ব্রেকিং নিউজ

আপডেট জুলাই ৪, ২০২০

ঢাকা মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০২০, ২০ শ্রাবণ, ১৪২৭, বর্ষাকাল, ১৩ জিলহজ, ১৪৪১

বিজ্ঞাপন

করোনা: ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২ লাখ ছাড়ালো, মোট আক্রান্ত ১ কোটি ১১ লাখ ৯১ হাজার ৮১০ জন

এস এম আজাদ হোসেন

নিরাপদ নিউজ

আজ শনিবার (৪ জুলাই) বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টা পর্যন্ত বিশ্বখ্যাত জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি ১১ লাখ ৯১ হাজার ৮১০ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২ লাখ ৬ হাজার ১৫৪ জন। নতুন করে প্রাণ গেছে ৫ হাজার ৩৯ জনের। এ নিয়ে করোনারায় মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ৫ লাখ ২৯ হাজার ১২৭ জন মানুষ। আর ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬৩ লাখ ৩০ হাজার ৮১৬ জন।গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ্য হয়েছেন ০১ লাখ ৮৯ হাজার ৯৮৯ জন।বিশ্বে বর্তমানে মধ্যম মানের আক্রান্ত ৪২ লাখ ৭৩ হাজার ৩১ জন এবং গুরুতর অসুস্থ্য ৫৮ হাজার ৮৩৬ জন। যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বিশ্বে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ২৮ লাখ ৯০ হাজার ৫৮৮ জন।সবচেয়ে বেশি মৃত্যুও হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে ১ লাখ ৩২ হাজার ১০১ জন। আক্রান্তের মতো সুস্থ হওয়ার দিক থেকেও সবার শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এ পর্যন্ত অন্তত ১২ লাখ ৩৫ হাজার ৪৮৮ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন। আক্রান্তের ও মৃতের সংখ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের পরেই উঠে এসেছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৪৩ হাজার ৩৪১ জন আর আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬৩ হাজার ২৫৪ জন। এখন পর্যন্ত ব্রাজিলে ৯ লাখ ৭৮ হাজার ৬১৫ জন সুস্থ হয়েছেন। আক্রান্তে তৃতীয় অবস্থানে রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৬ লাখ ৬৭ হাজার ৮৮৩ জন। আর মারা গেছেন ০৯ হাজার ৮৫৯ জন।অপরদিকে সুস্থ হয়েছেন ৪ লাখ ৩৭ হাজার ৮৯৩ জন। প্রতিবেশী দেশ ভারত আক্রান্তের সংখ্যায় উঠে এসেছে ৪ নম্বরে। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লাখ ৪৯ হাজার ৮৮৯ জন, আর এখন পর্যন্ত মৃত্যু ১৮ হাজার ৬৬৯ জনের।ভারতে সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৯৪ হাজার ৩১৯ জন। স্পেনে আক্রান্ত ২ লাখ ৯৭ হাজার ৬২৫ জন, মৃত্যু ২৮ হাজার ৩৮৫ জন আর সেরে উঠেছে ১ লাখ ৯৬ হাজার ৯৫৮ জন। পেরুতে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৯৫ হাজার ৫৯৯ জন, মোট মৃত্যু ১০ হাজার ২২৬ জন আর সুস্থ্য হয়েছেন ১ লাখ ৮৫ হাজার ৮৫২ জন। চিলিতে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৮৮ হাজার ৮৯ জন।মোট মৃত্যু ৬ হাজার ৫১ জনের এবং সুস্থ্য হয়েছেন ২ লাখ ৫৩ হাজার ৩৪৩ জন। এর পরের অবস্থানে যুক্তরাজ্য, এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৮৪ হাজার ২৭৬ জন। মৃতের সংখ্যায় তৃতীয় দেশটিতে মারা গেছেন ৪৪ হাজার ১৩১ জন। মেক্সিকোতে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৪৫ হাজার ২৫১ জন।মোট মৃত্যু ২৯ হাজার ৮৪৩ জনের এবং সুস্থ্য হয়েছেন ১ লাখ ৪৭ হাজার ২০৫ জন। ইতালিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৪১ হাজার ১৮৪ জন।দেশটিতে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৩৪ হাজার ৮৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।