ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৯

ঢাকা বুধবার, ২৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৩ রবিউস-সানি, ১৪৪১

কোন বিভাগ নাই, বিনোদন একাধিক সিনেমা বানানোর পরিকল্পনায় রিচি

একাধিক সিনেমা বানানোর পরিকল্পনায় রিচি

নিরাপদ নিউজ: সিনিয়র অভিনেত্রী রিচি সোলায়মান অভিনয়ের পাশাপাশি দীর্ঘদিন ধরেই নিজের প্রযোজনা সংস্থা ‘নীলাঞ্জনা’ থেকে নাটক ও টেলিফিল্ম নির্মাণ করে আসছেন। মাঝখানে সিনেমা নির্মাণেরও ঘোষণা দেন এই অভিনেত্রী। কিন্তু কবে থেকে তিনি সিনেমা নির্মাণে হাত দেবেন, সে কথা জানাননি। তবে সম্প্রতি তিনি বললেন, ‘একটি নয়, একাধিক সিনেমা বানানোর পরিকল্পনা আছে। এবার আমেরিকা থেকে ঘুরে এসেই কম বাজেটের একগুচ্ছ সিনেমা নির্মাণের কাজ শুরু করব। তবে সেগুলো বিগ বাজেটের নয়, অল্প বাজেটের ছবি।

আমাদের চলচ্চিত্রের যে অবস্থা, এতে একসঙ্গে বিগ বাজেটের ছবি নির্মাণ করলে লোকসানের কবলে পড়তে পারি। আমি লোকসান নয়, লাভের মুখ দেখতে চাই। এ কারণে বেশ আস্তে-ধীরে পরিকল্পনা করতে হবে। তবে এমন কিছু সিনেমা নির্মাণ করব, যা শুধু দেশে নয়, আন্তর্জাতিক বাজার, বিশেষ করে বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করবে।’ রিচি সোলায়মান আরও বলেন, ‘এখন ‘কনটেন্ট’-এর যুগ। দর্শক গৎবাঁধা কোনো কিছু দেখতে চান না। শুধু বড় বাজেট দিয়ে দর্শকের মন পাওয়া যায় না।

এ ছাড়া বহু তারকার সমাগম ঘটালেই যে সিনেমা হিট হবে- সে দিনও নেই। বিশ্বব্যাপী চলচ্চিত্রের একই ধারা চলছে। এমনকি পার্শ্ববর্তী বলিউড ইন্ডাস্ট্রির দিকে তাকালে বোঝা যায়, প্রতিষ্ঠিত তারকাদের চেয়ে তুলনামূলক তরুণরা ভালো করছেন। নতুন কনসেপ্ট ও ভালো নির্মাণশৈলীর কারণে তা সম্ভব হচ্ছে। আমাদেরও চিরায়ত প্রেম-ভালোবাসার গল্পের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। নতুনভাবে চিত্রনাট্য উপস্থাপন করতে হবে। ভিন্নধর্মী কোনো কিছু যদি দর্শক না খুঁজে পান, তাহলে সিনেমার প্রতি আকৃষ্ট হবেন না।

সে ধরনের সিনেমা প্রযোজনা করতে চাই, যেখানে দর্শক ভিন্নতা খুঁজে পাবেন। তবে চলচ্চিত্র শিল্পের এই খরার সময় সাহসী এই সিদ্ধান্ত অনেকখানি ঝুঁকিপূর্ণ উলেস্নখ করে রিচি জানান, বিষয়টা খুবই চ্যালেঞ্জিং। তবে কথায় আছে, ‘আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে।’ অনেকটা এই উক্তির ওপর ভিত্তি করেই প্রযোজনায় এসেছি। এটা সত্যি যে, বেশ কয়েক বছর ধরেই আমাদের দেশের চলচ্চিত্র খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এখন শিল্পীরা যদি নিজ নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসেন, তবেই চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির উন্নতি সম্ভব।

নিজেদেরই যদি ইন্ডাস্ট্রির প্রতি ভালোবাসা না থাকে, তাহলে সাধারণ দর্শক কেন চলচ্চিত্রের প্রতি আগ্রহী হবেন? এই ভাবনা থেকেই প্রযোজনায় আসা। এ ছাড়া অভিনয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন যুক্ত আছি। তাই ক্যামেরার সামনে হোক বা পেছনে- যে কোনো মাধ্যমে চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় নিজেকে যুক্ত রাখতে চাই। দীর্ঘদিন ধরেই স্বামী-সন্তান নিয়ে আমেরিকায় বসবাস করছেন তিনি। তবে বিদেশে থাকলেও মনের টানে এবং মিডিয়ার প্রতি ভালোবাসার কারণে বছরে কিছুদিন পরপরই দেশে আসেন তিনি।

সর্বশেষ গত ১৩ জুন সন্তান নিয়ে দেশে ফিরেছেন এই তারকা। এসেই বেশ কয়েকটি নাটকে কাজ করেছেন। একটি রিয়েলিটি শোতে উপস্থাপনা করেছেন। রিচি বলেন, ‘আমার এখন যে জীবন, সে জীবনটাই আমি সব সময় চেয়েছি। স্বামী-সন্তান নিয়ে সংসার ও তার ফাঁকে নিজের কাজ- এক জীবনে যা পেয়েছি, আমি সন্তুষ্ট।’

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)