ব্রেকিং নিউজ

আপডেট ১৩ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২১, ১২ মাঘ, ১৪২৭, শীতকাল, ১২ জমাদিউস সানি, ১৪৪২

বিজ্ঞাপন

বড়সড় বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল: ১৪ জনের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

নিরাপদ নিউজ

ফের বড়সড় বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল। মঙ্গলবার পরপর দু’টি জোড়া বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়েছে কমপক্ষে ১৪ জনের। গুরুতর জখম হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অন্তত ৪৫ জন।

বিজ্ঞাপন

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মধ্য আফগানিস্তানের দু’টি পৃথক জায়গায় পরপর দু’টি বোমা বিস্ফোরণ এবং গুলিবর্ষণ করে সন্ত্রাসীরা। যদিও এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোনও জঙ্গি সংগঠনই হামলার দায় স্বীকার করেনি। যদিও এই ধরণের নৃশংস হত্যালীলার তীব্র নিন্দা করেছেন আফগানিস্তানের পুলিশ-প্রশাসন।

এই বিষয়ে আফগান পুলিশের পক্ষ থেকে জানা গেছে, মঙ্গলবার মধ্য আফগানিস্তানের বামিয়ান শহরে দু’টি বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। নিহত হয়েছে কমপক্ষে ১৪ জন। তাদের মধ্যে একজন ট্রাফিক পুলিশও রয়েছে। এছাড়াও নিহত এবং আহতদের মধ্যে বেশিরভাগই শিয়া, হাজারা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বাসিন্দা।

মৃতদের সংখ্যা নিশ্চিত করে আফগানিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তারিক আরিয়ান বলেছেন, “আমরা বামিয়ানে হওয়া মারাত্মক বিস্ফোরণ কাণ্ডের তদন্ত শুরু করছি।”

তিনি আরও বলেন, ‘এটি একটি ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ। যেই কাজটি করে থাকুক দোষীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দেয়া হবে।’

যদিও এই ঘটনায় তালিবানরা জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছে।

জানা গেছে, ২০০১ সালে তালিবানরা বামিয়ানের পুরোনো বৌদ্ধ মূর্তিগুলো ক্লিফের মুখের উপর খোদাই করে ফেলেছিল। যা আফগানিস্তানের অন্যান্য অংশ জুড়ে যুদ্ধ শুরু হওয়ার কারণে তুলনামূলকভাবে দ্বন্দ্ব-মুক্ত ছিল। এছাড়াও বামিয়ান হলো একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। যা প্রাচীন গুহাগুলোর আবাসস্থল মন্দির, মঠ এবং বৌদ্ধ মঠের চিত্র গুলো তুলে ধরেছে। আর এই প্রদেশটিতে মূলত হাজারা সম্প্রদায়ের লোকেদের বাসস্থান।

এখানে মূলত শিয়া সংখ্যালঘুদের প্রায়শই ইসলামিক স্টেট গ্রুপ এবং তালিবানরা ১৯৯০ এর দশকে উগ্রপন্থীদের দ্বারা চিহ্নিত হয়েছিল।

শুধু তাই নয়, চলতি বছরের মে মাসে হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষেরা আরও একটি নৃশংস হত্যা কান্ড দেখেছিলো। সেইসময় কাবুলের একটি হাসপাতাকের প্রসূতি বিভাগে হামলা চালিয়েছিলো দুষ্কৃতিরা। সেদিনের ঘটনায় ৫ জন মারা গিয়েছিলেন।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x