ব্রেকিং নিউজ

আপডেট ২৯ মিনিট ৪০ সেকেন্ড

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১, ২৩ বৈশাখ, ১৪২৮, গ্রীষ্মকাল, ২৩ রমজান, ১৪৪২

বিজ্ঞাপন

ভৈরব আইভি রহমান পৌর স্টেডিয়াম জোড়াতালি দিয়ে উদ্বোধন

রকিবুল ইসলাম সোহাগ

নিরাপদ নিউজ

মোঃ আলাল উদ্দিন,নিরাপদনিউজ: ভৈরব প্রতিনিধি। সংস্কারের এক বছরের অধিক সময় পর গত ২৮ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার সকালে ভৈরব শহীদ আইভি রহমান পৌর স্টেডিয়াম উদ্বোধন করা হয়েছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি ও স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে স্টেডিয়াম উদ্বোধন করেন। এ সময় প্রধান অতিথির সঙ্গে অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ বিজয়ী দলের অধিনায়ক আকবর আলীসহ ছয়জন ক্রিকেটার উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনের আগেই গ্যালারি স্থানে স্থানে ভেঙে পড়া এবং অন্য অবকাঠামো থেকে পলেস্তারা খসে পড়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ব্যবহারের আগেই পলেস্তারা খসে পড়ায় কাজের মান নিয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। একই সঙ্গে গ্যালারির স্থায়িত্ব নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে। মো. গিয়াস উদ্দিন স্টেডিয়ামের তত্ত্বাবধায়ক। তার ভাষ্য, ‘ধরি নাই, ছুঁই নাই, কিন্তু গ্যালারির কোনা কানছি ভাইঙ্গা যাইতাছে। রেলিং ভাইঙ্গা গেছে। খেলা হইলে আর হাজার হাজার লোকজন বইলে ভর লইতে পারব কি না, আল্লাহ জানে।’ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা জানায়, স্টেডিয়ামের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ হয় ১৯৭৮ সালে। ভূমির পরিমাণ ৬ দশমিক ৩৩ একর। সেই সময় স্টেডিয়ামটির নাম ছিল ভৈরব উপজেলা স্টেডিয়াম। তখন সীমনা প্রাচীর, ফটক ও ছোট একটি পাকা অফিস কক্ষ ছাড়া গ্যালারি এবং অন্য সুবিধা ছিল না। দীর্ঘদিন সংস্কারের অভাবে অনেক স্থানে প্রাচীর ধসে পড়ে। কোথাও প্রাচীর টিকে থাকলেও নিচ থেকে মাটি সরে যায়। ফলে স্টেডিয়ামটি অরক্ষিত হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ স্টেডিয়ামটি পুনর্নির্মাণে উদ্যোগী হয়। ২০১৭ সালের শুরুর দিকে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ নিয়ন্ত্রণে ৮ কোটি ৬৯ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণকাজ শুরু হয়। তবে নির্মাণকাজ শুরুর সময় স্টেডিয়ামের নাম পরিবর্তন করা হয়। নতুন নামকরণ হয় নারীনেত্রী আইভি রহমানের নামে। কাজটির ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ছিল মেসার্স ভূঁইয়া অ্যান্ড ভূঁইয়া ডেভেলপার ও মেসার্স খলিলুর রহমান। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নির্মাণের ৭০ ভাগ কাজ শেষ হয়ে যায়। তখন নি¤œমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে। তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিলরুবা আহমেদ পরিদর্শনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পান। তখন কাজ স্থগিত করে দেওয়া হয়। দুই সপ্তাহ পর ফের কাজ শুরু হয়। উদ্বোধন উপলক্ষে গ্যালারির পরিচ্ছন্নতার কাজ করা হয়। বিসিবির গ্রাউন্ডস বিভাগের আবদুল্লাহ আল মামুনের নেতৃত্বে পিচ প্রস্তুত করা হয়। গ্যালারির স্থানে স্থানে ভাঙা। উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে সিমেন্ট দিয়ে ভাঙা স্থান মেরামতসহ রং করা হয়। ভৈরব পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আতিক আহমেদ সৌরভ এ কাজের নেতৃত্ব দেন। হয়ে যাওয়া কাজের মান নিয়ে মোটেও খুশি নন তিনি। আতিক আহমেদ সৌরভ বলেন, যখন কাজটি হয়, তখন ভৈরবে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার কমিটি সক্রিয় ছিল না। এ কারণে কাজের গুণগত মান তদারকি করা যায়নি। বিধান হলো, নির্মাণের এক বছরের মধ্যে সমস্যা পাওয়া গেলে তা ঠিকাঠাদারী প্রতিষ্ঠান মেরামত করে দেবে। কিন্তু এখানে তা হচ্ছে না। কারণ কাজ শেষ করার পর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পুরো টাকা তুলে নিয়ে গেছে। এখন ভাঙা জায়গাসহ অন্য কাজগুলো ক্রীড়া সংস্থার টাকায় করতে হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x