English

32 C
Dhaka
রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
- Advertisement -

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নামে ফেসবুকে হারবাল পণ্যের রমরমা বাণিজ্য, গ্রেপ্তার ২

- Advertisements -

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেনের নামে ভুয়া ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে হেয়ার টনিকসহ রূপচর্চার নানা হারবাল পণ্যের চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে হারবাল সামগ্রী বিক্রির রমরমা বাণিজ্য করছিল একটি চক্র। মূলত স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নাম ব্যবহারের কারণে মানুষ বিশ্বাস করে এসব পণ্যের অর্ডার করত। আর এভাবেই প্রতারণা করে আসছিল চক্রটি। সেই চক্রের একজন ভিয়েতনামী নাগরিকসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

Advertisements

আজ শনিবার (২৫ মে) দুপুরে রাজধানীর মিন্টু রোডের ডিবি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিবি প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

গতকাল শুক্রবার (২৪ মে) দিনগত রাতে গুলশান এলাকায় ডিবি সাইবার ক্রাইম বিভাগের (দক্ষিণ) একটি অভিযানে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. সাইফুর রহমান আজাদের নেতৃত্বে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে তিনটি মোবাইল ফোন, চারটি ল্যাপটপ ও প্রতারণায় ব্যবহৃত বিভিন্ন চাইনিজ ও ভিয়েতনামী পণ্য উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- ভিয়েতনামী নাগরিক ট্রান-আনহ-থো ওরফে মিস্টার টনি ও নুরুল আমিন ওরফে ইয়ামিন।ডিবি প্রধান বলেন, শাহবাগ থানায় দায়েরকৃত স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারীর একটি মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ডিবি ভুয়া ফেসবুক আইডি নিয়ে কাজ শুরু করে। এক পর্যায়ে দেখা যায়, স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নাম ও ছবি ব্যবহার করে হেয়ার টনিক এবং চুলের ট্রিটমেন্ট বিভিন্ন চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে সাধারণ মানুষকে প্রতারণা করা হচ্ছে। এর সূত্র ধরে ডিবি গুলশানে অভিজাত এলাকায় একটি ‘ইউনিক সিপিং এজেন্সি’ নামে কম্পানির সন্ধান পায়। যারা স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ দেশের বিভিন্ন সেলিব্রেটি ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের নাম-ছবি ব্যবহার করে ভিয়েতনাম ও চীন থেকে আমদানিকৃত নিম্নমানের পণ্য বিক্রি করে আসছে।

Advertisements

প্রতারণার বিষয়ে হারুন অর রশীদ বলেন, মিস্টার টনি ও নুরুল আমিন প্রতারণা চক্রের মূল এজেন্ট। তারা স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ বিভিন্ন সেলিব্রেটিদের নাম-ছবি ব্যবহার করে ভুয়া ফেসবুক পেজ খুলে বিজ্ঞাপন দেয়। এই ভুয়া ফেসবুক পেজগুলো ভিয়েতনাম থেকে মি. ডং নামে একজন পরিচালনা করেন। আর সেই চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে দেশের সাধারণ মানুষ পেইজে অর্ডার করে। এরপর ভিয়েতনামে থাকা এই চক্রের মার্কেটিং গ্রুপ থেকে ‘ইউনিক সিপিং এজেন্সি’ নামের কম্পানিতে বাংলাদেশি কর্মরত ব্যক্তিদের কাছে তথ্য পাঠানো হয়।সেখান থেকে ভুয়া নামে রেজিস্ট্রেশন করা নাম্বার থেকে গ্রাহককে ফোন করে অর্ডার কনফার্ম করে কুরিয়ারে পণ্য পৌঁছে দেওয়া হয়।

ডিবি প্রধান বলেন, এসব নিম্নমানের পণ্য ভিয়েতনাম-চীন থেকে আনা হলেও পণ্যের বাংলাদেশে বিপণনের কোনো বৈধতা নেই। সাধারণ মানুষকে এসব বিজ্ঞাপন দেখে পণ্য কেনার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকার কথা জানান তিনি।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ

ঈদে সাত নায়িকার লড়াই

- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন