ব্রেকিং নিউজ
বাংলা

আপডেট মার্চ ১৪, ২০২০

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ চৈত্র, ১৪২৬ , বসন্তকাল, ৭ শাবান, ১৪৪১

নিসচা সংবাদ, লিড নিউজ সড়ক পরিবহন আইন শিথিল করায় দুর্ঘটনা বেড়েছে: ইলিয়াস কাঞ্চন

সড়ক পরিবহন আইন শিথিল করায় দুর্ঘটনা বেড়েছে: ইলিয়াস কাঞ্চন

নিরাপদ নিউজ : পরিবহন চালক বিশেষ করে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও পিকআপ চালকদের বেপরোয়া মনোভাব সাম্প্রতিক সময়ে সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ বলে উল্লেখ করেছেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) এর চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন। তিনি মনে করেন, পরিবহন চালকদের অন্যায্য দাবির মুখে নতুন সড়ক পরিবহন আইন শিথিল করায় চালকদের মধ্যে বেপরোয়া মনোভাব তৈরি হয়েছে। একই সঙ্গে লাইসেন্স ও গাড়ির ফিটনেসের ব্যাপারে তাদের ছাড় দেওয়ায় আগে সড়কে যত মামলা হতো, যত টাকা জরিমানা হয়েছে, নতুন আইন প্রয়োগ করার পরে মামলা ও জরিমানা কমে গেছে। এর ফলে সড়কে শৃঙ্খলা ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। এসব কারণে সড়ক দুর্ঘটনাও বেড়ে গেছে। শনিবার নিসচার প্রচার সম্পাদক এ কে এম ওবায়দুর রহমানের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

গণমাধ্যমে পাঠানো ওই বিজ্ঞপ্তিতে সাম্প্রতিক সময়ে সড়ক দুর্ঘটনার আরও কিছু কারণ তুলে ধরেন ইলিয়াস কাঞ্চন। তিনি বলেন, এ বছরের শুরু থেকে সড়ক দুর্ঘটনা যেহারে বৃদ্ধি পেয়েছে এতে আমি ও আমার সংগঠন খুবই উদ্বিগ্ন। দেশের মানুষও উদ্বিগ্ন। দুর্ঘটনা কেন হঠাৎ করে এতো বাড়লো সেটা অনুসন্ধান করতে গিয়ে গত জানুয়ারি থেকে ঘটা দুর্ঘটনাগুলো বিশ্লেষণ করে জানা গেছে, যেসব গাড়ি সড়কে দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে সেগুলোর মধ্যে ট্রাক, কাভার্ভভ্যান, পিকআপ ও ভাড়ায়চালিত মাইক্রোবাস বেশি। ইদানীং মোটরসাইকেল দুর্ঘটনাও আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে। সড়ককে দুর্ঘটনামুক্ত করতে জনপ্রতিনিধিদের বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ এবং এক্ষেত্রে রাজনৈতিক অঙ্গীকারের প্রতি জোর দিয়ে কিছু সুপারিশও তুলে ধরেন তিনি।

 

সাম্প্রতিক দুর্ঘটনার বিষয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সড়কে মোটরসাইকেলের সংখ্যা দিন দিন ব্যাপকহারে বাড়ছে। চালকদের যথাযথ পরীক্ষার মাধ্যমে লাইসেন্স দেওয়া হচ্ছে কিনা, তারা ঠিকমতো ড্রাইভিং শিখছে কিনা এসব বিষয় উপেক্ষিত থাকছে। এর ফলে বেপরোয়াভাবে মোটরসাইকেল চলছে সড়কে। প্রত্যেক দিন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দেশে গড়ে ৬ থেকে ৭ জন মারা যাচ্ছে। পাশাপাশি ভাড়ায়চালিত মাইক্রোবাস দুর্ঘটনাও বেড়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, চালকরা বিশ্রাম ছাড়াই দিন-রাত গাড়ি চালানোর কারণে দুর্ঘটনা বাড়ছে। অনেক সময় অতিরিক্ত টাকার আশায় নির্ঘুম অবস্থায় গাড়ি চালাতে হয় চালকদের। প্রায় দেখা যায়, একজন চালক সারা রাত গাড়ি চালানোর পর সকালে আরেকটি ভাড়া পেলে মালিক তাকে বকশিশের লোভে ফের গাড়ি চালাতে বাধ্য করে। সম্প্রতি সিলেটে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে যে মাইক্রোবাসটি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে সেই ঘটনাটি ঘটেছে রাত আড়াইটায়। পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়ায় চালক মাইক্রোবাসটির নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে পারেনি। ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার আরেকটি কারণ পথচারী। তারা সড়কে অত্যন্ত বেখেয়াল। নিজেদের জীবন বাঁচানোর কোনো সচেতনতা তাদের মধ্যে নেই। তাদের মধ্যে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য যে ধরনের উদ্যোগ নেওয়া দরকার সে বিষয়ে যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে। এছাড়া সড়কে নতুন এক উপদ্রব যুক্ত হয়েছে, সেটি হচ্ছে ট্রাক্টর ও ট্রলি। কৃষিকাজে ব্যবহৃত এসব উপকরণ ইদানীং সড়কে অন্যান্য যানবাহনের সঙ্গে চলছে এবং দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে।

 

