ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট ৫ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড

ঢাকা রবিবার, ৩০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ১৭ রবিউস-সানি, ১৪৪১

টেনিস স্তন ক্যান্সার নিয়ে সচেতন করতে নগ্ন হলেন টেনিস তারকা সেরেনা

স্তন ক্যান্সার নিয়ে সচেতন করতে নগ্ন হলেন টেনিস তারকা সেরেনা

নিরাপদনিউজ : নগ্ন টেনিস তারকা সেরেনা উইলিয়ামস। দুহাত দিয়ে স্পর্শ করে রয়েছেন নিজের দুই স্তন। গান গাইছেন ‘আই টাচ মাইসেলফ’। উদ্দেশ্য একটাই, স্তন ক্যান্সার নিয়ে সচেতনতা বাড়ানো।

জিনিউজ পত্রিকার খবরে বলা হয়, প্রত্যেকবারই স্তন ক্যান্সার নিয়ে সচেতনতা প্রসারে অক্টোবর মাসটিকেই বেছে নেওয়া হয়। এই মাসটিতে স্তন ক্যান্সার নিয়ে সচেতনতা প্রসারে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়। তবে এবার অবশ্য অক্টোবর মাসের আগেই স্তন ক্যান্সার নিয়ে সচেতন করে তুলতে বিশেষ উদ্যোগ নিলেন টেনিস তারকা সেরেনা। সাধারণত স্তন ক্যান্সার হয়েছে কিনা তা বোঝার অন্যতম উপায় হল নিজেই নিজের স্তন নিয়মিত পরীক্ষা করা। চিকিৎসকরা সবসময়ই এই পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

প্রত্যেক নারী নিজেই সুস্থ থাকতে এবিষয়টি পরীক্ষা করে দেখতে পারেন। কারণ, স্তন ক্যান্সার প্রথম পর্যায়ে ধরা পড়লে তা চিকিৎসায় সারিয়ে তোলা সম্ভব বলেও দাবি করেন চিকিৎসকরা। তাই এবিষয়ে প্রথম থেকে সচেতন হলে বিষয়টি মারণরোগে পরিণত হওয়ার আগেই আটকে দেওয়া যায়। তাই এবিষয়ে প্রত্যেক নারীরই সচেতন থাকা উচিত ও নিয়মিত স্তন পরীক্ষা করা উচিত। সেবিষয়ে সচেতনতা প্রসারে নগ্ন হয়ে নিজের স্তন স্পর্শ করে ‘আই টাচ মাইসেলফ’ গানটি গাইতে দেখা গেছে সেরেনা উইলিয়ামসকে।

৯ সেকেন্ডের এই ভিডিওতে ২৩ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম বিজয়ী টেনিস তারকা সেরেনাকে গাইতে শোনা যাচ্ছে, ‘I love myself, I want you love me।’ ভিডিওটি  নিজের সোশ্যাল সাইটে শেয়ার করেছেন সেরানা। তিনি লিখেছেন, ‘এই গানটির ভিডিওটা শুট করতে আমার অস্বস্তি হয়েছে, তবে সারা বিশ্বের নারীদের স্বার্থে আমি এটা করেছি। স্তন ক্যান্সার নিয়ে সকলকে সচেতন করাই আমার উদ্দেশ্য।’

ব্রেস্ট ক্যান্সার নেটওয়ার্ক অস্ট্রেলিয়ার তরফে এই ভিডিওটি তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়। ২০১৪ সালে প্রথম ব্রেস্ট ক্যান্সার নেটওয়ার্ক অস্ট্রেলিয়ার তরফে আই টাচ মাইসেলফ প্রকল্প নেওয়া হয়। তারপর থেকেই প্রত্যেক বছরই এই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। আই টাচ মাইসেলফ গানটি যিনি প্রথম গেয়েছিলেন সেই ক্রিসি অ্যাম্পলেট ২০১৩ সালে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তারপর থেকে তার এই গানকেই স্তন ক্যান্সার নিয়ে সচেতনতা প্রসারে ব্যবহার করা হয়ে আসছে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)