আপডেট ৪৭ মিনিট ৩৭ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ২ আশ্বিন, ১৪২৬ , শরৎকাল, ১৭ মুহাররম, ১৪৪১

নিসচা সংবাদ, লিড নিউজ সড়ক দুর্ঘটনার মত জাতীয় সমস্যার সমাধানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি-ইলিয়াস কাঞ্চন

সড়ক দুর্ঘটনার মত জাতীয় সমস্যার সমাধানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি-ইলিয়াস কাঞ্চন

নিরাপদ সড়ক চাই এর সংবাদ সম্মেলন

নিরাপদ সড়ক চাই এর সংবাদ সম্মেলন

ঢাকা, ০১ ডিসেম্বর ২০১৪, নিরাপদ নিউজ : সড়ক দুর্ঘটনাকে জাতীয় সমস্যা হিসাবে বিবেচনায় নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের বোর্ড গঠন করে-এরকম একটি জাতীয় সমস্যার সমাধানে এবং দেশের অপূরণীয় ক্ষতিরোধকল্পে তাঁর সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।
আজ ১ডিসেম্বর সোমবার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বীর উত্তম খাজা নিজামুদ্দিন মিলনায়তনে সংগঠনটির ২১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এদাবি জানান।
নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের প্রেক্ষাপট বর্ননা করে তিনি বলেন সরকারের কাছে সড়ককে নিরাপদ করার লক্ষ্যে যে ২২দফা দাবি পেশ করা হয়েছিল বিভিন্ন সময়ে সেসব দাবির কিছু কিছু বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার কিন্তু গৃহীত পদক্ষেপগুলির কোনটিই পরিপূর্নভাবে বাস্তবায়িত হয়নি।উদাহরণ স্বরুপ তিনি বলেন সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের সুচিকিৎসার জন্য প্রতি ১০০ কি,মি,অন্তর ট্রমা সেন্টার চালু করার দাবি থাকলেও মাত্র কয়েকটি ট্রমা সেন্টার তৈরী করা হয়েছে যা দিয়ে দুর্ঘটনা পরবর্তী দ্রুত চিকিৎসা সম্ভব নয়। প্রত্যেক মহাসড়কেই প্রতি ১০০ কি.মি. পরপর ট্রমা সেন্টার তৈরী করে দুর্ঘটনায় আহত লোকদের চিকিৎসা প্রদান প্রস্তাবটির পূর্ণ বাস্তবায়নের আহবান জানান তিনি।
অপরদিকে হাইওয়ে পুলিশ ডিপার্টমেন্ট তৈরী করা হলেও তা কার্যকরী ভুমিকা রাখছেনা বলে মনে করনে ইলয়িাস কাঞ্চন। তাদের কার্যক্রম আরো বৃদ্ধি করে তাদেরকে মমলা নেওয়া ও তদন্ত ক্ষমতা প্রদান করার জোর দাবী জানান তিনি।
২২ অক্টোবরকে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস হিসেবে গেজেট প্রকাশেরও দাবি পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি। এছাড়া ২২ অক্টোবরকে আন্তর্জাতিক নিরাপদ সড়ক দিবস ঘোষণার জন্য জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট শাখায় যোগাযোগের জন্য সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন নিসচা চেয়ারম্যান।
নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ হয়ে যেসব সংগঠন সড়ক দুর্ঘটনারোধে বিভিন্ন সচেতনতামূলক কাজ করছেন তিনি সেসব সংগঠনকে স্বাগত জানান এবং একইসাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করার আহবান জানান।
গত ২১ বছরে নিসচা কি কি কাজ করেছে তার একটি সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দেন নিসচা চেয়ারম্যান। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল সড়ক দুর্ঘটনারোধের সামাজিক আন্দোলনকে বেগবান করার পাশাপাশি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-আহত তথা ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে গিয়েও দাঁড়িয়েছে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)। বিভিন্ন সময়ে নগদ টাকা, হুইল চেয়ার, গরু, রিক্সা ভ্যান প্রদান করে, ট্রেণিং প্রদানের মাধ্যমে প্রাথমিক পর্যায়ে যথেষ্ট পরিমান কাঁচামাল ও প্রয়োজনীয় সামগ্রীসহ ক্ষতিগস্ত পরিবারগুলোকে একটি করে মোমবাতি বানানোর মেশিন প্রদান-ইত্যাদি প্রক্রিয়ায় নিহত-আহতদের পুনর্বাসনসহ সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে।
