ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ১৬ মিনিট ৯ সেকেন্ড

ঢাকা বুধবার, ২৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৩ রবিউস-সানি, ১৪৪১

রাজনীতি, লিড নিউজ মুক্তিযুদ্ধ কোন রাজনীতির বিষয় নয়: আমির খসরু

মুক্তিযুদ্ধ কোন রাজনীতির বিষয় নয়: আমির খসরু

নিরাপদ নিউজ: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে রাজনীতি করার দরকার নাই। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে নিয়ে মূলধন করে যে রাজনীতি চলছে সেটা কষ্টের বিষয়। মুক্তিযুদ্ধ মূলধনের বিষয় নয়। ক্ষমতায় থাকার জন্য মুক্তিযুদ্ধকে অব্যাহতভাবে ব্যবহার করা কোনোদিনই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।
তিনি আরও বলেন, সারা পৃথিবীতে ইতিহাস রচনা করেন ইতিহাসবিদরা কিন্তু বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস রচনা করছেন রাজনীতিবিদরা। বিষয়টা এখন এমন দাঁড়িয়েছে যে ক্ষমতা দখল করে আমার সুবিধা মতো আমি ইতিহাস লিখব। বর্তমানে রাজনীতিবিদরা তাই করছেন।
আজ রোববার ১০ নভেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম দল আয়োজিত দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও ৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় আমির খসরু এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধকে মূলধন করে যে রাজনীতি চলছে সেটিই অনেক কষ্টের বিষয়। এর জন্য মানুষ জীবন দিয়েছে। শুধুমাত্র মুক্তির আশায় এটাকে মূলধন করে, রাজনীতি করে ক্ষমতায় যাওয়া এবং অব্যাহতভাবে ক্ষমতায় থাকার জন্য মুক্তিযুদ্ধকে মূলধন করা কখনোই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী ঘটনাগুলি এবং ইতিহাস রচনা নিয়ে বড় ধরনের রাজনীতি চলছে। এর চেয়ে দুঃখের বিষয় আর কিছুই হতে পারে না। মুক্তিযুদ্ধ কোন রাজনীতির বিষয় না। কোন জাতি যখন তার মুক্তির প্রত্যাশায়, আগামী ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে মুক্তিযুদ্ধ করে সেটি নির্মোহ প্রয়াস।
তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে যাদের অবদান আছে তাদেরকে সম্মান দেওয়া হচ্ছে না। জাতির পিতা নিয়ে প্রতিযোগিতার কারণ নেই। মুক্তিযুদ্ধে সত্যিই যাদের অবদান আছে তাদেরকে স্বীকার করতে হবে। এখানে কোন প্রতিযোগিতার বিষয় নেই। আরও অনেকেই আছে যারা মুক্তিযুদ্ধের ফাউন্ডিং ফাদার। আওয়ামী লীগ যারা কিনা আজ জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে। এক সময় তারা যে কারণে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে ছিলো তার সমস্ত কিছুই কেড়ে নিয়েছিলো। কিন্তু সবকিছু ফিরিয়ে দিয়েছিলেন শহীদ জিয়াউর রহমান। উনি ফিরিয়ে দিয়েছিলেন বহুদলীয় গণতন্ত্র। যে গণতন্ত্রের জন্য যুদ্ধ হয়েছে। উনি বাক স্বাধীনতা, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা এবং আইনের শাসন ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। বাংলাদেশের অর্থনীতির যে মৌলিক সংস্কার তার প্রত্যেকটি সংস্কার করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল। শুরু করেছিলেন জিয়াউর রহমান এবং শেষ করেছেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। এবং তারেক রহমান তা অব্যাহত রেখে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।
নতুন প্রজন্মের উদ্দেশ্যে আমীর খসরু বলেন, নতুন প্রজন্মের দায়িত্ব হচ্ছে সঠিক ইতিহাস আগামী দিনে প্রণীত করা। আপনারা আগামী দিনের কার্যক্রম ঠিক করুন। নেত্রীকে কিভাবে মুক্ত করবেন সেটার সঠিক সিদ্ধান্ত নেন। আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ফজলুর রহমান প্রমুখ ।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)