ব্রেকিং নিউজ

আপডেট ১২ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড

ঢাকা শুক্রবার, ৫ জুন, ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ , গ্রীষ্মকাল, ১২ শাওয়াল, ১৪৪১

সংবাদ প্রকাশের পর রাস্তায় ছিটানো হলো পানি, এলাকাজুড়ে স্বস্তি

রকিবুল ইসলাম সোহাগ

নিরাপদ নিউজ

গোলাম রব্বানী শিপন,নিরাপদ নিউজ: দিনের বেলা সূর্যের আলো থাকলেও “উন্নয়নের ধুলায় অন্ধকার মহাস্থান, দেখে চেনার উপায় নেই এটি মহাসড়ক নাকি গ্রামীণ সড়ক!” এমন শিরোনামে অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিরাপদ নিউজে  সংবাদ প্রকাশের কল্যাণে বগুড়ার ঐতিহাসিক মহাস্থানগড়ের ব্যস্ততম বাসষ্ট্যাণ্ড বন্দরে সড়ক ও জনপদ বিভাগ (সওজ) এর নজরে এলে রাস্তা উন্নয়নের কাজে ট্রাকে ট্যাংকি ভরে পানি দিয়ে বালু উড়ন্ত এলাকায় ছিটানো হলো পানি।

উল্লেখ্য, শুক্রবার, (৩এপ্রিল) সকাল ১০টায় মহাস্থান বাসষ্ট্যাণ্ড বন্দরে গিয়ে দেখা যায়, সড়ক উন্নয়ন করতে সড়কের কার্পেটিং তোলা হচ্ছে। এই কার্পেটিং তোলার কারণে রাস্তা খানাখন্দে পরিনত হয়েছে। বেড়েছে ধুলার খনি। এই ধুলার মধ্য দিয়ে মহাসড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। এতে চলাচলকারী যানবাহন ও যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে চরম বিপাকে। আবার অনেক যানবাহন বুলার কারণে হেডলাইট জ্বলে চলাচল করতে দেখা গেছে। মাঝে মাঝে এখানে যানবাহন আটকে পড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা এই প্রতিনিধিকে জানান, মহাস্থান বাসষ্ট্যাণ্ড এলাকায় মহাসড়কে বেশ কিছুদিন ধরে চলছে রাস্তার কাজ। কখনো রাস্তার দু’পাশে ড্রেনের মত খনন করা হয়। আবার কখনো রাস্তার মাঝখানে খননের কাজ চলছে। বন্দর এলাকায় পিচ কার্পেটিং বাদ দিয়ে দেয়া হয়েছে ইটের সলিং। যা বর্তমান সরকারের ব্যাপক উন্নয়নের রোল মডেল ইট সলিং কাম্য নয়।

বর্তমান দেশ করোনা ভাইরাস ঝুঁকিতে। সে সময় জনদূর্ভোগ সৃষ্টি করে মহাসড়কে ঠিকাদারেরা পানি না ছিটিয়ে রাস্তার কাজ করছে। এটা অমানবিক বলে স্থানীয় অনেকেই জানিয়েছেন। করোনা ভাইরাস জনিত কারণে সরকারের নির্দেশে মহাসড়কের আশপাশের দোকানপাট গুলো বন্ধ থাকলেও ধুলাবালিতে একাকার হয়ে গেছে দোকানের ছাউনি।

অনেক দোকানে ধুলাবালি পাউডারের মত প্রবেশ করছে। ফলে নষ্ট হচ্ছে দোকানে রক্ষিত পণ্যসামগ্রী। সড়কে যখন গাড়ি চলে ধুলায় এক পাশ থেকে অন্য পাশ পর্যন্ত দেখা যায় না। দূর্ভোগ চরমে নিঃশ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছে চালক, যাত্রীসহ শ্বাসকষ্ট রোগী ও স্থানীয় এলাকা বাসিন্দাদের। মহাসড়কে ধুলোবালির কারণে দূরপাল্লার যাত্রীদেরও অতিষ্ঠ করে তুলেছে।

উত্তরবঙ্গের মানুষের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই মহাসড়ক। তাই তড়িৎ সড়ক ও জনপদ বিভাগ (সওজ) এর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে রাস্তায় পানি ছিটিয়ে দ্রুত গতিতে কাজ শেষ করার জন্য এলাবাসীদের পক্ষে অনুরোধ জানানো হয়। বেশ কয়েক দিন হলো কাজ করতে দেখা গেলেও এলাকা ছিল ধুলায় অন্ধকার। কেউ পানি ছিটানোর জন্য ভ্রুক্ষেপ নেয়নি। আর এই সংবাদটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে আশে। পরে পানি ছিটিয়ে পরিবেশ স্বাভাবিক করা হয়। এঘটনায় এলাকাজুড়ে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

মন্তব্য করুন

Please Login to comment
avatar
  Subscribe  
Notify of