English

31 C
Dhaka
সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০২২
- Advertisement -

১২ ঘণ্টার আগেই শতভাগ কোরবানির বর্জ্য অপসারণ: মেয়র আতিক

- Advertisements -

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, সকলের সহযোগিতায় পূর্ব ঘোষিত ১২ ঘণ্টার আগেই ঢাকা উত্তর সিটির কোরবানির বর্জ্য শতভাগ অপসারণ করা সম্ভব হয়েছে। সচেতন নাগরিকদের আন্তরিক সহযোগিতায় এটি করতে পেরেছি। আগামী দিনেও ঢাকা শহরকে পরিচ্ছন্ন রাখতে জনগণ ও সিটি কর্পোরেশনকে একসাথে কাজ করতে হবে।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর গুলশান-২ এ নগর ভবনের হল রুমে ডিএনসিসির কোরবানির বর্জ্য অপসারণ সংক্রান্ত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

Advertisements

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ঈদের দিন ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাতটি নির্দিষ্ট স্থানে প্রায় ৬০০০ পশু কোরবানি দেওয়া হয়েছে। নিজে সেখানে গিয়ে দেখেছি দুপুরের মধ্যেই ৭ নম্বর ওয়ার্ডের শতভাগ বর্জ্য অপসারণ করা হয়। এবছর কোরবানির বর্জ্য অপসারণে ৭ নম্বর ওয়ার্ড প্রথম হওয়ায় সেখানে পুরস্কার হিসেবে বরাদ্দ বাড়িয়ে দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

ক্ষমতায় নয় বরং জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আমি দায়িত্ব নিয়ে এসেছি উল্লেখ করে মেয়র বলেন, আমি শহরকে পরিচ্ছন্ন রাখতে গতকাল পুরোটা সময় মাঠে থেকে দায়িত্ব পালন করেছি এবং নির্ধারিত সময়ে বর্জ্য অপসারণ নিশ্চিত করতে পেরেছি।

এবছর পরীক্ষামূলকভাবে ডিএনসিসির তিনটি ওয়ার্ডের ৯টি নির্দিষ্ট স্থানে কোরবানি দেওয়া হয়েছে। নির্দিষ্ট স্থানে কোরবানি হলে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশি খুব অল্প সময়ে বর্জ্য অপসারণ করা সম্ভব উল্লেখ করে আগামী ঈদে প্রতিটি অঞ্চলে নির্দিষ্ট স্থানে কোরবানির আহ্বান করেন ডিএনসিসি মেয়র।

তিনি বলেন, আমরা সিটি কর্পোরেশন থেকে নির্দিষ্ট স্থানে প্যান্ডেলের ব্যবস্থা করে দেব, মাংস বাসায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য গাড়ির ব্যবস্থাও করে দেব। রাস্তায়, ফুটপাতে ও যেখানে-সেখানে কোরবানি না দিয়ে আপনারা শুধু দায়িত্ব নিয়ে প্যান্ডেলে এসে পশু কোরবানি দেবেন।

Advertisements

সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, আধুনিক জবাই খানা নির্মাণের জন্য দ্রুতই আমরা পদক্ষেপ নেব। সংশ্লিষ্ট বিভাগকে আমি নির্দেশনা দিয়েছে আধুনিক জবাইখানা নির্মাণের জন্য। গাবতলী স্থায়ী পশুর হাটের পাশেই উন্নত দেশের মতো আধুনিক জবাইখানা নির্মাণ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

ডিএনসিসি সূত্রে জানা যায়, ঈদের আগের দিন বেলা ১১টা থেকে আজ বেলা ১১টা পর্যন্ত ৪২৬৭টি ট্রিপে মোট ১৯২২৩ মেট্রিক টন বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে। কোরবানির বর্জ্য অপসারণের জন্য বিশেষ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের আওতায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব ২৪০২ জন এবং অন্যান্য বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়সহ সর্বমোট ৯৯৯০ জন কর্মী কোরবানির বর্জ্য অপসারণে নিয়োজিত করা হয়।

অনুষ্ঠান উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রি. জেনারেল মো. জোবায়দুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহ. আমিরুল ইসলাম, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমডোর এস এম শরিফ-উল ইসলাম, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ মাহে আলম এবং ডিএনসিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন