ব্রেকিং নিউজ

আপডেট ১২ মিনিট ২৯ সেকেন্ড

ঢাকা সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০, ২৯ আষাঢ়, ১৪২৭ , বর্ষাকাল, ২১ জিলকদ, ১৪৪১

ভৈরবে সড়কপথে পোষাক শিল্পকর্মীদের উপচেপড়া ভিড়, ঝুঁকি নিয়ে ট্রাকে করে ছুটছেন গন্তব্যে

রকিবুল ইসলাম সোহাগ

নিরাপদ নিউজ

মোঃ আলাল উদ্দিন,নিরাপদ নিউজ:  ভৈরবে সড়কপথে পোষাক শিল্পকর্মীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা দিয়েছে। পাশের জেলা ব্রাক্ষণবাড়িয়ার বিভিন্ন উপজেলাসহ কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলের বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা এইসব মানুষ পেটের তাগিদে ঢাকা, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, সাভারে যেতে বহুকষ্ট করে ভৈরবে এসেছেন। কিন্তু এখানে এসেও কোনো গণপরিবহণ না পাওয়ায় তারা পড়েছেন বিপাকে। তাই অনেকে বাধ্য হয়ে ট্রাকে, পিকাপে করে রওনা দিচ্ছেন গন্তব্যে। অনেকে আবার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ঘাপটি মেরে বসে আছেন, রাতের অন্ধকারে আইন শৃংখলা বাহিনীকে ফাঁকি দিয়ে যদি কোনো গণপরিবহণ যাত্রা করে, সেই আশায়। তারা জানান, পূর্বঘোষিত ছুটি শেষ হয়ে যাওয়ায় আগামীকাল রোববার থেকে তাদের গার্মেন্টস খোলা। তাই রাতের মধ্যে তাদেরকে যে করেই হোক যার যার কর্মস্থলের কাছের বাসস্থানে পৌঁছতে হবে। আর কালকে সকালে কর্মে যোগদান না করলে অনেকেরই চাকুরি চলে যাবে অথবা হাজিরা কাটা যাবে বলে জানালেন তারা। কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা অষ্টগ্রাম থেকে আসা গার্মেন্টসকর্মী শিউলি জানান, লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকলেও ট্রলার ও সিএনজি দিয়ে অনেক কষ্ট করে ভৈরবে এসেছেন। যাবেন কর্মস্থল গাজীপুর। সুপারভাইজার মোবাইলে ম্যাসেজ দিয়েছেন রোববার কাজে যোগ না দিলে চাকরী থাকবে না। এখন ভৈরবে এসে কোন যানবাহন না পেয়ে পড়েছেন বিপাকে। সারোয়ার হোসেন শিউলির চেয়ে ভাগ্যবান। তিনি আরও ২০/৩০ জনের সাথে একটি ট্রাকের যাত্রী হতে পেরেছেন। তিনি যাবেন সাভারে। সেখানকার একটি পোষাক কারখানায় তিনি কাজ করেন। এসেছেন ব্রাক্ষণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা থেকে। ট্রাকটি দ্রুত স্থান ত্যাগ করায় তার সাথে কথা বলা হলো না। একই জেলার নবীনগর থেকে আসা আকবর মিয়া জানান, অনেক কষ্ট করে নৌকায় চড়ে ভৈরব এসেছেন। কিন্তু এখন যাবার মতো কোনো পরিবহণ পাচ্ছেন না। প্রথম দু’একটি ট্রাক যাত্রী নিয়ে যাত্রা করলেও, পুলিশী বাঁধায় এখন বন্ধ। কি করে যে যাবেন, ভেবে পাচ্ছেন না। তিনি সাভারের আশুলিয়া এলাকার একজন গার্মেন্টসকর্মী বলে জানালেন। একই এলাকার গার্মেন্টসকর্মী জাহানারা জানান, করোনার ভয়ের চেয়েও চাকুরি হারাবার ভয় তার কাছে বেশী। তাই বিপদ জেনেও বাড়ি থেকে বের হয়েছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার রাজাপুর থেকে নৌকায় করে এসেছেন ভৈরবে। এখান থেকে তাকে যে করেই গাজীপুরে পৌঁছতে হবে। কাল থেকে তার গার্মেন্টস খোলা।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x