English

34 C
Dhaka
বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪
- Advertisement -

প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন: ‘গলার কাঁটা’ স্‌লুইস গেট

- Advertisements -
দেশ ও মানুষের কল্যাণে সরকার নানা রকম প্রকল্প গ্রহণ করে। কোটি কোটি টাকা খরচ করা হয়। কিন্তু বাস্তবায়নকারী সংস্থাগুলোর অদক্ষতা, অমনোযোগিতা ও পরিকল্পনাহীনতার কারণে অনেক প্রকল্পেরই উদ্দেশ্য অর্জিত হয় না। প্রকল্পের উদ্দেশ্য যে জনগোষ্ঠী, তাদেরও কোনো কাজে আসে না।
তেমনই একটি প্রকল্প হলো কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলায় ডাকাতিয়া নদীর শাখা নদনা খালের মুখে স্থাপিত স্লুইস গেট প্রকল্প। প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০৬-০৭ অর্থবছরে স্লুইস গেটটি নির্মাণ করা হয়। কিন্তু নির্মাণের পরের বছরই স্লুইস গেটটি অকেজো হয়ে যায়। এরপর দেড় দশক পেরিয়ে গেলেও সেটি মেরামত করা হয়নি।
ফলে শুষ্ক মৌসুমে পানি ধরে রেখে কৃষিকাজে সহায়তার যে পরিকল্পনা থেকে এটি তৈরি করা হয়েছিল, সেই লক্ষ্য অর্জিত হচ্ছে না। বরং বর্ষায় পানি নামতে দেরি হয়। স্থানীয় কৃষকরা এখন স্লুইস গেটটিকে তাঁদের ‘গলার কাঁটা’ হিসেবেই দেখছেন। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তা নিয়ে কোনো মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না।
কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) দক্ষিণ কুমিল্লা এবং উত্তর নোয়াখালীর পানি নিষ্কাশন ও সেচ প্রকল্পের আওতায় এই স্লুইস গেটটি নির্মিত হয়েছিল। স্বাভাবিকভাবে স্থানীয় কৃষকরা যথেষ্ট আশাবাদী হয়েছিলেন যে শীতকালীন ফসল, বিশেষ করে বোরো আবাদে তাঁদের অনেক উপকার হবে।
কিন্তু বছর না ঘুরতেই তাঁরা দেখলেন, উপকারের বদলে অপকারই বেশি হচ্ছে। শুষ্ক মৌসুমে খালের পানি ধরে রাখা যায় না। অন্যদিকে বর্ষায় পানি নামতে দেরি হয়, কখনো কখনো জলাবদ্ধতা দেখা দেয়।
এ ছাড়া আগে এলাকাটিতে প্রাকৃতিকভাবে প্রচুর মাছ পাওয়া যেত। নদী ও খালের মধ্যে সংযোগ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় নদীর মাছ ডিম পাড়তে বা বিচরণের জন্য প্লাবনভূমিতে ঢুকতে পারে না। ফলে মাছের সেই প্রাচুর্য এখন নেই বললেই চলে।
আগে এই খাল দিয়ে নৌকা চলাচল করত। কৃষকের ফসল দূর-দূরান্তের হাটবাজারে সহজে পরিবহন করা যেত। স্লুইস গেট হওয়ায় সেটিও বন্ধ হয়ে গেছে। তাই এলাকার কৃষক ও জনপ্রতিনিধিরা চাইছেন, স্লুইস গেটটি দ্রুত অপসারণ করা হোক।
অনেকেই বলে থাকে, ছোটখাটো মেরামতকাজে বাজেট কম, লাভও কম। তাই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এসব কাজে খুব একটা আগ্রহী হন না। দেড় দশকেও মনোহরগঞ্জের স্লুইস গেট মেরামতের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ না নেওয়ার পেছনেও কি এমন কোনো কারণ জড়িত? আমরা আশা করি, এলাকার হাজার হাজার কৃষকের ক্ষয়ক্ষতি ও দুর্ভোগের জন্য দায়ী স্লুইস গেটটির ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হোক।
সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন