আপডেট জুলাই ৭, ২০২০

ঢাকা সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০, ২৯ আষাঢ়, ১৪২৭ , বর্ষাকাল, ২১ জিলকদ, ১৪৪১

বগুড়ার সদরের ধলমোহিনী গ্রামে বিধবার ঘরের দেয়াল ভেঙ্গে প্রাচীর নির্মাণ

গোলাম রব্বানী শিপন

নিরাপদ নিউজ

বগুড়া সদরের নামুজা ইউনিয়নের ধলমোহিনী উত্তরপাড়া গ্রামে পূর্বশক্রতার জেরে জবরদখল করতে এক বিধবার ৩টি দেয়াল ঘর ভেঙে বাড়ি নির্মাণের চেষ্টা করছে প্রতিবেশী মোসলের পুত্র আবু বক্কর সিদ্দিক মাস্টার। মৃত বুলু প্রোং এর স্ত্রী জমেলা বেওয়া (৭০) এর শয়নকক্ষের পিছনে দেয়ালটি এমন ভাবে ভেঙ্গে বাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে যে ঘরটি সম্পূর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ। যেকোন মুহুর্তে ঘর ৩টি ভেঙ্গে প্রাণহানির ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকার সচেতন ব্যক্তিরা ধারনা করছেন। এদিকে একটি বাড়ির দেয়াল ভেঙ্গে বে-আইনীভাবে প্রাচীর নির্মাণ করতে গিয়ে দেয়ালটি হেলে ভেঙ্গে পড়ার আশঙ্কা দেখে তড়িঘড়ি করে বাঁশের খুটির হেলান দিয়ে লাপাট্রা মাস্টার আবু বক্কর সিদ্দিক। মঙ্গলবার (৭জুলাই) দুপুর ১২টায়, সরেজমিনে গিয়ে ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ধলমোহিনী গ্রামের মৃত বুলু প্রাং এর বিধবা স্ত্রী জমেলা বিবি (৭০) তার ছেলে ও ছেলের বউদের নিয়ে অতি কষ্টে ৩টি কাঁচা ঘর নির্মাণ করে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছেন। তারই প্রতিবেশী মোসলেম উদ্দিনের পুত্র আবু বক্কর সিদ্দিক মাষ্টার পূর্ব শক্রতার জের ধরে কাঁচা ৩টি শয়ন ঘরের উত্তরপাশে গোপনে সে রড সিমেন্টের প্রাচীর নির্মাণ শুরু করে। কৌশলে দেয়াল ঝড়ে প্রাচীর নির্মাণ করতে গেলে হঠাৎ ১টি ঘরের দেয়াল ভেঙ্গে গেলে বক্কর মাস্টারের খোলস ধড়াপড়ে। পড়ে ভুক্তভোগী পরিবার সাংবাদিক ও থানা পুলিশকে জানাতে চাইলে এবং ১টি ঘর সম্পুর্ণ ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম ও ২টি ঘরে ফাটল দেখে বক্কর মাষ্টার সু কৌশলে ঘর ৩টিতে বাঁশের খুটি দিয়ে আটকিয়ে লাপাট্রা হয়। বর্তমান ঘরগুলো বসবাস করার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বৃদ্ধা জমেলা ঘরে থাকতে না পেরে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। ভুক্তভোগী ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করে ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x