ব্রেকিং নিউজ

আপডেট জুলাই ৩০, ২০২০

ঢাকা শুক্রবার, ৭ আগস্ট, ২০২০, ২৩ শ্রাবণ, ১৪২৭, বর্ষাকাল, ১৬ জিলহজ, ১৪৪১

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামে পুলিশ কী করছে: উড়ালসড়কে ছিনতাই

সম্পাদকীয়

নিরাপদ নিউজ

চট্টগ্রামের উড়ালসড়কে অহরহ ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। ফেব্রুয়ারি থেকে গত প্রায় ছয় মাসে নগরের চারটি উড়ালসড়কে ৫০টির বেশি ছিনতাই হয়েছে। এসব ঘটনায় থানায় মামলা হয়নি বললেই চলে। উড়ালসড়কে দিনদুপুরে মোটরসাইকেল আরোহীদের কৌশলে থামিয়ে এসব ছিনতাইকর্ম চালানো হচ্ছে বলে সংবাদ প্রকাশিত হয়। দীর্ঘ সময় ধরে চলে আসা ছিনতাই চলতে পারছে কীভাবে? যদি পুলিশ উপযুক্ত ব্যবস্থা নিত, তাহলে উড়ালসড়কের মতো প্রকাশ্য চলাচলের স্থান এভাবে ছিনতাইকারীদের জন্য লোভনীয় হয়ে উঠত না।

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামের চারটি উড়ালসড়কেই কমবেশি ছিনতাই হচ্ছে। ভুক্তভোগীদের ফেসবুক স্ট্যাটাস এবং সরেজমিন অনুসন্ধানে ছিনতাইয়ের ধরন ও পুনরাবৃত্তি সম্পর্কে অনেক তথ্যই এসেছে। উড়ালসড়কে গাড়ি চলাচল কম থাকার সময়ে মোটরসাইকেল আরোহীদের কৌশলে পরাস্ত করে তঁাদের মোবাইল ফোন ও টাকাকড়ি কেড়ে নিয়ে চলে যাচ্ছে অপরাধীরা। তাদের বাহনও মোটরসাইকেল। উড়ালসড়কের কোনো সুবিধাজনক জায়গায় রাস্তার আড়াআড়ি রশি টানিয়ে মোটরসাইকেল আরোহীদের থামানো হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে আরোহীরা কাছে এলেই রশিতে টান দেওয়া হয়, সেই রশিতে বাধা খেয়ে আরোহীরা পড়ে গেলে সাহায্যের ছলে তঁাদের কাছে এসে ছুরি দেখিয়ে সব কেড়ে নেওয়া হয়। চট্টগ্রামের মোটরসাইকেল ব্যবহারকারীদের মধ্যে এ নিয়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

পুলিশ বলেছে, ঘটনার শিকার ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে তারা জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করার কাজ চালাচ্ছে। পাশাপাশি সাদাপোশাকে গোয়েন্দা পুলিশের টিম উড়ালসড়কে রাখা হয়েছে। কিন্তু ঘটনা যেহেতু ঘটেই চলেছে, সেহেতু আতঙ্কিত না হওয়ার জন্য পুলিশের আশ্বাস কাজে আসছে না। পুলিশ এবং ভুক্তভোগীদের ভাষ্যমতে, উঠতি বয়সের তরুণেরা উড়ালসড়কে ছবি তোলার নাম করে কিংবা দল বেঁধে বেড়ানোর ভান করে নির্জন সময়ে ছিনতাই চালান। উড়ালসড়কে তো সিসিটিভি থাকার কথা। এ ছাড়া পুলিশের অজস্র উপায় রয়েছে অপরাধীদের চিহ্নিত করার। কেবল চট্টগ্রামই নয়, ঢাকার উড়ালসড়ক, হাতিরঝিলের সড়কও রাতের বেলা অনিরাপদ হয়ে যায়। এসব জায়গা থেকেও কমবেশি ছিনতাইয়ের খবর আসে।

ঈদে বাসস্ট্যান্ড ও লঞ্চ টার্মিনালে মোবাইল ছিনতাই ও চুরির ঘটনা বাড়ে। এসব দিকেও নজর রাখার জন্য পুলিশের দিক থেকে তৎপরতা বাড়ানো দরকার। মনে রাখতে হবে, বারবার অপরাধ করে ধরা না পড়ার মধ্য দিয়ে অল্পবয়সীরা ক্রমশ দুর্ধর্ষ হয়ে ওঠে, আরও বড় অপরাধে লিপ্ত হয়। ছোট হলেও ঘটনাগুলোকে তাই উপেক্ষা করার সুযোগ নেই।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x