ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট নভেম্বর ২৮, ২০১৯

ঢাকা সোমবার, ২৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪১

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি শহীদ মিনারে ইংরেজি গান বাজিয়ে ‘নাচানাচি’!

শহীদ মিনারে ইংরেজি গান বাজিয়ে ‘নাচানাচি’!

নিরাপদ নিউজ : ইংরেজি গানের তালে তালে কিছু তরুণীর নাচের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে ইন্টারনেট ভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এই নাচানাচিকে বলে ‘ফ্ল্যাশ মব’। যা দেখে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন নেটিজেনরা।

প্রশ্ন উঠেছে, এমন একটি নাচের ভিডিও ধারণ কেন আমাদের সকলের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার জায়গা শহীদ মিনারে করতে হবে? সমালোচনা হচ্ছে শহীদ মিনারে এমন একটি অনুষ্ঠান আয়োজনের অনুমতি দেওয়া নিয়েও। ভিডিওটি নাকি গতকাল বুধবারই ধারণ করা হয়েছে।

এক নেটিজেন লিখেছেন, এ দোষ বা অপরাধ আমাদের। আমরা পারিনি নতুন প্রজন্ম কে সঠিক ইতিহাস জানাতে ও দেশাত্মবোধে মানুষ করতে। এ আমাদের চরম ব্যার্থতা।

সৈয়দ নাজমুল হোসেন নামের আরেকজন লিখেছেন, আমি যতটুকু জানি, শহীদ মিনারে কিছু করতে হলে এই পবিত্র স্থাপনা রক্ষণাবেক্ষণে নিয়োজিত সরকারি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে যথাযথ অনুমোদন নিয়ে করতে হয়। তাই কর্তৃপক্ষের এ ধরনের উদাসীনতা অবশ্যই জোরালো জবাবদিহিতার দাবি রাখে।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, ঢাকাঃ ২৭ নভেম্বর ২০১৯

ঘটনাটি গতকাল ২৭ নভেম্বরের, স্থান: কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, ঢাকা। পরিমিতিবোধ হারানো, ইতিহাস বিস্মৃত ও সর্বসংহারি বিকৃত আচরণের ক্ষেত্রে আমাদের তুলনা সম্ভবত পৃথিবীতে দ্বিতীয়টি নেই। এবার আমাদের অবিশ্বাস্য অশ্রদ্ধা ও অসম্মানের কবল থেকে বাঁচেনি রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটি।কোন কুতর্ক উসকে দিতে নয়, নারী আন্দোলনকে হেয় করতেও নয়, নিপীড়নের পক্ষেও নয়, মনের সব বদ্ধ দুয়ার খুলে একবার চিন্তা করুন তো, খুব বেশি প্রয়োজন ছিল কি, শহীদ মিনারে ইংরেজি গান বাজিয়ে এই ফ্ল্যাশ মবের ?ভাষা শহীদদের রক্ত মাড়িয়ে 'ফ্ল্যাশ মব' চর্চা করে আর যাই হোক, ন্যায়সঙ্গত দাবী'র পক্ষে সোচ্চার হওয়া যায় না।আফসোস, আমাদের ভাষার জন্যই মানুষগুলো নিজ প্রাণ উৎসর্গ করেছিলেন! আফসোস, অধঃপতনের চূড়ান্ত সোপানে দাঁড়িয়েও আমরা সবাই নির্বিকার। এই দায়ভার ব্যাক্তির নয়, এই দায়ভার সম্মিলিত ও সুনির্দিষ্টভাবেই আমাদের সবার। এবং এই বাংলাদেশই আমাদের বাংলাদেশ, এই কুৎসিত কদর্য ঘটনাটিও অবক্ষয়েরই অংশমাত্র। আমাদের 'গ্লানি' মুছে যায়না, বরং যুক্ত হয় অমোচনীয় নতুন 'গ্লানি', আগামীতে কি অপেক্ষা করছে জানা নেই। যা কিছু শুভ সবই এখন 'বোধহীন'।সব'চে কষ্ট লেগেছে আয়োজক তালিকা দেখে, আমাদের শ্রদ্ধার ও ভালোবাসার সহযোদ্ধাদের সেই তালিকায় দেখতে পেয়ে। সংবাদের বিস্তারিতঃ https://sarabangla.net/post/sb-353857/ জীবন সমুদ্রের ওপারে ভালো থাকবেন শ্রদ্ধেয় আবদুল লতিফ, আপনি চলে গিয়ে বেঁচে গেছেন। "কইতো যাহা আমার দাদায়, কইছে তাহা আমার বাবায়এখন কও দেহি ভাই মোর মুখে কি অন্য কথা শোভা পায়?"ভিডিওঃ অরূপবিঃদ্রঃ কুৎসিত,ব্যক্তি আক্রমনাত্মক ও মানুষের প্রতি অবমাননাকর মন্তব্য মুছে ফেলা হবে এবং ব্লক করা হবে। যৌক্তিক ও সুস্থ্য মন্তব্য করুন যদি করতে হয়।

Posted by গেরিলা ১৯৭১ on Wednesday, November 27, 2019

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)