ব্রেকিং নিউজ

আপডেট ১ মিনিট ৬ সেকেন্ড

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৪ জুন, ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ , গ্রীষ্মকাল, ১১ শাওয়াল, ১৪৪১

মহাস্থান বাসষ্ট্যাণ্ড যাত্রী ছাউনি থেকে উদ্ধার হওয়া ব্যক্তি করোনা পজিটিভ

গোলাম রব্বানী শিপন,

নিরাপদ নিউজ

বগুড়ার মহাস্থান বাসষ্ট্যাণ্ড যাত্রী ছাউনি থেকে করোনা সন্দেহে উদ্ধার হওয়া সেই ব্যক্তির নমুনা পরিক্ষায় অবশেষে তার করোনা পজিটিভ মিলেছে। প্রথমে ওই ব্যক্তিকে পরিচয় বিহীন অচেতন অবস্থায় গত সোমবার (১৮মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় উদ্ধার করে বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের একটি টিম। স্থানীয়রা জানায়, সোমবার (১৮মে) অচেতন হয়ে ভোর থেকেই ঐতিহাসিক মহাস্থানগড়ের বাসষ্ট্যাণ্ড যাত্রী ছাউনির নিচে পরিত্যক্ত অবস্থায় শুয়ে পড়ে থাকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি। স্থানীয় লোকজন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ভেবে দূর থেকে ভীড় করতে থাকে। এরপর এলাকাবাসী পরিত্যক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে শিবগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ এসে বাসষ্ট্যাণ্ড এলাকার যাত্রী ছাউনি ঘিরে লকডাউন করে রাখে। এরপর খবর দেওয়া হয় বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল। তাৎক্ষণিক ছুটে আসেন, মোহাম্মাদ আলী হাসপাতালের ডাক্তার আরএমও শফিক আমিন কাজল ও এ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার’সহ ওয়ার্ডবয় আনিছুর রহমান ও শহিদুল ইসলাম। তারা ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে এ্যাম্বুলেন্স করে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেয়। হাসপাতালে অচেতনাবস্থায় চিকিৎসা হলেও তার কোন পরিচয় মেলেনা। পরে ওই ব্যক্তির কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া একটি ব্যাগে পাওয়া যায় জাতীয় স্মার্ট কার্ডের রশিদ পত্রের নাম্বার। সেটি সার্চ দিলে চলে আসে তার জাতীয় পরিচয় পত্র। ওই পরিচয় পত্রের সূত্র ধরে তার বাড়ীর সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানা যায়, তার নাম সিরাজুল ইসলাম। পিতা আব্দুল বারী। বাড়ী রংপুর জেলার শঠিবাড়ী এলাকায়। সিরাজুলের ভাই জানান, অসুস্থ্য সিরাজুল ইসলাম প্রায় ৭/৮ মাস আগে স্ত্রীর সঙ্গে বিবাদ করে মনের ক্ষোভে চট্রগ্রামে চলে যায়। সেখানে রিকশা ভাড়ায় চালিয়ে প্রতিদিন টাকা গচ্ছিত করে নিজেই একটা রিকশা কেনেন। এদিকে ৭/৮ মাস হয়ে গেল সিরাজুল বাড়ীতে আসে না। অন্যদিকে করোনার প্রভাব। ফোন করে তার ছোট ভাই এর কাছে। বাড়ীর অশান্তি মাথায় নিয়ে চট্রগ্রামে এসে রিকশা কিনে ভালভাবেই দিন পার করছেন। কিন্তু করোনার জন্য কোথাও বের হতে পারছে না। সিরাজুলের সাথে কথা বলে দেশের এই পরিস্থিতিতে তার ভাই বাড়ীতে আসতে বলেন। এবং তার শরীর কিছুটা অসুস্থ্য বলেও জানায় সিরাজুল। ছোট ভাইয়ের কথা মত সিরাজুল তার বহনকৃত রিকশা ২০হাজার টাকা বিক্রি করে। সিরাজুল তার ভাইয়ের সাথে কথা বলে রোববার দিনগত রাতে চট্রগ্রাম থেকে নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে ট্রাকে উঠে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়ে। এরপর থেকে সিরাজুলের সাথে তার ভাইয়ের আর কোন যোগাযোগ হয় না। এবং হদিস নেই তার কাছে থাকা ২০হাজারের অধিক পরিমাণ টাকার। তাদের ধারণা অজ্ঞানপার্টির সদস্যরা সর্বস্ব লুটিয়ে নিয়ে বগুড়ার ঐতিহাসিক মহাস্থানে ফেলে যায়। প্রথমে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের চিকিৎসকেরা সিরাজুলের শারীরিক অবস্থা দেখে ধারনা করেন তাকে অচেতনাশক জাতীয় কোন পদার্থ খাওয়ানো হয়েছে। আজ (২০মে) তার করোনা ভাইরাস পরিক্ষায় পজিটিভ ধরাপড়ে। রাত সাড়ে ৯টায় মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ আরএমও শফিক আমিন কাজল বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এদিকে মহাস্থান বাসষ্ট্যাণ্ডে উদ্ধার হওয়া ব্যক্তি করোনা পজিটিভ কথাটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়ে পড়ে। পুলিশ আশাপাশের দোকান গুলো লকডাউন করেছে।

মন্তব্য করুন

Please Login to comment
avatar
  Subscribe  
Notify of