অবশ্যই করবেন। ট্রাফিক আইন এর প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে সকলে আইন মেনে পথ চলবেন দুর্ঘটনা অনেকাংশে কমে যাবে। ইলিয়াস কাঞ্চন আশা করেন, পুলিশের এমন কার্যক্রম যদি নিয়মিত যথাযথভাবে অব্যহত থাকে শাস্তির আওতায় এসে পথচারীরা এক সময় অবশ্যই মানবিক হতে বাধ্য হবেন। আমরা সড়ক পথে জীবনের থেকে সময়ের মূল্যকে বেশী প্রাধান্য দিয়ে থাকি আর এই কারণে নিয়ম মানি না যেখানে সেখানে রাস্তা পারাপার হবার চেস্টা করি। পুলিশের এই উদ্যোগটি সেই সব মানুষ এর এই সময় বাঁচানোর পথ বন্ধ করে দিয়ে বরং উল্টো সময় কেড়ে নেবার যে উদ্যোগ গ্রহন করেছেন এতে করে সময় বাঁচানোর জন্য হলেও অনেকে এখন বাধ্য হবেন নিয়ম মেনে পথ চলতে।

উল্লেখ্য,আজ এয়ারপোর্ট সড়কের বনানী পুলিশ বক্সে গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে বসে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে কাউন্সিলিং ক্লাস করছেন কয়েকজন পথচারী। পুলিশ সদস্যদের দেয়া ট্রাফিক আইন ও ট্রাফিক সচেতনতাবিষয়ক বিভিন্ন লিফলেট পড়ছেন তারা। পাশাপাশি মৌখিকভাবে তাদেরকে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন ট্রাফিক সদস্যরা।

ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা জানান, কিছুক্ষণ আগে ফুট ওভারব্রিজের বদলে সড়ক দিয়ে যত্রতত্র এবং বিপজ্জনকভাবে রাস্তা পার হওয়ার চেষ্টা করছিলেন তারা। এজন্য তাদের ধরে এখানে এনে এই ক্লাস করানো হচ্ছে।

ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ জানিয়েছে, রাজধানীতে এমনিতেই রাস্তার তুলনায় গাড়ি ও মানুষের সংখ্যা বেশি। এর মধ্যে বনানীসহ বেশ কিছু স্থানে দিনের বেশিরভাগ সময় যানবাহনের চাপ বেশি থাকে। এসব স্থানে নিরাপদ পারাপারে ফুট ওভারব্রিজ থাকলেও তা ব্যবহারে অনীহা বেশিরভাগ পথচারীর।

ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের (উত্তর) উপ-কমিশনার প্রবীর কুমার রায় বলেন, সড়ককে নিরাপদ করতে চাইলে সবাইকে সচেতন ও আন্তরিক হতে হবে। অথচ বেশিরভাগ পথচারী কাছেই ফুট ওভারব্রিজ থাকলেও সামান্য সময় বাঁচাতে ও কষ্ট এড়াতে প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়েই রাস্তা পার হন। তাই ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)