ব্রেকিং নিউজ

আপডেট মে ২১, ২০২০

ঢাকা শনিবার, ৬ জুন, ২০২০, ২৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ , গ্রীষ্মকাল, ১৩ শাওয়াল, ১৪৪১

আম্ফানের তাণ্ডবে পশ্চিমবঙ্গে ৭২ জনের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

নিরাপদ নিউজ

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ৭২ জন মারা গেছেন সুপার সাইক্লোন আম্ফানের দাপটে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে এ তথ্য জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।রাজ্য সরকারের সদর দপ্তর নবান্নতে বৃহস্পতিবার মমতা এক রিভিউ মিটিং করেন যেখান ক্ষয়ক্ষতির প্রাথমিক পর্যালাচনা হয়। সেই বৈঠকের সময় তিনি জানান, আম্ফানের তাণ্ডবে কলকাতাতেই মারা গেছেন অন্তত ১৫ জন। হাওড়ায় ৭ জন, উত্তর ২৪ পরগনায় ১৭ জন। আরো নানা জেলা থেকে এসেছে মৃত্যুর খবর। যারা মারা গেছেন প্রত্যেকের পরিবারকে আড়াই লক্ষ টাকা করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন মুখ্যমন্ত্রী।

করোনা নিয়ে এমনিতেই নাজেহাল পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং তার মাঝে আম্ফানের তাণ্ডবের ঘটনায় রাতে ঘুম নেই মমতার। পরিস্তিতির মোকাবিলা করতে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারের উপর মমতাকে নির্ভর করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে বলব একবার ভিজিট করে যান, দেখে যান কী ভহবয়তা গেছে।

যদিও সুপার সাইক্লোন নিয়ে আজ টুইট করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং এই বিলম্ব নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে গুঞ্জন। তবে মমতা সেই বিষয়ে কিছু বলেননি। বরং ইঙ্গিত দিয়েছেন উনি কেন্দ্রের সাথে হাত মিলিৎে কাজ করতে চান।

মমতা আরো জানান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তাকে ফোন করেছিলেন। ক্ষতিপূরণের তালিকা তিনি জানাবেন কেন্দ্রকে। তার পরে দেখা যাক কত কী দেয় কেন্দ্র।

নবান্নের সভাঘরে চলা ওই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানান, সুপার সাইক্লোনের প্রকোপে তার মনে হচ্ছিল ভূমিকম্প হচ্ছে। তার কথায়, কী ভয়ঙ্কর সময় গেছে, আমি তো আমার ঘরেই ঢুকতে পারছিলাম না।

আজ বৈঠকে সাত দিনের মধ্যে সার্ভে করে ক্ষয়ক্ষতির রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। কোন এলাকায় কী সমস্যা, তা জানতে ছোট ছোট হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ তৈরি করার পরামর্শ দেন তিনি।

পাশাপাশি আলাদা করে নির্দেশ দেন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় পানীয় জল সরবরাহের। দুই ২৪ পরগনা, কলকাতা ও নদিয়ায় সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান মমতা।

কলকাতায় বিদ্যুৎ এবং টেলি যোগাযোগ ব্যবস্থা দ্রত ঠিক করার নির্দেশ দেন মমতা। রাস্তায় পরে থাকা গাছ সরিয়ে শহর কলকাতার অবস্থা স্বাভাবিক করার কথাও বলেন উনি।

মন্তব্য করুন

Please Login to comment
avatar
  Subscribe  
Notify of