তিনি বলেন, সড়কে গণপরিহন চলাচলে নজরদারি নেই সরকারের। বিআরটিএর লাইসেন্স ও ফিটনেস দেওয়ার বিষয়টিতে নেই স্বচ্ছতা। এক মাসে আড়াই লাখ গাড়ির ফিটনেস দিয়েছে বিআরটিএ। কীভাবে এত অল্প সময়ে এত বেশি গাড়ির ফিটনেস সনদ দেওয়া যায় সে বিষয়ে সরকারের এ সংস্থাটির কাছে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘জানতে চাই, কী পদ্ধতিতে ফিটনেস সনদ দেওয়া হয়েছে। এটি কি সম্ভব?’ তিনি বলেন, ‘তার মানে আনফিট গাড়ি ফিট হিসেবে রাস্তায় চলছে। পাশাপাশি কিছু দুর্ঘটনা ঘটছে অবৈধ তিন চাকার গাড়ি যেমন নসিমন, করিমন, সিএনজি ও ব্যাটারিচালিত যানবাহনের কারণে। মহাসড়কে এই গাড়িগুলো বন্ধের জন্য দীর্ঘ সময় ধরে আমরা বলে আসছি। আমরা দাবি জানিয়েছি- হয় এসব গাড়ি বন্ধ করতে হবে নতুবা এসব যানবাহনের জন্য আলাদা লেন করে দিতে হবে। দ্রুতগতির গাড়ির সঙ্গে কোনোভাবেই এসব যানবাহন চলতে দেওয়া যাবে না। অথচ এসব যানবাহন নির্বিঘ্নে দ্রুতগামী গাড়ির সঙ্গে একই লেনে চলছে এবং সড়কে দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে।’

 

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘আমি মনে করি, সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যারা কাজ করে যেমন বিআরটিএ ও ট্রাফিক পুলিশ তাদের মধ্যেও অজ্ঞতা আছে। তাদের দক্ষতা, জানা ও আন্তরিকতার ঘাটতি আছে। তাদের মধ্যে দুর্নীতি আছে। পরিবহন সেক্টরে নের্তৃত্ব দেওয়া চালক ও মালিকরা নিজেদের স্বার্থ ছাড়া জনগণ ও দেশের মানুষের কথা ভাবে না। তাদের এ জায়গা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। তা না হলে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা কখনো কমানো সম্ভব হবে না। সড়ক দুর্ঘটনা যদি না কমে তাহলে এবারের সুইডেনে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণের যে আলোচনা এবং জাতিসংঘের যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা তা বাংলাদেশের পক্ষে অর্জন করা সম্ভব নয়।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য যারা দেশকে নের্তৃত্ব দিচ্ছেন সড়ককে দুর্ঘটনামুক্ত করতে তাদের রাজনৈতিক অঙ্গীকার অবশ্যই থাকতে হবে। এ বিষয়ে অঙ্গীকার আমরা বহু শুনেছি, শুনতে শুনতে ক্লান্ত হয়ে গেছি। এবার সত্যিকারের অঙ্গীকার দেখতে চাই। এবার সত্যিকারের দরদী হতে হবে, শূধু মুখে দরদ দেখালে চলবে না। কার্যক্ষেত্রে প্রমাণ দিতে হবে। এভাবে সকলে মিলে যদি কাজ করি তাহলে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হবে এবং নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর হবে। এছাড়া সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়।’

 

তিনি বলেন, মোটরসাইকেল, সাইকেল থেকে শুরু করে যত ধরনের যানবাহন সড়কে চলে সকল চালকদের প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্রশিক্ষণের আওতায় আনতে হবে। এ সেক্টরে সরকারকে বরাদ্দ দিতে হবে। মানুষের জীবন বাঁচাতে, জাতিসংঘের এসডিজি লক্ষ্য অর্জনে এ খাতে বাজেট প্রণয়ন করতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে যে সংস্থাগুলো কাজ করে যেমন বিআরটিএ, ট্রাফিক পুলিশ তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে।

 

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে জনসচেতনতা বাড়ানোর জন্য প্রত্যেক এলাকার ইউপি সদস্য, চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, উপজেলা চেয়ারম্যান, সংসদ সদস্যদের উদ্যোগ নেওয়া দরকার। রাষ্ট্রের জন্য, অর্থনীতির জন্য এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দুঃখজনক হলো, তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে উপলব্ধিই তৈরি হয়নি যে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে তাদের কাজ করার আছে। মানুষের জীবন বাঁচানোর জন্য তাদের উদ্যোগ নেওয়ার দরকার আছে। এটা তাদের এক ধরনের অজ্ঞতা, উদাসীনতা।

 

তিনি বলেন, এ বছর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসের স্লোগান ছিল ‘জীবনের আগে জীবিকা নয়, সড়ক দুর্ঘটনা আর নয়’ এই স্লোগানটা আসলে কাগজে-কলমে, বাস্তবে এর কার্যক্রম নেই। ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘নেতারা একটা কথা বলেন, সড়কে লাইসেন্সবিহীন চালক, ফিটনেসবিহীন গাড়ি, অবৈধ নসিমন করিমন চালক এবং ফুটপাত দখলকারীদের পেটে লাথি মারলে তারা কী খাবে?’ এ প্রশ্নের পিঠে তিনি প্রশ্ন রাখেন- তাদের বাঁচাতে অন্য লোকদের মেরে ফেলতে হবে এমন নিয়ম পৃথিবীর কোথায় আছে?

তাদের না আছে কোনো প্রশিক্ষণ, না আছে গাড়ির ফিটনেস। অবৈধভাবে গাড়ি চালাচ্ছে। রাজনৈতিক ছত্রচ্ছায়ায় হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ অবৈধ গাড়ি রাস্তায় চলছে এবং প্রতিদিন দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে।

 

তিনি বলেন, সাধারণ মানুষ বিশেষ করে পথচারীদের রাস্তায় চলাচলের নিয়ম শেখার, জানার ও মানার বিষয় আছে। নতুন আইনে পথচারীদের চলাচলের নিয়ম বলা আছে, সেটা কঠোরভাবে প্রয়োগ করতে হবে। শুধু মুখে বলে পথচারীদের সাবধান করা সম্ভব নয়।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)