আপডেট নভেম্বর ১৮, ২০১৯

ঢাকা বুধবার, ২৭ মে, ২০২০, ১৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ , গ্রীষ্মকাল, ৩ শাওয়াল, ১৪৪১

ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে হলে আমাদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিতে হবে: ইলিয়াস কাঞ্চন

রকিবুল ইসলাম সোহাগ

নিরাপদ নিউজ

নিরাপদ নিউজ : নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা ইলিয়াস কাঞ্চন বলেছেন, ‘ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে হলে আমাদের এই বিষয়ে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিতে হবে।’ সোমবার রাজধানীর আসাদ অ‌্যাভিনিউয়ে গ্রিন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এর সামনের ডিজিটাল পুশ বাটনের সামনে ট্রাফিক সচেতনতা কার্যক্রমে এসে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি গাড়ি চালক এবং পথচারীদের বিভিন্ন ট্রাফিক নির্দেশনা দেন এবং আইন মানতে উদ্বুদ্ধ করেন।  সড়কের বিভিন্ন নিয়মকানুন তুলে ধরেন।

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে হলে আমাদের এই বিষয়ে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিতে হবে। একসময় আমাদের দেশে সিনেমার জন্য কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল না। যখন এর উন্নতি হচ্ছে তখন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে এই বিষয়ে কোর্স চালু করেছে। আমাদের দেশে এখন ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা চালু করতে হবে। তিনি বলেন, রাস্তায় শুধু ট্রাফিক থাকলে হবে না। ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার জন্য ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ার থাকতে হবে। তাহলে সুস্থ ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা হবে। সুষ্ঠু ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ব্যাপকভাবে সচেতনতা বাড়াতে হবে। শিক্ষার্থী এবং তার অভিভাবকদের সচেতন করতে হবে তা না হলে ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট হবে না। ট্রাফিক সচেতনতা কার্যক্রম চলাকালে ইলিয়াস কাঞ্চন সড়কে চলাচলরত রিক্সা চালক,এবং শিক্ষার্থীদের সড়কের ট্রাফিক সিগন্যাল সম্পর্কে জিজ্ঞাস করেন লাল বাতির কাজ কি সবুজ বাতির কাজ কি। এসময় অনেকে এর কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেননি। অনেকে বলেন ট্রাফিক পুলিশ হাত উঠালে থামতে হয়,তারা লাল বাতি জ্বলা বা সেদিকে লক্ষ্য রাখার প্রয়োজন মনেও করেন না।

রাজধানীর আসাদ এভিনিউয়ে গ্রীন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এর সামনে ডিএনসিসি কতৃক স্থাপিত ডিজিটাল পুশ বাটন পর্যবেক্ষণ এবং পথচারীদের সড়ক পারাপারে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে রাস্তায় নেমেছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম এবং ‘নিরাপদ সড়ক চাই’-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। সঙ্গে আরও ছিলেন স্থানীয় কমিশনারসহ সিটি কর্পোরেশন, পুলিশ ও নিরাপদ সড়ক চাই এর সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম আজাদ হোসেনসহ স্থানিয় গণ্যমান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। এ সময় ট্রাফিক আইন বাস্তবায়নে নাগরিকদের সহায়তা করতে ও এ সম্পর্কে সচেতনতা তৈরী তারা নিজেই বাশি ফুঁকে প্রায় ২ ঘন্টা ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে কাজ করেন। সিগনালের ফাঁকে ফাঁকে বাস ট্রাক, রিক্সা, প্রাইভেটকার চালকসহ স্থানীয় নাগরিকদের পুশ বাটন কেনো চাপবেন ও কেনো সবুজ বাতি লাল বাতি জ্বলে থামতে হবে এবং কখন গাড়ি ছাড়তে হবে তার নিয়মাবলী অবগত করেন। এ সময় দোকানপাঠ, ছাত্রছাত্রী অভিভাবকদের কাছে ট্রাফিত আইন মানতে ও সরকারের সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ সম্পর্কিত নানা লিফলেট বিতরণ করেন।

‘সড়ক আইন শুধু রাজস্ব আদায়ের জন্য নয়’

মন্তব্য করুন

Please Login to comment
avatar
  Subscribe  
Notify of