ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট নভেম্বর ২৫, ২০১৯

ঢাকা রবিবার, ১৩ মাঘ, ১৪২৬ , শীতকাল, ৩০ জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪১

বিনোদন, লিড নিউজ কিংবদন্তি অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চনের অপমানের প্রতিবাদে মাঠে চলচ্চিত্রের মানুষেরা

কিংবদন্তি অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চনের অপমানের প্রতিবাদে মাঠে চলচ্চিত্রের মানুষেরা

নিরাপদ নিউজ : ঢাকাই সিনেমার কিংবদন্তি অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। তার অভিনীত বেদের মেয়ে জোসনা সর্বোচ্চ আয়ের সিনেমা হিসেবে ইতিহাস হয়ে আছে ইন্ডাস্ট্রিতে। ১৯৯৩ সালে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী জাহানারার মৃত্যুর পর থেকে তিনি নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন তিনি।

এই সামাজিক আন্দোলনকে তিনি বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দিয়েছেন। দেশবাসীকে করেছেন সচেতন। রাষ্ট্রকে দিয়েছেন অনেক গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ। সেই প্রেক্ষিতে রাষ্ট্র তাকে একুশে পদকে সম্মানিত করেছে। প্রিয় মানুষটির ওপর পরিবহন শ্রমিকদের নোংরা ভাষায় অপমান ও হামলার হুমকিতে ক্ষেপেছেন চলচ্চিত্রের মানুষেরা।

ঘটনার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাতে আজ দুপুর ১২টায় এফডিসির গেটের সামনে মানববন্ধন করছেন চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট ১৮টি সংগঠন।

মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পের সব সংগঠনের পক্ষ থেকে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের প্রতি অসম্মানজনক আচরণের তীব্র নিন্দা ও ঘৃণা জানাই। সেই সঙ্গে জনস্বার্থে জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর পূর্ণ বাস্তবায়ন চাই আমরা।’  তিনি আরও বলেন, ইলিয়াস কাঞ্চন দীর্ঘ ২৭ বছর একা একা লড়াই করে চলছেন তিনি দেশের মানুষের নিরাপদ জীবনের জন্য। তার প্রতি অপমান মেনে নেয়া যায় না!’

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার। বক্তব্য রাখেন শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর, পরিচালক সমিতির মহাসচিব বদিউল আলম খোকন, শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান। নিরাপদ সড়ক চাই থেকে চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চনের পক্ষে বক্তব্য রাখেন যুগ্ম মহাসচিব লিটন এরশাদ। আরও বক্তব্য রাখেন সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেন। নিরাপদ সড়ক চাই এর যুগ্ম মহাসচিব লিটন এরশাদ এর নেতৃত্বে মানববন্ধনে নাসিম রুমি,নজরুল ইসলাম ফয়সালসহ ৫ সদস্যের প্রতিনিধি টিম উপস্থিত ছিলেন।

আরো উপস্থিত ছিলেন প্রযোজক সমিতির নেতা আলিমুল্লাহ খোকন, হিমেল, রশিদুল আমিন হলি, আতিকুর রহমান লিটন, পরিচালক ছটকু আহমেদ, শাহ আলম কিরন, নুর মোহাম্মদ মনি, শিল্পী চক্রবর্তী, ইস্পাহানী, অপূর্ব রানা, কবিরুল ইসলাম রানা, শাহিন কবির টুটুল, কমল সরকার, গাজী মাহবুব, হোসাইন আনোয়ার, আবুল খায়ের বুলবুল, এস এ হক অলিক, ইলিয়াস আহমেদ, রাজু চৌধুরী, শিল্পী অরুণা বিশ্বাস, অঞ্জনা, অমিত হাসান, ইমন, সাইমন, মারুফ আকিব, আলেকজান্ডার বো, আতিকুর রহমান চুন্নু, এডিটরস গিল্ডের পক্ষে আবু মুসা দেবু, স্টিল ফটোগ্রাফার্স এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে আইয়ুব আকন্দসহ চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিচালক, জুনিয়র শিল্পী, চিত্রগ্রাহকদের অনেকে উপস্থিত ছিলেন। সেই সাথে ১৮ সংগঠনের অন্তর্ভুক্ত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতি, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক, শিল্পী, নৃত্যশিল্পী, চিত্রগ্রাহক, ফাইট ডিরেক্টর, সহকারী পরিচালকদের সমিতিগুলোর প্রতিনিধিরাও উপস্থিত হন মানবন্ধনে।

নিরাপদ সড়ক চাই এর যুগ্ম মহাসচিব লিটন এরশাদ মানববন্ধনে তার বক্তব্যে বলেন, আজ যেখানে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঠিক আজ থেকে ২৬বছর আগে এই একই যায়গা থেকে নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রথম যাত্রা শুরু হয় বিশাল মানববন্ধনের মাধ্যমে। সেদিন আপনারা অনেকেই ইলিয়াস কাঞ্চনের পাশে ছিলেন। আজও আপনারা তার পাশে দাড়িয়েছেন। তাকে অপমানের প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছেন। আমি সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। সেই সাথে আগামীতেও আপনারা আমাদের পাশে থাকবেন এই প্রত্যাশা করি।

