আপডেট ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

ঢাকা সোমবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ , গ্রীষ্মকাল, ১২ রমযান, ১৪৩৯

বিনোদন হাবিবি এলভিন

হাবিবি এলভিন

হাবিবি এলভিন

নিরাপদনিউজ :  হাবিব ওয়াহিদের গানের পাগলা ভক্ত এলভিন মজুমদার! ২০০৮ সালে এক বন্ধুর সঙ্গে প্রিয় গায়কের সঙ্গে দেখা করতে যান হাবিবের ধানমন্ডির বাসায়। কথার ছলে হাবিবকে বলেন, ‘আমিও আপনার মতো গায়ক হতে চাই। এ জন্য কি করতে হবে আমাকে।’ হাবিব তখন ভক্তকে বলেছিলেন, ‘চেষ্টা করতে থাকো, কষ্ট করতে থাকো। একদিন হয়ে যাবে।’ ১০ বছর পর আবারও হাবিবের সঙ্গে দেখা করতে গেলেন এলভিন। এলভিন নিজেও এখন একজন গায়ক-সুরকার। এলভিনের প্রথম গান ‘মায়া লাগে’ শুনে মুগ্ধ হাবিব ওয়াহিদ। এলভিনের গায়কীর অনেক প্রশংসা তো করেছেনই সংগীনের ভুবনে তাকে স্বাগত জানয়িে একটি ভিডিও বার্তাও দিয়েছেন। যা গানচিল মিউজিকের ইউটিউবে আপলোড করা হয়েছে। শুধু তাই নয় এলভিনের গানের প্রশংসা করে নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে একটি পোস্টও করেছেন!


২৯ জানুয়ারি রাতে গানচিল মিউজিকের ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আকারে প্রকাশ পেয়েছে এলভিনের ‘মায়া লাগে’। কথা লিখেছেন সুদীপ্ত দাশ শুভ। কণ্ঠ দেওয়ার পাশাপাশি সুরও করেছেন এলভিন। সংগীতায়োজনে এলভিন ও অনিক আহমেদ। ভিডিও বানিয়েছেন এলভিনেরই আপন ছোট ভাই লোটাস মজুমদার। তারও প্রথম কাজ এটি। তিন দিন ধরে ভিডিওটির শুটিং হয়েছে জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটিতে।


এলভিনের পাশাাপাশি মডেল হয়েছেন সালহা নাদিয়া, আফিয়া এবং তামুর। এলভিন বলেন, ‘সবকিছু স্বপ্নের মতো লাগছে! ১০ বছর আগে হাবিব ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করার পরই গান করার উৎসাহ পেয়েছি। ১০ বছর পর আমার প্রথম গানটি শুনে তিনি অনেক প্রশংসা করেছেন। এটা আমার জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। আমার গানের নিজস্ব একটা স্টাইল আছে। সেভাবেই কাজ করি। আমার বিশ্বাস এই গানটি সবার ভালো লাগবে।’ কুমল্লিার ছেলে এলভিন ‘ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ’-এ (ইউল্যাব) ‘মিডিয়া স্ট্যাডিস এবং জার্নালিজম’ নিয়ে পড়ছেন।


২০১৫-২০১৬ সালে স্কলারশিপ নিয়ে ‘বেঙ্গল পরম্পরা বিদ্যালয়’-এ পন্ডিত উলহাস কশলকরের কাছে টানা দুই বছর খেয়াল শিখেছেন এলভিন। ২০১৬ সালে ‘বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব’-এ ওস্তাদ রশীদ খান এবং পন্ডিত ড. এল সুব্রামানিয়ামের সঙ্গে তানপুরায় সঙ্গত করেছেন। সব মিলিয়ে বলা যায় সংগীতের ভুবনে নিজের আসন পাকাপোক্ত করতেই এসেছেন এই তরুণ।

‘মায়া লাগে’ গানটির ইউটিউব লিংক-

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)