English

26 C
Dhaka
শনিবার, এপ্রিল ১, ২০২৩
- Advertisement -

চিকিৎসকের ভুলে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু, সড়ক অবরোধ

- Advertisements -
Advertisements
Advertisements

নারায়ণগঞ্জে একটি ক্লিনিকে চিকিৎসকের ভুলে আয়েশা আক্তার আলভী (১৪) নামে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। রোববার সকালে সদর উপজেলার ফতুল্লার পাগলা গ্রীন ডেলটা ক্লিনিকের ধোলাইপাড় শাখায় আলভী মারা যায়। তবে এর ৩ দিন আগে গত বুধবার আলভী ভাঙা পা নিয়ে ওই ক্লিনিকের পাগলা বাজার শাখায় চিকিৎসা নিতে যায়। সেখানে তার ভাঙ্গা পায়ের অপারেশনের জন্য এনেসথেসিয়ার চিকিৎসকের ভুল ডোজে আলভী কোমায় চলে যায়। এরপর তাকে ক্লিনিকের ধোলাইপাড় শাখায় আইসিইউতে রাখা হয়। ৩ দিন পর আলভী রোববার সকালে মারা যায়। ঘটনার পর রোববার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. ইমতিয়াজ আহমেদ গ্রীন ডেলটা ক্লিনিক পরিদর্শন করে সেটি বন্ধ করে দেন। নিহত আয়েশা আক্তার আলভী পাগলা উচ্চ বিদ্যালয়ের অস্টম শ্রেণীর ছাত্রী।
সে ফতুল্লার দক্ষিণ নয়ামাটি এলাকার শাহাদাৎ হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া মিজানুর রহমানের মেয়ে। এদিকে আলভীর মৃত্যুর খবরে তার স্বজন ও এলাকাবাসী পাগলা এলাকায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। একই সময় গ্রীন ডেলটা ক্লিনিকও ঘেরাও করে তারা। পরে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন ঘটনাস্থলে এসে সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দিলে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয় বিক্ষোভকারীরা।
মিজানুর রহমান বলেন, গত বুধবার বাড়ির ছাড়ের সিড়ি থেকে পড়ে পায়ে ব্যথা পায় আলভী। ওই সময় তাকে গ্রীন ডেলটা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এক্স-রে করে দেখা যায় আলভীর পায়ের হাড় ভেঙে গেছে। ওই সময় তাকে চিকিৎসার জন্য অন্যত্র নেয়ার চেষ্টা করা হলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ জানায় এ ক্লিনিকেই তার অপারেশন সম্ভব। তারা মিজানুর রহমানকে আ শ্বস্ত করে। পরে অপারেশন থিয়েটায়ে নিয়ে অজ্ঞান করার জন্য এনেসথেসিয়ার চিকিৎসক তাকে ইনজেকশন পুশ করে। প্রথম দফায় আলভী অজ্ঞান না হওয়ায় ডোজ বাড়িয়ে দ্বিতীয় দফায় ইনজেকশন পুশ করলে আলভী কোমায় চলে যায়।
আলভী কোমায় চলে যাওয়ায় ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ তাকে তাদের ধোলাইপাড় শাখায় স্থানান্তর করে আইসিইউতে নেয়। সেখানেই গতকাল আলভী মারা যায়।
আলভীর বড় ভাই হাসিবুল হাসান শান্ত বলেন, অপারেশন থিয়েটারে নেয়ার আগে আলভী সবার সঙ্গে কথা বলেছে। অপারেশন থিয়েটারে নেয়ার পর চিকিৎসকের ভুলেই আলভী মারা গেছে। আমরা এর বিচার চাই। আমার ফুটফুটে বোনটিকে চোখের সামনে মরে যেতে দেখলাম। এই দুঃখ রাখি কোথায়। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, রোগীর স্বজনরা সড়ক অবরোধ করেছিল। তাদেরকে সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস প্রদান করে অবরোধ প্রত্যাহার করানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন