ব্রেকিং নিউজ

আপডেট মার্চ ১২, ২০২০

ঢাকা শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ , গ্রীষ্মকাল, ৪ শাওয়াল, ১৪৪১

নড়াইলে মানহানির মামলায় খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিন আদেশ প্রত্যাহার

রকিবুল ইসলাম সোহাগ

নিরাপদ নিউজ

নিরাপদ নিউজ : মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্কের কারণে মানহানির অভিযোগে নড়াইলে করা মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে দেওয়া স্থায়ী (নিয়মিত) জামিন প্রত্যাহার করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে জামিন বিষয়ে জারি করা রুলের ওপর অবকাশের এক সপ্তাহ পর শুনানির জন্য দিন ধার্য করেছেন আদালত।

বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি এএসএম আব্দুল মোবিনের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল বৃহষ্পতিবার দুপুরের পর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে এ আদেশ দেন। এর আগে সকালে এক রায়ে খালেদা জিয়ার জামিন স্থায়ী করেন। আদালতে খালেদা জিয়ারপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিষ্টার কায়সার কামাল। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সামিরা তারান্নুম রাবেয়া।

গতকাল জামিন আদেশ প্রত্যাহারের পর ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সামিরা তারান্নুম রাবেয়া বলেন, জামিন বিষয়ে রুল যথাযথ ঘোষণা করে সকালে রায় দেন আদালত। আমরা দুপুরের পর আদালতকে বলি, এই মামলায় ২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত জামিনে আছেন। তাই রুলের ওপর আমরা বিস্তারিত শুনানি করতে চাই। তিনি বলেন, গতকাল শুনানির সময় আমাদের কাছে নথি ছিল না। আদালতকে বিষয়টি জানানোর পর আদালত আগের আদেশ রিকল (প্রত্যাহার) করেছেন। খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামালও হাইকোর্টের এ আদেশের তথ্য নিশ্চিত করেন।

উল্লেখ্য, আগামী ১৫ মার্চ থেকে সুপ্রিম কোর্টে অবকাশকালীন ছুটি শুরু হচ্ছে। আগামী ২৮ মার্চ পর্যন্ত এই ছুটি বহাল থাকবে। ২৯ মার্চ নিয়মিত আদালত বসবে। এর এক সপ্তাহ পর অর্থাৎ এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে এ রুলের ওপর শুনানি হতে পারে।

হাইকোর্ট এ মামলায় ২০১৮ সালের বছর ১৩ আগষ্ট এক আদেশে খালেদা জিয়াকে ৬ মাসের জামিন দেন ও কেন তাকে স্থায়ী (নিয়মিত) জামিন দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। এ জামিন স্থগিত করতে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করলেও আপিল বিভাগ তা বহাল রাখেন। পরবর্তীতে জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় হাইকোর্ট গতবছর ৫ ফেব্রুয়ারি এবং গত ২৮ জানুয়ারি দুই মেয়াদে জামিনের মেয়াদ একবছর করে বাড়িয়ে দেন। এ অবস্থায় রুলের ওপর শুনানি শেষে সকালে স্থায়ী জামিন দিয়ে রায় দেন হাইকোর্ট। তবে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে পুনরায় রুলের ওপর শুনানির আবেদন জানানো হলে আদালত আগের রায় প্রত্যাহার করেন। এ অবস্থায় আইনজীবীরা বলছেন, যেহেতু ২০২১ সালের ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত খালেদা জিয়ার জামিন বহাল আছে তাই হাইকোর্টের নতুন আদেশে এর ওপর কোনো প্রভাব পড়বে না। রুলের শুনানির পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত খালেদা জিয়ার জামিন বহালই থাকবে।

মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা নিয়ে ২০১৫ সালের ২১ ডিসেম্বর বিরুপ মন্তব্য করার অভিযোগে ওইবছরের ২৪ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নড়াইলে মানহানির মামলা করা হয়। স্থানীয় এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রায়হান ফারুকী ইমাম বাদি হয়ে মামলাটি করেন। ২০১৬ সালের ২৩ আগষ্ট খালেদা জিয়াকে সশরীরে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন আদালত। নির্ধারিত সময়ে খালেদা জিয়া আদালতে হাজির না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। এ মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন ২০১৮ সালের ৫ আগষ্ট খারিজ করেন নড়াইল আদালত। এরপর হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করা হলে আদালত ওইবছরের ১৩ আগষ্ট খালেদা জিয়াকে ৬ মাসের জামিন দেন ও রুল জারি করেন।

মন্তব্য করুন

Please Login to comment
avatar
  Subscribe  
Notify of