ব্রেকিং নিউজ

আপডেট জুলাই ২৪, ২০২১

ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৯ আশ্বিন, ১৪২৮, শরৎকাল, ১৬ সফর, ১৪৪৩

বিজ্ঞাপন

কারেন্ট জালের ব্যবহার বন্ধ করুন

সম্পাদকীয়

নিরাপদ নিউজ

সুন্দরবন ও দক্ষিণ উপকূলের নদ-নদীতে একের পর এক মৃত ডলফিন (শুশুক) ভেসে আসছে। এসব ডলফিনের শরীরে জখমের চিহ্ন দেখা যাচ্ছে। করোনাকবলিত এই সময়ে দিশেহারা দেশবাসীর কাছে এটি হয়তো বড় কোনো দুঃসংবাদের ‘মর্যাদা’ পাবে না। একটি ‘অতি তুচ্ছ’ প্রাণীর এমন মৃত্যুর খবরের মধ্যে বিশেষ তাৎপর্য খুঁজতে যাওয়াকে অনেকে বাড়াবাড়ি সাব্যস্ত করতেও হয়তো কুণ্ঠাবোধ করবেন না। কিন্তু এই ‘তুচ্ছ’ খবরের মধ্যে যে অতি গুরুতর ও উৎকণ্ঠিত হওয়ার মতো বিষয় নিহিত আছে, তা পরিবেশসচেতন নাগরিকেরা ঠিকই উপলব্ধি করতে পারছেন। বিশেষত যখন জানা যাচ্ছে নিষিদ্ধ কারেন্ট জালে আটকা পড়ার পর এসব ডলফিনকে পিটিয়ে হত্যা করছেন একশ্রেণির জেলে, তখন সে ঘটনাকে আর হালকাভাবে নেওয়ার সুযোগ থাকছে না।

বিজ্ঞাপন

গত শনিবার সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জ কার্যালয়ের বিপরীত দিকে খালের পাড়ে একটি ডলফিন ভেসে আসে। এর আগে গত ২৫ মে মোরেলগঞ্জের পানগুছি নদীতে জেলেদের জালে জড়িয়ে একটি ডলফিনের মৃত্যু হয়। সুন্দরবনের পাশে শরণখোলার ভোলা নদীর চর থেকে গত ৩ মার্চ আরও একটি মৃত ডলফিন উদ্ধার করা হয়েছিল। মে মাসের প্রথম সপ্তাহে তিন দিনের ব্যবধানে পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকতে বিশাল আকৃতির তিনটি মৃত ডলফিন ভেসে আসে। এদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষতচিহ্ন ছিল।

ওয়াইল্ড লাইফ কনজারভেশন সোসাইটি বাংলাদেশ (ডব্লিউসিএস) বলছে, ২০১৭ থেকে ২০১৯ সালের অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশে ১৪৯টি ডলফিন মারা যায়। এদের মধ্যে প্রায় অর্ধেকেরই মৃত্যু হয়েছে মাছ ধরার জালে, বিশেষ করে কারেন্ট জাল ও ফাঁসজালে আটকা পড়ার কারণে।

স্তন্যপায়ী প্রাণী ডলফিন নিশ্বাস নেয় পানির ওপর। এ কারণে নদী বা সাগরে সবখানেই ডলফিনকে একটু পরপর ভেসে উঠতে দেখা যায়। নদীতে বিচরণ করতে করতে অনেক সময় পেতে রাখা কারেন্ট জাল, ফাঁস বা চান্দিজালে ঠোঁট, পাখনা জড়িয়ে আটকা পড়ে ডলফিন। জালে আটকা পড়লে নিশ্বাস নেওয়ার জন্য পানির ওপর মাথা তুলতে না পেরে দম বন্ধ হয়ে মারা যায়।

বন্য প্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ অনুযায়ী, ডলফিন হত্যা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কিন্তু আইনটি সম্পর্কে যাঁদের জানানো সবচেয়ে বেশি দরকার, সেই জেলেরাই তা জানেন না। এসব ডলফিন হত্যা করা হলে পরিবেশের ওপর কী ধরনের প্রভাব পড়ে, তা–ও তাঁরা জানেন না। এ কারণে কারেন্ট জালের ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে জেলেদের মধ্যে ব্যাপক প্রচার চালানো যেতে পারে।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x