ব্রেকিং নিউজ

আপডেট ১২ মিনিট ৩ সেকেন্ড

ঢাকা রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০, ২১ আষাঢ়, ১৪২৭ , বর্ষাকাল, ১৩ জিলক্বদ, ১৪৪১

করোনায় আধমরা চলচ্চিত্র শিল্প আরও ক্রান্তিলগ্নে: সোহানুর রহমান সোহান

রকিবুল ইসলাম সোহাগ

নিরাপদ নিউজ

যাযাবর পলাশ, নিরাপদ নিউজঃ গোটা পৃথিবী জুড়ে ভয়াবহ মহামারী আকার ধারণ করেছে করোনা ভাইরাস। যার প্রভাব বিস্তার করেছে বাংলাদেশেও। যার কারনে সাড়া দেশ এখন লকডাউন। থেমে গেছে প্রতিটি সেক্টরের মানুষ। এর ফলে প্রতিটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের ন্যায় চলচ্চিত্র শিল্পও থমকে দাঁড়িয়েছে। যদিও বা অনেক দিন ধরেই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে বাংলা চলচ্চিত্র। তবুও যেটুকু কাজ চলছিল সেটাও আজ এই ভয়ানক পরিস্থিতিতে একদম বন্ধ। সারাদেশের প্রতিটি সাধারণ মানুষের মতো এই শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত সকল মানুষগুলোও আজ পুরোপুরি গৃহবন্দী। সিনেমার চলমান কাজগুলো হুট করে এভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পরেছেন এই শিল্পের উপর নির্ভরশীন হাজার হাজার মানুষ। নিজের পরিবার নিয়ে অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটাচ্ছে অনেকেই। ক্যামেরাম্যান, মেকাপম্যান, প্রোডাকশন বয় থেকে শুরু করে চলচ্চিত্র নির্মাতা পর্যন্ত এই শিল্পের পিছনে খেটে খাওয়া প্রতিটি মানুষ আজ সরকারের মুখের দিকে তাকিয়ে। এই সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা সোহানুর রহমান সোহান।

প্রথমেই তিনি করোনা ভাইরাসের উপর আলোকপাত করে বললেন – বর্তমানে করোনা ভাইরাস যেভাবে ছড়াচ্ছে, তাতে করে এখন প্রত্যেকটা মানুষেরই আসলে বাংলাদেশ সরকার যেভাবে চাচ্ছেন বা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যেভাবে বলছেন ঠিক সেভাবেই নিয়ম মেনে চলা উচিত। আসলে মানুষ মানুষের কাছ থেকে নিরাপদ দুরত্ব বজায় রাখতে হবে। কারণ, এই ভাইরাসটি খুব বেশি ছোঁয়াচে। সেই কারনে অনেক বেশি সতর্কতা অবলম্বন করে চলতে হবে আমাদের। মিনিমাম ৬ ফিট দুরত্ব বজায় রেখে সবাইকে চলার কথা বলা হয়েছে। পারিবারিক ভাবে আমরাও সেই নিয়ম ফলো করে চলছি। পাশাপাশি গোটা দেশবাসীকে অনুরোধ করবো সবাই এই নিয়ম মেনে চলুন। কারন আসলে সবার নিজেদের স্বার্থেই এই নিয়মগুলো পালন করা উচিত। আপনার নিজের কেউ এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলে তো আপনারই অপূরনীয় ক্ষতি। এই ক্ষতিটা কিন্তু কেউ পুশিয়ে দিতে পারবে না, সরকারও না। তাই নিজেদের ভালো টা নিজেকেই বুঝতে হবে। কারণ, কার শরীরে ভাইরাস আছে সেটাতো খালি চোখে দেখা যায়না। যেমন আমরা ৯ মাস যুদ্ধ করেছি। তখন কিন্তু আমরা দেখেছি আমাদের শত্রু কে। আমরা শত্রুকে দেখে বা চিনেই কিন্তু যুদ্ধ করেছি। কিন্তু এখন আমরা আমাদের শত্রুকে দেখতেও পারছিনা চিনতেও পারছিনা। আসলে কোন দিক থেকে কাকে আক্রমণ করবে কেউ জানিনা। তাই সবাইকে রিকুয়েষ্ট করবো- অবশ্যই নিয়মগুলো ভালোভাবে মানা, সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, পা ধোয়া এবং বাইরে থেকে এলে ভালভাবে আগে গোছল করে নেয়া বা সকল সতর্কতা সঠিকভাবে মেনে চলতে পারলেই হয়তো আমরা আল্লাহর রহমতে এ যুদ্ধেও জয়লাভ করতে পারবো ইনশাআল্লাহ। এখন পর্যন্ত আমাদের দেশে এই ভাইরাস সেভাবে এ্যাটাক করেনি। যদি এখানেও আক্রান্ত শুরু হয়ে যায় বা সারা দেশের গ্রাম গঞ্জে ছড়িয়ে পরে তাহলে প্রতিদিন মিনিমাম ২-৫ হাজার মানুষ মারা যাবে। তাই এখনই আমাদের সতর্ক ও সাবধান হয়ে চলাটাই সবচেয়ে জরুরী। যারা এখনও বিষয়টি গুরুত্ব দেয়নি বা টিভি দেখেনা, রেডিও তে খবর শোনেনা, পেপার পড়েনা বা অনলাইনে খবর দেখেনা তাদের সবাইকে সতর্ক করতেই হবে। এবং মসজিদের ইমাম সাহেবরাও যদি নিজ নিজ দায়িত্ব থেকে সবাইকে সতর্ক করেন তাহলেই হয়তো আমরা এই সংকট কাটিয়ে উঠতে পারবো ইনশাআল্লাহ। বাংলাদেশ অলি আউলিয়ার দেশ। এদেশে ইনশাআল্লাহ কিছুই হবেনা।

