ব্রেকিং নিউজ

আপডেট অক্টোবর ৮, ২০২১

ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১, ৩ কার্তিক, ১৪২৮, হেমন্তকাল, ১২ রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩

বিজ্ঞাপন

একটি বই ইতিহাসকে জাগিয়ে রাখতে পারে, ভৈরবে বই মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানে সাইফুল আলম

মোঃ আলাল উদ্দিন, ভৈরব প্রতিনিধি

নিরাপদ নিউজ

একটি বই ইতিহাসকে জাগিয়ে রাখতে পারে। লিখনির মাধ্যমে সমাজের অনেক কিছু প্রকাশ করা যায়। সাংবাদিকতার পাশাপাশি বই লেখা একটি মহৎ কাজ। অবসরে সময় কাটানোর জন্য অনেকেই বই লেখে থাকেন। যুগান্তরের ভৈরব প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান ফারুক সাংবাদিকতার বিষয় নিয়ে ” সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার অজানা কথা ” যে বইটি লিখেছেন তা একটি প্রশংসনীয় কাজ করেছে। বইটি পড়লে নতুন প্রজম্মের সাংবাদিকরা অনেক কিছুই শিখতে পারবে, জানতে পারবে যা আমার বিশ্বাস।

বিজ্ঞাপন

রিদম প্রকাশনা সংস্থা থেকে প্রকাশিত সাংবাদিক আসাদুজ্জমান ফারুক এর লেখা “সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার অজানা কথা ” বইয়ের মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে যুগান্তর সম্পাদক সাইফুল আলম উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। আজ শুক্রবার সকালে ভৈরব প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রেসক্লাব সভাপতি অধ্যাপক শামসুজ্জামান বাচ্চু। অনুষ্ঠানে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন, উপজেলা আ,লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাংগীর আলম সেন্টু, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মোঃ রফিকুল ইসলাম, ভৈরব চেম্বার সভাপতি আলহাজ্জ মোঃ হুমায়ূন কবির, ভৈরব প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এস এম বাকী বিল্লাহ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সাংবাদিক সুমন মোল্লা । অনুষ্ঠানের শুরুতেই লেখক সাংবাদিক আসাদুজ্জামান ফারুক বক্তব্য রাখেন। পরে অতিথিগণ বইটির মোড়ক উম্মোচন করেন।

প্রধান অতিথি হিসেবে সাইফুল আলম তার বক্তৃতায় বলেন, সাংবাদিকতা করতে হলে সমাজের কারো চাপে পড়ে সাংবাদিক। তায় পিছপা হওয়া যাবেনা। সমাজের সত্য! ঘটনাটি লিখে পত্রিকায় প্রকাশের ব্যবস্থা করতে হবে। একজন সাংবাদিককে ২৪ ঘন্টা তার মাথায় রাখতে হবে কোথায় কি ঘটনা ঘটেছে। তাহলেও সাংবাদিকতায় প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব। তিনি বলেন, আমার সাংবাদিকতা জীবন ৪২ বছর। সাংবাদিক জীবনে আমি সাব এডিটর, বিশেষ সংবাদদাতা, চীফ রিপোর্টার, বার্তা সম্পাদক, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক পদে একাধিক দায়িত্ব পালন করেছি। এখন আমি সম্পাদক। সকাল ১১ টায় অফিসে এসে রাত ১১ টায় বাসায় ফিরি। অফিসের ১২ ঘন্টা সময় সর্বক্ষণ থাকি সাংবাদিকতার কাজ নিয়ে। এভাবেই চলছে আমার জীবন। লক্ষ্য যদি সুনির্দিষ্ট থাকে, চিন্তা যদি সাংবাদিকতা থাকে তবে একজন প্রতিষ্ঠিত সাংবাদিক হওয়া কঠিন নয়। একজন সাংবাদিক নিউজের সাথে কোন আপোষ করতে পারবেনা। তাহলেই তিনি হবেন প্রকৃত সাংবাদিক। অনেকেই কাজের ব্যর্থতার জন্য মানুষের শ্রদ্ধা ভালবাসা পায়না, আমরা সহজ পথে সবকিছু পেতে চাই। আমাদের পারিপার্শ্বিক বন্ধন আজ হারিয়ে যাচ্ছে। সাংবাদিকরা আজ ভাল নেই। তিনি প্রশ্ন রাখেন, রাজনৈতিক কারনে আজ সাংবাদিকরা লিখতে পারছেনা, শুধু কি তাই? না তা নয়, সাংবাদিকরা আজ পরিশক্তির কাছে, জঙ্গীবাদের কাছে, সন্ত্রাসীদের কাছে বাধাপ্রাপ্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। দেশে এখন তিন হাজার মিডিয়া রয়েছে। তার মধ্য প্রিন্ট মিডিয়া, টিভি, রেডিও ও অনলাইন। এসব কতটি মিডিয়া ভাল আছে। আমি যখন শুনি নারায়নগন্জ থেকে ২২ টি, চাঁদপুর থেকে ২৮ টি দৈনিক পত্রিকা প্রকাশ হয়, তখন ভাবতে অবাক লাগে। ৩০ লাখ শহীদের বিনিময়ে আমাদের এই বাংলাদেশ। জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান এদেশকে স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন। কিন্ত দেশে আজও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য আন্দোলন করতে হয় যা লজ্জাজনক। দেশের মানুষের দায়িত্ব আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে।

অনুষ্ঠানে তিনি তার জীবনের স্মৃতি ও সাংবাদিকতার বিষয় নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন। বই মোড়ক অনুষ্ঠানে তাকে দাওয়াত দেয়ার জন্য ভৈরব প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান ফারুকসহ প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ দেন এবং কৃতজ্ঞতা জানান। বিশেষ করে সাংবাদিক ফারুকের লেখা বইটির প্রশংসা করেন তিনি। ভবিষ্যতে অবসর পেলে আরও বই লিখতে পরামর্শ দেন তিনি।

লেখক আসাদুজ্জামান ফারুক তার বক্তব্যে বলেন, শত ব্যস্ততার মাঝে সাইফুল আলম ভাই আমার অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে উপস্থিত হয়েছেন যা আমার সৌভাগ্য বলা যায়। অনুষ্ঠানে আসার জন্য তিনি তাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

অনুষ্ঠানের সভাপতি অধ্যাপক শামসুজ্জামান বাচ্চু তার বক্তৃতায় বলেন, সাইফুল আলম ভাই অনেক গুনী, পরিশ্রমী ও উচুমানের একজন সম্পাদক। দেশের প্রচার বহুল পত্রিকা যুগান্তর। এই পত্রিকাটিকে তিনি দেশের শীর্ষ পত্রিকায় উন্নতি করেছেন। সাংবাদিক ফারুক শুধু সাংবাদিকতাই করেনা, বইটি লিখে তিনি ইতিহাসে ঠাঁই করে নিয়েছেন।

অনুষ্ঠানে লেখক আসাদুজ্জামান ফারুক কে ভৈরব প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ক্লাব ও ইউনিটি , ভৈরব টেলিভিশন জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন ও ভৈরব সাংবাদিক সমিতি, ভৈরব প্রথম আলো বন্ধুসভা ও তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে ভৈরব রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ, নৌ থানার অফিসার ইনচার্জ, ভৈরবের আশে পাশের বেশ কটি জেলা ও উপজেলার সাংবাদিক, ভৈরবের বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল এর সাংবাদিকবৃন্দ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ ও প্রথম আলো বন্ধুসভার বন্ধুরা উপস্থিত ছিলেন ।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x