আর ইতিমধ্যে ইতালিতে সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৯১ হাজার ৪৬৭ জন। ইরানে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৩৫ হাজার ৪২৯ জন।মোট মৃত্যু ১১ হাজার ২৬০ জনের এবং সুস্থ্য হয়েছেন ১ লাখ ৯৬ হাজার ৪৪৬ জন। পাকিস্তানে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ২১ হাজার ৮৯৬ জন।মোট মৃত্যু ৪ হাজার ৫৫১ জনের এবং সুস্থ্য হয়েছেন ০১ লাখ ১৩ হাজার ৬২৩ জন। তুরস্কে মোট আক্রান্ত ০২ লাখ ৩ হাজার ৪৫৬ জন।মোট মৃত্যু ৫ হাজার ১৮৬ জনের এবং সুস্থ্য হয়েছেন ১ লাখ ৭৮ হাজার ২৭৮ জন। সৌদিআরবে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ১ হাজার ৮০১ জন।মোট মৃত্যু ১ হাজার ৮০২ জনের এবং সুস্থ্য হয়েছেন ১ লাখ ৪০ হাজার ৬১৪ জন। জার্মানিতে মোট আক্রান্ত ১ লাখ ৯৭ হাজার ।মোট মৃত্যু ৯ হাজার ৭৩ জনের এবং সুস্থ্য হয়েছেন ১ লাখ ৮১ হাজার ৩০০ জন। সাউথ আফ্রিকায় মোট আক্রান্ত ১ লাখ ৭৭ হাজার ১২৪ জন। মারা গেছেন ২ হাজার ৯৫২ জন এবং সুস্থ্য হয়েছেন ৮৬ হাজার ২৯৮ জন। ফ্রান্সে মোট আক্রান্ত ১ লাখ ৬৬ হাজার ৯৬০ জন। মারা গেছেন ২৯ হাজার ৮৯৩ জন এবং সুস্থ্য হয়েছেন ৭৭ হাজার ৬০ জন। কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘন্টায় দেশে ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেছেন ১ হাজার ৯৬৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ১১৪ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩৯১ জন। শুক্রবার (৩ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে মিডিয়া বুলেটিনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত মহা-পরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা। তিনি জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৪ হাজার ৬৫০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো আট লাখ ১৭ হাজার ৩৪৭টি। নতুন নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও তিন হাজার ১১৪ জনের মধ্যে। ফলে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ৫৬ হাজার ৩৯১ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন আরও ৪২ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে এক হাজার ৯৬৮ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও এক হাজার ৬০৬ জন। এতে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৬৮ হাজার ৪৮ জনে। ব্রিফিংয়ের করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ দেন অধ্যাপক নাসিমা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, করোনা মোকাবিলায় তরল খাবার, কুসুম গরম পানি ও আদা চা পান করতে হবে। সম্ভব হলে মৌসুমী ফল খাওয়া ও ফুসফুসের ব্যায়াম করা। এ সময় ধূমপান ত্যাগ করতে হবে। কারণ, এটি ফুসফুসের কার্যকারিতা নষ্ট করে দেয়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আরও জানিয়েছে, করোনাভাইরাসের করোনা আক্রান্ত মায়ের দুধপানে শিশুর করোনা আক্রান্ত হওয়ার কোনো তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পায়নি। অর্থাৎ, শিশুকে দুধপান করানো যাবে। তবে, এই সময়ে গর্ভবতী মায়ের স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখার প্রতি বিশেষ আহ্বান জানানো হয়। চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা বাংলাদেশে প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। সেদিন তিনজনের শরীরে করোনা শনাক্তের কথা জানিয়েছিল আইইডিসিআর। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় প্রথম মৃত্যুর খবর আসে।

বিজ্ঞাপন
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x