নিরাপদ সড়ক চাই এর সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, আজ সকলের প্রিয় মানুষটির অপমানের প্রতিবাদে শিল্পি সমাজ যেভাবে এগিয়ে এসেছে ইলিয়াস কাঞ্চনের পাশে দাড়িয়েছে এই সহযোগিতা ইলিয়াস কাঞ্চনের সামনের দিনের কাজের অনুপ্রেরনা। তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা বলেন, ইলিয়াস কাঞ্চন গত দুই যুগের বেশি সময় ধরে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে নিরলস সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। তিনি ন্যায়ের পক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা শিল্পী সমাজ তার পাশে আছি। প্রয়োজন হলে আমরা রাস্তায় নামবো। দয়া করে বাংলার শিল্পী সমাজকে রাস্তায় নামতে বাধ্য করবেন না।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের সঙ্গে যে অসম্মানজনক আচরণ করা হয়েছে তার জন্য আমাদের এই প্রতিবাদী কর্মসূচি। পাশাপাশি জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা আইন- ২০১৮-এর পূর্ণ বাস্তবায়ন দাবি করছি। প্রয়োজনে আরো কর্মসূচি হাতে নেব।

মানববন্ধনে অন্যান্ন বক্তারা তিব্র নিন্দায় ফেটে পরেন ও হুশিয়ারী বাক্য উচ্চারন করে বলেন, ইলিয়াস কাঞ্চন একজন সুপারস্টার। স্ত্রী হারিয়ে শোকে গুটিয়ে যাননি। সব ভুলে গিয়ে তিনিও নিজের সোনালী জীবন নিয়ে ব্যস্ত হতে পারতেন। কিন্তু বিশাল মানবিক হৃদয় তাকে অন্যের প্রিয়জন বাঁচানোর দায়িত্বে মনযোগী করে তুলেছে। দীর্ঘ ২৭ বছর একা একা লড়াই করে চলেছেন তিনি দেশের মানুষের নিরাপদ জীবনের জন্য। তার প্রতি অপমান মেনে নেয়া যায় না! কাঞ্চন সাহেব রাষ্ট্রকে সুপারিশ করেছেন কী কী নিয়ম ও আইন করতে পারলে দেশের সড়ক দুর্ঘটনা কমবে বা সড়কে মৃত্যুর মিছিল থামবে। সরকার সেই আইন বাস্তবায়ন করবে রাষ্ট্রের প্রয়োজনে। এখানে ইলিয়াস কাঞ্চনকে কেন অশালীন ভাষায় গালি দেয়া হচ্ছে। তার ছবিতে কুরুচিপূর্ণ কথা লেখা হচ্ছে। এটা অন্যায়। যারা করছেন তাদের প্রতি আমাদের ঘৃণা ও প্রতিবাদ জানাই। সেই সাথে বলতে চাই ভবিষৎতে যদি এমন কাজ আবাও কেউ করে তবে আমরা শিল্পি সমাজ কঠোর আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবো। বক্তারা সকলে আগামী দিনে ইলিয়াস কাঞ্চনের পাশে থেকে কাজ করে যাবার আশ্বাস প্রদান করেন এবং নতুন সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়নের দাবি জানান।

উল্লেখ্য,দীর্ঘ ক্যারিয়ারে অসংখ্য কালজয়ী ও সুপারহিট সিনেমা তিনি উপহার দিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। কোটি কোটি মানুষের ভালোবাসার পাশাপাশি জয় করেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ অনেক স্বীকৃতি ও সম্মাননা। সাংগঠনিকভাবেও তিনি জড়িয়ে আছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক ও শিল্পী সমিতির সঙ্গে। সর্বশেষ শিল্পী সমিতির নির্বাচনে প্রধান কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে শৃঙ্খলা, সততা ও ন্যায়পরায়ণতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তিনি।

১৯৯৩ সালে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী জাহানারার মৃত্যুর পর থেকে তিনি নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন। এই সামাজিক আন্দোলনকে তিনি বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দিয়েছেন। দেশবাসীকে করেছেন সচেতন। রাষ্ট্রকে দিয়েছেন অনেক গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ। সেই প্রেক্ষিতে রাষ্ট্র তাকে একুশে পদকে সম্মানিত করেছে।

অভিনয়, ব্যক্তিত্ব, নেতৃত্ব, এসব গুণাবলী ইলিয়াস কাঞ্চনকে চলচ্চিত্রপাড়ায় করেছে নন্দিত।

চলচ্চিত্র শিল্পী-পরিচালক সমিতির মানববন্ধন

ইলিয়াস কাঞ্চনের অপমানের প্রতিবাদে চলচ্চিত্র শিল্পী-পরিচালক সমিতির মানববন্ধন এফডিসির গেইট।

Posted by ইলিয়াস কাঞ্চন/নিরাপদ নিউজ on Monday, November 25, 2019

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)