ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট মার্চ ২০, ২০২০

ঢাকা শনিবার, ২১ চৈত্র, ১৪২৬ , বসন্তকাল, ৯ শাবান, ১৪৪১

নিসচা সংবাদ, লিড নিউজ বঙ্গবন্ধু সার্বজনিন, দেশের ১৭ কোটি মানুষের মনিকোঠায় তার স্থান: ইলিয়াস কাঞ্চন

বঙ্গবন্ধু সার্বজনিন, দেশের ১৭ কোটি মানুষের মনিকোঠায় তার স্থান: ইলিয়াস কাঞ্চন

নিরাপদ নিউজ: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী আজ। এ উপলক্ষে চলতি বছর থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত বছরজুড়ে ‘মুজিববর্ষ’ ঘোষণা করেছে সরকার। এ উপলক্ষে বছরব্যাপী দেশে-বিদেশে নানা কর্মসূচি উদযাপনেরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আজ সারাদেশে যথাযথ মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে পালিত হচ্ছে এই দিনটি।

সরাকারি বিভিন্ন কর্মসূচি ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন দিবসটি আজ পালন করছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘মুজিববর্ষের শপথ সড়ক করবো নিরাপদ’ স্লোগানে সামাজিক সংগঠন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) ও হাতে নিয়েছে কর্মসূচি। নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশ অনুযায়ী সারাদেশে যথাযথ মর্যাদায় নিসচা শাখা কমিটিগুলো পালন করছে আজকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। এবং নিসচা প্রধান কার্যালয়ে আজ সন্ধ্যায় পালন করা হয় নিরাপদ সড়ক চাই কেন্দ্রীয় কমিটির আয়োজনে দোয়া ও আলোচনা সভা।

নিসচার আয়োজনে দোয়া ও আলোচনা সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল গোপালগঞ্জের নিভৃত গ্রাম টুঙ্গীপাড়ায় জন্ম নেওয়া শেখ মুজিবুর রহমান একদিন বাংলাদেশকে স্বাধীনতা এনে দেন। মানুষের মুক্তির জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন তিনি। বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের কথা বলেছেন তিনি। বিশ্বের এই মহান নেতা শুধু বাংলার মানুষের বন্ধুই ছিলেন না তিনি ছিলেন বিশ্বনেতা।  ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, প্রতিটি মানুষের জীবনে অনুপ্রেরনা থাকে,আমার জীবনের অনুপ্রেরনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি একজন সাধারন মানুষ ছিলেন না। তিনি একটি প্রতিষ্ঠান, একটি আন্দোলন থেকে একটি সংগ্রাম এবং সংগ্রাম থেকে স্বাধীনতা অর্জনকারী বাংলাদেশের স্থপতি। তিনি একটি ইতিহাস। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর আদর্শ আমাকে অনুপ্রানিত করেছে।বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত হয়েই আমার এই নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭১সালে শত্রু পক্ষের সাথে মুক্তির প্রশ্নে কোনো আপসে যাননি। তাঁর আত্মসম্মানবোধ তাঁর আত্মবিশ্বাসের মতোই ছিল দৃঢ়। তাঁর মতো অকুতোভয় ও ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ ইতিহাসে বিরল। ঠিক তেমনি তার আদর্শে অনুপ্রানিত আমার এই নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন নিরাপদ সড়ক বাস্তবায়নে আপোষহীন। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও কর্মকে লালন করি, এবং আমি মনে করি সকলে যদি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ,নীতিগুলো অনুসরন করেন তাহলে সেটাই হবে তার প্রতি সত্যিকারের সম্মান প্রদর্শন।বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও চরিত্র আমাদের সবার কাজকর্মে ও জীবনে প্রতিফলিত হোক।

ইলিয়াস কাঞ্চন আরো বলেন, অনেকে হয়তো আজ প্রশ্ন করবেন আপনি নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন করেন এটিতো কোন রাজনৈতিক সংগঠন না তাহলে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী কেন নিসচা পালন করছে, আমি বলব বঙ্গবন্ধু সার্বজনিন,বঙ্গবন্ধু সরকার কিংবা দলের একার সম্পত্তি নয়, তিনি সার্বজনিন। দেশের ১৭ কোটি মানুষের মনিকোঠায় তার স্থান।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন,আমরা যুদ্ধ করেছি, দেশ স্বাধীন করেছি কিন্তু আজও শত্রু মুক্ত হইনি। আজ আমাদের মাঝে শত্রু রয়েছে। ১৯৭১সালে হয়তো আমরা পাকিস্তানের শত্রুদের বিদায় করে দিতে পেরেছিলাম কিন্তু এই দেশের ভেতর যে শত্রুরা ছিলো তারা কিন্তু রয়ে গেছে। এবং সেইসব শত্রু ছিলো বলেই বঙ্গবন্ধুকে জীবন দিতে হয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে জীবন দিতে হয়েছে কেন? শুধু মাত্র তার আদর্শের কারণেই । কারণ বঙ্গবন্ধু যখনি দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন সব দুর্নীতি বন্ধ করতে চেয়েছেন দেশ থেকে চাটার দলকে নির্মুল করতে চেয়েছেন তখন এই চাটার দল এই দুর্নীতিগ্রস্ত মানুষগুলোই বঙ্গবন্ধুকে খুন করেছে। ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আমাদের ভুলে গেলে চলবে না এই শত্রুগুলো আজ আমাদের দেশে বহালতবিয়তে আছে, এই দুর্নীতিবাজ মানুষগুলোকে যতক্ষন না দেশ থেকে তাড়ানো হবে ততদিন পর্যন্ত দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্তহবে। বাংলাদেশ নিয়ে বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন , বঙ্গবন্ধুর যে চাওয়া তা বাস্তবায়ন হবেনা। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানাই আপনি দেশ থেকে দুর্নীতিবাজদের চিন্হিত করুন তাদের দেশ থেকে বিদায় করুন।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন , আমাদের সংগঠন নিরাপদ সড়ক চাই(নিসচা) মানব কল্যাণের পাশাপাশি সড়ক দুর্ঘটনা নিরসনে বিভিন্ন কার্যক্রম অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে পালন করে আসছে। শত প্রতিকূলতার মাঝেও আমাদের অকুতোভয় কর্মীরা সেচ্চাসেবীর ভিত্তিতে রাত-দিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে, যাতে করে এ দেশের মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, এদেশের রাজপথ যেনো সড়ক দুর্ঘটনার কারণে রক্তে রঞ্জিত না হয়। কিন্তু এই রাজপথে সেইসব দেশের শত্রু আমাদের কাজে বাধা হয়ে দাড়াচ্ছে বারবার। তাঁদের অপশক্তির কাছে আমরা পরাজিত হতে রাজি নই। আমরা দেশকে সড়ক দুর্ঘটনা মুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই কিন্তু অপশক্তি দেশের শত্রু দুর্নীতি করে দেশের সড়ককে বারবার অপনিরাপদ করে তুলছে। তাঁরা সড়ক পরিবহন আইনটি পর্যন্ত বাস্তবায়নে বাধাগ্রস্ত করছে। মুজিববর্ষে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে ইলিয়াস কাঞ্চন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ করে বলেন, দেশের ভেতর আজও যে সমস্ত শত্রু আছে যারা দেশের মঙ্গল চায়না দুর্নীতি করে দেশটাকে ধংস্ব করছে তাঁদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যাবস্থা নিন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা আমরা গড়বই।

পরিশেষে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আজকের এই মাহেন্দ্রক্ষণে আমি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। শ্রদ্ধা জানাচ্ছি ১৫ আগস্টের শহিদদের প্রতি। স্মরণ করছি মুক্তিযুদ্ধের সব শহিদকে। নির্যাতিত মা-বোন এবং যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। মুক্তিযোদ্ধাদের সবার প্রতি রইলো সালাম।

দোয়া ও আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন খান নান্টু, মহাসচিব সৈয়দ এহসান-উল হক কামাল, যুগ্ম-মহাসচিব সাদেক হোসেন বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম আজাদ হোসেন, প্রচার সম্পাদক এ কে এম ওবায়দুর রহমান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মফিজুর রহমান বাবু, অর্থ সম্পাদক আসাদুর রহমান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মিরাজুল মইন জয়, কার্যকরী সদস্য রাইসিন গাজী (ধারা),মোঃ মহসিন খান,আব্দুল আলীম, সালাম মাহমুদ সহ নিসচার কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যান্ন নেতৃবৃন্দ।

সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম আজাদ হোসেনের পরিচালনায় আলোচনা সভার শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ মুক্তিযুদ্ধের সকল শহিদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে দোয়া পাঠ করা হয়। দোয়া ও মোনাজাত পাঠ করেন স্থানীয় মসজিদের ইমাম।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)