ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট অক্টোবর ২৮, ২০১৯

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৪ রবিউস-সানি, ১৪৪১

জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস, নিসচা সংবাদ, লিড নিউজ নিসচার আয়োজনে মুন্সীগঞ্জ পিটিআইতে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিসচার আয়োজনে মুন্সীগঞ্জ পিটিআইতে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিরাপদনিউজ : নিসচার মাসব্যাপী কর্মসূচির ২৮তম দিনে আজ নিরাপদ সড়ক চাই টঙ্গিবাড়ি উপজেলা শাখার আয়োজনে মুন্সীগঞ্জ পিটি আই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক শিক্ষক-প্রশিক্ষণ কমর্মশালা পিটিআই হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালার ১ম সেশন শুরু হয় সকাল ১০টায়।

১ম সেশনে শিক্ষকদের মাঝে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন ও প্রধান প্রশিক্ষক নিসচা কেন্দ্রীয় মহাসচিব সৈয়দ এহসান-উল হক কামাল। এরপর ২য় সেশন শুরু হয়। ২য় সেশনে আলোচনা সভা ও শিক্ষকদের ট্রেনিং প্রদান শেষে নিসচার সার্টিফিকেট বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোহাম্মদ জায়েদুল আলম, পিপিএম(বার),পুলিশ সুপার মন্সীগঞ্জ। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।

প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,নিসচা কেন্দ্রীয় মহাসচিব সৈয়দ এহসান-উল হক কামাল,বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন, ভাইস চেয়ারম্যান শামীম আলম দীপেন, জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও যুগ্ম মহাসচিব লিটন এরশাদ, যুগ্ম মহাসচিব লায়ন গনি মিয়া বাবুল, জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক,আব্দুর রহমান,বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন, অধ্যাপক আবু ইউসুফ ফকির,ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষক সমিতির সভাপতি।, জেলা প্রা:শিক্ষা অফিসারের প্রতিনিধি মাহবুব তালুকদার। এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন,নিসচা শিক্ষার্থী ইউনিটের দুই সদস্য সাকিব হোসেন ও আসাদুল ইসলাম আসাদ । সভা পরিচালন করেন মো: সাইফুর রহমান। সভাপতিত্ব করেন নিরাপদ সড়ক চাই টঙ্গিবাড়ি উপজেলা শাখার সভাপতি এম জামাল হোসেন মন্ডল।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ,পুলিশ সুপার মন্সীগঞ্জ, জনাব মোহাম্মদ জায়েদুল আলম, পিপিএম(বার) তার বক্তব্যে শিক্ষকদের প্রতি আস্থা রেখে বলেন, আমার সন্তান অনেক সময় আমার কথা শোনেনা কিন্তু শিক্ষকদের কথা শোনে। এই সড়কের নিরাপত্তা যদি নিশ্চিত করতে হয় তাহলে শিক্ষক সমাজের ভূমিকা অনেক। তারাই পারবে আগামীর ভবিষ্যৎকে সচেতন করতে। সচেতন হিসেবে গড়ে তুলতে। এরআগে তিনি নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের মহীয়সী নারী জাহানারা কাঞ্চনকে শ্রোদ্ধার সাথে স্বরণ করে বলেন, এই নারী তার জীবনের বিনিময়ে এমন একটি ইতিহাস তৈরী করে গেছেন যা সারা বিশ্বে রোল মডেল হয়ে আছে। আজ তার কারণে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এই প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে বলেই সারা বিশ্বে আজ দুর্ঘটনারোধে নানা রকমের কর্মকান্ড গৃহিত হচ্ছে বাস্তবায়ন হচ্ছে। পাশাপাশি তিনি ইলিয়াস কাঞ্চনেরও প্রশংসা করেন। প্রধান অতিথি ,পুলিশ সুপার মন্সীগঞ্জ, জনাব মোহাম্মদ জায়েদুল আলম সকলকে এই সংগঠনের সাথে থেকে সচেতন মুলক কাজে সহযোগীতা করার আহবান জানান।

শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আপনারা মানুষ তৈরি করার কারিগর। আপনাদের ছাত্রদের সচেতন করে তুলতে হবে। রাস্তায় চলতে হলে প্রত্যেকের দায়িত্ব কি তা জানাতে হবে। আজ আমরা এসেছি আপনাদের কিছু জানাতে এবং আজ আপনারা জেনে পরবর্তিতে আপনি আপনার ছাত্র/ছাত্রীদের তা জানাবেন। নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেছেন, সড়ক দুর্ঘটনার অনেকগুলো কারণ রয়েছে। দুর্ঘটনা ঘটলে আমরা শুধু চালকদের দোষ, গাড়ির দোষ, রাস্তার দোষ সবাই অন্যের দোষগুলো তুলে ধরি কিন্তু আমাদের নিজেদের কি দোষ তা কখনো ভাবিনা। দুর্ঘটনারোধে আমাদের কি কোনো দায়িত্ব নেই? নিজের জীবন বাঁচানোর জন্য পথচারী হিসেবে আমাদের কি কোন দায়িত্ব নেই? পথচারী হিসেবে নিজে যে ভুলগুলো করি, তা কখনো দেখতে চাই না।

আমাদের উচিৎ নিজেদের ভুলত্রটি গুলো খুজে বের করা এবং তা শুধরে নেয়া। আমাদের সচেতনতার বড় অভাব রয়েছে। রাস্তায় চলাচল করার সময় প্রায় দেখা যায় মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হচ্ছেন। আবার অনেকে কানে হেডফোন-ব্লুটুথ ব্যবহার করেও রাস্তা পার হচ্ছেন, যা দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। এজন্য সকলকে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি জেব্রা ক্রসিং, সিগন্যাল বাতি দেখে রাস্তা পার হওয়ার অভ্যাসও গড়ে তুলতে হবে। ইলিয়াস কাঞ্চন আরো বলেন,সড়কে যত গতি ততই কিন্তু ক্ষতি এই কথাটা আমাদের মনে রাখতে হবে। তিনি বলেন আমরা অনেকে কোথাও কাজে বের হবার সময় এদিক সেদিক সময় নস্ট করে গন্তব্যস্থলে রওনা দেই দেরি করে। আর এই দেরি করে বের হবার জন্য সড়কে গাড়িতে উঠে শুরু করি তারাহাড়া। এই তারাহুড়া পরিহার করতে হবে।

তিনি আরো বলেন,আমরা অনেক সময় গাড়িতে যাত্রা করার সময় হুট হাট চালককে যত্রতত্র গাড়ি থামাতে বলি। অযথা হুটহাট যেখানে সেখানে গাড়ি থামানো উচিৎ নয় এসব বিষয়েও আমাদের যথেষ্ঠ ধারনা থাকতে হবে। কর্মশালায় ইলিয়াস কাঞ্চন বেশ কয়েকটি ভিডিও ফুটেজ শিক্ষকদের দেখায় এবং এই ভিডিও গুলোর বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করে বুঝিয়ে দেন।

কর্মশালায় অন্যান্ন বক্তারা শিক্ষকদের মাধ্যমে স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণের মধ্যে রাস্তায় চলাচল ও পারাপারের বিভিন্ন রকম সচেতনতামূলক বক্তব্য ও প্রশিক্ষণ প্রদান করেন।

Posted by Kanchan Ilias on Sunday, October 27, 2019

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)