চালকদের সচেতনতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির বিষয়টিতে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) স্বল্পমেয়াদী তথা দিনব্যাপী ট্রেণিং কর্মসূচীর আয়োজন করে থাকে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) -এর গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প তথা রিপ-২ -এর আর্থিক সহায়তায় ২০১০ সালে প্রায় ১৯টি জেলা ও উপজেলায় এই কর্মসুচি সাফল্যের সাথে সমাপ্ত হয়। এই কর্মসুচির ব্যাপকতা এবং কার্যকারিতা বিবেচনায় নিয়ে এই ২০১২ সালে একই ধরণের কর্মসুচি বাস্তবায়নের জন্য অর্থায়নে এগিয়ে এসেছে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস। তাদের সহায়তায় ইতোমধ্যে সিলেট, চট্টগ্রাম এবং ঢাকার গাজীপুর খুলনা ও পাবনা এই কর্মসূচি সাফল্যের সাথে সমাপ্ত করেছে। আগামী জানুয়ারী ২০১৫ থেকে , SRIIP-২ প্রকল্পের আওতায় এবং এলজিইডি, ADB ও KFW এর আর্থিক সহযোগিতায় সড়ক দুর্ঘটনারোধে সচেতনতামূলক র্যা লী ও সমাবেশ এবং গাড়ীচালকদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণের কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে। প্রতি জেলায় ১৫০ জন করে চালককে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে।
* শিক্ষিত এবং দক্ষ চালক ব্যাতিরেকে সড়ক দুর্ঘটনারোধ কখনোই সম্ভব নয় বলে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) মনে করে। আর তাই নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) ৬৪টি জেলায় ৬৪টি ড্রাইভিং এন্ড মেকানিক্যাল ট্রেনিং ইনিষ্টিটিউট স্থাপন করে ন্যুনতম এসএসসি পাশ বেকার যুবকদের নাম মাত্র অর্থে অথবা সহজ শর্তে ঋণ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষ চালক হবার সুযোগ করে দেবার দাবী জানায়। নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) কেবল দাবী জানিয়েই চুপ হয়ে বসে থাকেনি, নিসচা ড্রাইভিং এন্ড মেকানিক্যাল ট্রেনিং ইনিষ্টিটিউট স্থাপন করেছে। ইতোমধ্যে লাইসেন্স ফি প্রদানসহ বিনা বেতনে ৪০০ এরও বেশী এসএসসি পাশ দরিদ্র ও বেকার যুবককে দক্ষ চালক হিসাবে গড়ে তুলেছে এবং তাদেরকে চাকুরীতে নিয়োজিত করেছে।
সংবাদ সম্মেলনটি সঞ্চালনা করেন সংগঠনের মহাসচিব শামীম আলম দীপেন। শুরুতেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আন্তর্জাতিক সম্পাদক মিরাজুল মঈন জয় এবং শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসান উল হক কামাল। সংবাদ সম্মেলনে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, যুগ্ম-মহাসচিব লিটন এরশাদ, লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল ও বেলায়েত হোসেন খান নান্টু, অর্থ সম্পাদক নাসিম রুমী, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ, একে আজাদ, শেখ আব্দুর রহমান, সহ-প্রচার সম্পাদক আব্দুল গফুর সাগর, প্রকাশনা সম্পাদক হামিদ মোঃ জসিম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মোঃ জাফর ফিরোজ, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা উম্মে আরা মিতা, যুব বিষয়ক সম্পাদক জুনাইদুর রহমান মাহফুজ, কার্যকরী সদস্য সৈয়দ আলী আনোয়ার, সুরাইয়া রহমান মনি, সুশীল চন্দ্র বাছার, ফারিহা ফাতেহ, মাসুদ ফকরী খোকন (সভাপতি,মুন্সীগঞ্জ), এম, এ ফরিদ (সাধারণ সম্পাদক, গাজীপুর) এবং এম জামাল হোসেন মন্ডল (সভাপতি,টঙ্গীবাড়ী)।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)