English

31 C
Dhaka
বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১১, ২০২২
- Advertisement -

অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে কিশোরীর মৃত্যু, গ্রেপ্তার ৩

- Advertisements -

কিশোরীকে অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। লিমা নামে এক গার্মেন্টকর্মীকে চট্টগ্রাম থেকে অপহরণ করে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ এনে তাকে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ। এর আগে নিহত লিমার বাবা বাদী হয়ে নারী নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের উত্তর বায়েরা গ্রামের জালাল আহমেদের ছেলে তৈয়ব হোসেন (২১), তার বন্ধু মামুন (১৯), হাসান (২৩), আমজাদ হোসেন রায়হান (২০)।

Advertisements

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ৯ অক্টোবর রাত ৯টার সময় গার্মেন্ট ছুটির পর বায়েজিদ বোস্তামী থানার আমিন কলোনির রুহুল আমিনের ভাড়াটিয়া টিটন মিয়ার ১৭ বছরের মেয়ে লিমা আক্তারকে  চট্টগ্রাম থেকে অপহরণ করে আসামিরা। লিমা বাড়িতে না ফেরায় তার পরিবার বায়েজিদ বোস্তামী থানায় একটি জিডি করে।

পরে  জানতে পারেন, তার মেয়েকে অপহরণ করে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা নিউটাউন এলাকার বেপারী বাজার সংলগ্ন জনৈক সাগর প্রধানের ভাড়া বাড়িতে আটকে রাখা হয়েছে। ধর্ষণের কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হলে তৈয়ব ও তার বন্ধুরা চিকিৎসার জন্য মোগরাপাড়া চৌরাস্তার মা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের মা রিনা বেগম জানান, আমার মেয়ে গার্মেন্টের বেতন নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে তৈয়ব ও তার বন্ধুরা অপহরণ করে সোনারগাঁ এনে নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে। আমি আমার সন্তান হত্যার সুষ্ঠু বিচার চাই।

Advertisements

অভিযুক্ত তৈয়ব হোসেন জানান, লিমার সঙ্গে দুই বছর ধরে তার প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। পূর্বপরিকল্পনা অনুয়ায়ী তারা ৯ তারিখে চট্টগ্রাম থেকে পালিয়ে সোনারগাঁয়ে আসেন। পরদিন তারা মেঘনা নিউটাউন এলাকায় বিয়ে করেন। বিয়ের সাক্ষী হিসেবে হাসান ও রায়হান স্বাক্ষর করেন বলেও জানান তৈয়ব।

তিনি আরো জানান, বিবাহোত্তর শারীরিক সম্পর্ক করলে লিমার রক্তক্ষরণ শুরু হলে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় মা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লিমা মৃত্যুবরণ করে।

সোনারগাঁ থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, মেঘনা গ্রুপের ফ্রেস কম্পানিতে চাকরিরত তৈয়বের সঙ্গে চট্টগ্রামের লিমার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তারা গত ৯ তারিখে পালিয়ে সোনারগাঁয়ে তৈয়বের ভাড়া বাড়িতে ওঠে। শারীরিক সম্পর্কের কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে লিমা মারা যায়। অভিযুক্ত তৈয়ব ও তার দুই বন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন