English

27 C
Dhaka
শনিবার, মে ১৮, ২০২৪
- Advertisement -

সাহেদের বিরুদ্ধে সিআইডির মামলা

- Advertisements -
Advertisements
Advertisements

রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে প্রতারণা ও জালিয়াতি করে ৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। এছাড়া করোনাভাইরাস পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ৩ কোটি ১১ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ারও প্রমাণ পাওয়া গেছে। এসব অপরাধে সাহেদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলা করেছে সিআইডি।
সিআইডি বলছে, সাহেদ তার অপকর্মের প্রধান সহযোগী মাসুদ পারভেজের সহযোগিতায় রিজেন্ট ডিসকভারি ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলসের নামে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ঢাকার শাহ মখদুম এভিনিউ শাখায় গত ২৪ ফেব্রুয়ারি একটি নতুন অ্যাকাউন্ট খোলেন (হিসাব নং- ০০৬২০২১০০০৫৯৩৫)। হিসাবটি পরিচালনা করতেন সাহেদের বাবা সিরাজুল করিম ও মাসুদ পারভেজ। সিআইডির অনুসন্ধানে অভিযুক্ত সাহেদের অর্জিত সম্পদের প্রধান উৎস প্রতারণা ও জালিয়াতি মর্মে বেরিয়ে আসে। অপরাধলব্ধ আয় লেনদেনের সুবিধার্থে রিজেন্ট হাসপাতাল, রিজেন্ট কে সি এস লিমিটেড ও অন্যান্য অস্তিত্ববিহীন ১২টি প্রতিষ্ঠানের নামে ৪৩টি ব্যাংক হিসাব পরিচালনা করে আসছিলেন সাহেদ।
সাহেদ ও মাসুদ পারভেজ পরস্পর যোগসাজশে ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি হতে চলতি বছরের ১৫ জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে প্রতারণা ও জালিয়াতি করে মোট ১১ কোটি ২ লাখ ২৭ হাজার ৮৯৭ টাকা হাতিয়ে নেয়ার তথ্য পাওয়া যায়। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাবে লেনদেনের মাধ্যমে রূপান্তর এবং ভোগ-বিলাসে অর্থ ব্যয় করার অপরাধে অর্গানাইজড ক্রাইম ইউনিট (ফাইন্যান্সিয়াল ক্রাইম), সিআইডি বাদী হয়ে রাজধানী উত্তরা পশ্চিম থানায় মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা করেছে। মামলাটি অপরাধ তদন্ত বিভাগের অর্গানাইজড ক্রাইম ইউনিট তদন্ত করবে।
বিষয়টি নিশ্চিত করে মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি মিডিয়া) জিসানুল হক বলেন, ব্যাংক হিসাবসমূহ খোলার সময় কেওয়াইসি ফরমে প্রতিষ্ঠানসমূহের চেয়ারম্যান বা স্বত্বাধিকারী হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন সাহেদ। প্রতিষ্ঠানসমূহের এমডি মাসুদ পারভেজ অভিযুক্ত সাহেদের পক্ষে হিসাবসমূহ প্রত্যক্ষভাবে পরিচালনা করেছেন, যা সিআইডির প্রাথমিক তদন্তে উদঘাটিত হয়।
হিসাবগুলোর লেনদেন পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে নগদ টাকা জমা করা হয়েছে। সাহেদের ৪৩টি ব্যাংক হিসাবে মোট জমা ৯১ কোটি ৭০ লাখ টাকা এবং তার মধ্যে ৯০ কোটি ৪৭ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। এক্ষেত্রে তার হিসাবসমূহে বর্তমান স্থিতির পরিমাণ ২ কোটি ৪ লাখ টাকা, যার মধ্যে ৮০ লাখ টাকা ঋণ রয়েছে।
অভিযুক্ত মাসুদ পারভেজের ১৫টি ব্যাংক হিসাবে মোট জমা ৩ কোটি ৯৮ লাখ টাকা, মোট উত্তোলন করা অর্থের পরিমাণ ৩ কোটি ৯৮ লাখ টাকা এবং বর্তমান স্থিতি ৫ হাজার টাকা। প্রতারণা ও জালিয়াতি মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ এর ২(শ) (৫) ও (৬) ধারা অনুযায়ী সম্পৃক্ত অপরাধ। এসব অপরাধের অভিযোগে মোহাম্মদ সাহেদ ও সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে বর্তমানে ৩০টি মামলার তথ্য পাওয়া গেছে।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন