ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯

ঢাকা বুধবার, ১৬ মাঘ, ১৪২৬ , শীতকাল, ৩ জমাদিউস-সানি, ১৪৪১

অপরাধ, বরিশাল বাউফলে যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীর মাথার চুল কেটে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী

বাউফলে যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীর মাথার চুল কেটে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী

কামরুল হাসান,নিরাপদ নিউজ: পটুয়াখালীর বাউফলে যৌতুকের টাকা না দেয়ায় জেসমিন (২০) নামের এক গৃহবধূর মাথার চুল কেটে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী। একবার, দুইবার নয়, এ নিয়ে তিনবার তার মাথার চুল কেটে দেয়া হয়েছে। কেবল সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে জেসমিন সব কষ্ট মেনে নিলেও বর্তমানে স্বামীর নিষ্ঠুরতায় তার জীবন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। জেসমিনের বাবার নাম হাসেম খন্দকার।
জেসমিন জানায়, প্রায় ৬ বছর আগে দাসপাড়া ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ডের মমিন প্যাদার ছেলে জসিম উদ্দিন প্যাদার(২৫) তার বিয়ে হয়। বিয়ের সময় যৌতুক হিসাবে তার স্বামীকে একটি ব্যাটারিচালিত গাড়ি, স্বর্ণালঙ্কার ও আসবাবপত্রসহ এক লাখ টাকার মালামাল প্রদান করেন। স্বামীর সংসারে কয়েক বছর তিনি ভালোই ছিলেন। হঠাৎ করে তার স্বামী মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে। নেশা করে বাড়ি ফিরে অকারণে তাকে মারধর করত। এ ভাবে চলতে থাকে তার সংসার জীবন। আরফামনি নামে তাদের ৭ মাস বয়সি একটি শিশু সন্তান রয়েছে। জসিম গত ৩-৪ মাস ধরে ঘর নির্মাণের নামে যৌতুক হিসাবে তার কাছে আড়াই লাখ টাকা দাবি করে।
জেসমিনের বাবা একজন অটোগাড়ির চালক। দৈনিক গাড়ি চালিয়ে যে টাকা পান তা দিয়ে কোনরকম তাদের সংসার চলে। সেখানে আড়াই লাখ টাকা দেয়ারমত সাধ্য তাদের নেই। তাই জেসমিন টাকা দিতে অপরগতা করায়, তার উপর শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন শুরু হয়। দুই মাস আগে প্রথম দফায় তার মাথার চুল কেটে দেয়া হয়। এরপর বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা চালানো হয়। ঠিকমত খেতে দেয়া হতো না। প্রায় দিনই না খেয়ে থাকতে হতো তাকে।
এরপর ১৫-২০ দিন আগে টাকার জন্য দ্বিতীয় দফায় তার মাথার চুল কেটে দেয়া হয়। শীতের মধ্যে খাটে শুতে না দিয়ে শিশু সন্তানসহ তাকে মাটিতে শুতে (ঘুমাতে) বাধ্য করা হতো। বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) তার স্বামী জসিম, শ্বাশুরী মিনারা বেগম দেবর মামুন ও ননদ আসমা তাকে মারধর করে। একপর্যায়ে আবার তার মাথার চুল কেটে দেয়। এ ভাবে তার উপর শরীরিক ও মানুসিক নির্যাতন চালানো কারণে তিনি অতিষ্ট হয়ে স্থানীয় ইউপির সদস্য খলিলুর রহমানের কাছে বিচার দেন। কিন্তু তিনি বিচারের নামে সময় ক্ষেপন করতে থাকেন। জেসমিন তার উপর এ অমানুবিক নির্যাতনের বিচার দাবি করেছেন।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)