করোনা সংকট চলচ্চিত্র শিল্পের উপর যে প্রভাব ফেলেছে সে বিষয়ে তিনি বলেন – আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পতো অনেকদিন ধরেই আধমরা হয়ে বেঁচে রয়েছে। সেখান থেকে উত্তরণের পথ আমরা খুঁজছি। বলা যায় একটা ক্রান্তিকাল পার করছি আমরা। এর থেকে পরিত্রাণের উপায় আমরা খুঁজছি। ইনশাআল্লাহ আগামীতে এ থেকে আমরা এই শিল্পকে উত্তরণ ঘটাতে পারবো। আমরা চেষ্টা করছি। তারপরও মোটামুটি টুকটাক কিছু কাজ চলছিল। তবে বর্তমান যে পরিস্থিতি তাতে শুধু চলচ্চিত্র শিল্প না টোটাল সব শিল্প, প্রতিষ্ঠান বা প্রত্যেকটা মানুষ তথা সবকিছু থেমে গেছে। আল্লাহ চাইলে আবার আমরা ঘুরে দাঁড়াবো। ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ। মাঝে শুধু এই বিপদের সময়টা আল্লাহ আমাদের ভালোভাবে পার করুন এই শুধু কামনা। দেশ যখন ঘুরে দাঁড়াবে তখন সকল শিল্পের মতো এই চলচ্চিত্র শিল্পও ঘুরে দাঁড়াবে ইনশাআল্লাহ।

এই শিল্পের পিছনে খেটে খাওয়া সিনেমার মানুষগুলোর বর্তমান অবস্থা নিয়ে তিনি জানালেন – চলমান এই পরিস্থিতিতে আমাদের সিনেমার পিছনে যারা কাজ করে সংসার চালান তারা খুব অসহায় অবস্থায় রয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ১৮ টি সংগঠন নিরলশ ভাবে কাজ করছে।আমাদের পরিচালক সমিতি এবং প্রযোজক সমিতির পক্ষ থেকে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আমাদের যারা অসচ্ছল টেকনিশিয়ান আছেন তাদের আমরা খোঁজ খবর নিচ্ছি। এছাড়াও যাদের ব্যক্তিগত ভাবে সামর্থ্য আছে তাদের সবাইকে এ ব্যাপারে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি। বিশেষ করে বাংলাদেশের মাননীয় সরকারের কাছে এই বিপদের দিনে আমাদের এই শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত সকলের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আকুল আবেদন জানাই। পাশাপাশি শিল্পী সমিতিকেও ধন্যবাদ দিতে হয়। তারাও এ ব্যাপারে বেশ এগিয়ে এসেছেন। পরিশেষে তিনি বলেন – মানুষ মানুষের জন্য। তাই সবাই একটু সাবধানে থাকলে এবং সবাই সবার পাশে থাকলে আমরা এই বিপদ কাটিয়ে উঠতে পারবো ইনশাআল্লাহ।

মন্তব্য করুন

Please Login to comment
avatar
  Subscribe  
Notify of