English

30 C
Dhaka
বুধবার, আগস্ট ১০, ২০২২
- Advertisement -

মেয়াদোত্তীর্ণ হলে চলে কী করে: পাটুরিয়া ঘাটে ফেরিডুবি

- Advertisements -
Advertisements
Advertisements

রাজধানী ঢাকার সঙ্গে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বড় অংশের মধ্যে যোগাযোগের ক্ষেত্রে পদ্মা নদী পার হতে হয়। রাজবাড়ী জেলার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যানবাহন পারাপার হচ্ছে। দীর্ঘ সময়ে এই রুটে কোনো ফেরি দুর্ঘটনা ঘটেনি। গত বুধবার সকালে পাটুরিয়া ঘাটে উল্টে যায় রো রো ফেরি শাহ আমানত। বাংলাদেশের ইতিহাসের রো রো ফেরির এভাবে দুর্ঘটনায় পড়া এটাই প্রথম। প্রকাশিত খবরে জানা যায়, ফেরিতে থাকা ১৭টি ট্রাকের মধ্যে দুটি কাভার্ড ভ্যান পন্টুনে নামতে সক্ষম হলেও বাকি ট্রাকগুলো ফেরির সঙ্গে পানিতে ডুবে যায়।
প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট থেকে সকাল ৯টার দিকে শাহ আমানত নামের ফেরিটি পাটুরিয়া ঘাটের উদ্দেশে রওনা দেয়। মাঝনদীতে ফেরিটি ডান দিকে কাত হতে থাকে। ফেরির চালক দ্রুত ফেরি চালিয়ে পাটুরিয়া ঘাটের দিকে আসেন। পাঁচ নম্বর ঘাটে ফেরি ভেড়ালে দুটি কাভার্ড ভ্যান দ্রুত ফেরি থেকে নামতে পারে। বাকি যান নিয়ে ফেরিটি ডুবে যায়। ফেরির যাত্রীরা জানিয়েছেন, ডুবে যাওয়া শাহ আমানত  ফেরিতে পানি উঠতে শুরু করে মাঝনদীতে থাকতেই। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ফেরির পাটাতন ফেটে পানি ওঠায় এটি ডুবে যায়।
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে বড় আটটি, ছোট ছয়টি এবং দুটি মাঝারি আকারের মোট ১৬টি ফেরি চালু আছে। ডেনমার্ক থেকে আনা রো রো ফেরি শাহ আমানত বিআইডাব্লিউটিসির বহরে যুক্ত হয় ১৯৮০ সালে। এ ধরনের একটি ফেরির ইকোনমিক লাইফ ৩০ বছর। কিন্তু মেরামতের পর তা ১০ বছর বেড়েছে বলে দাবি করেছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা বিআইডাব্লিউটিসির কর্মকর্তারা। যদিও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এভাবে মেয়াদ বাড়ানোর কোনো সুযোগ নেই।
দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনা রোধ করতে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়। কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে নৌপরিবহনসচিবের কাছে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।
তদন্তে কিছু প্রশ্নের উত্তর গুরুত্বের সঙ্গে খোঁজা দরকার বলে আমরা মনে করি। প্রতিটি ফেরি যানবাহন নিয়ে ছাড়ার আগে একবার করে চেক করার নিয়ম রয়েছে। ফেরিটি ছাড়ার আগে কি চেক করা হয়েছিল? ফেরিতে থাকা ট্রাকচালকরা বলছেন, মাঝনদীতেই ফেরিতে পানি উঠতে দেখেন তাঁরা। সে ক্ষেত্রে ফেরি পরিচালনাকারীরা কেউ তা দেখলেন না কেন? কোনো সতর্কবার্তা দিলেন না কেন?
প্রকাশিত খবর থেকে জানা যাচ্ছে, এই নৌপথে বেশির ভাগ ফেরি তিন যুগের বেশি পুরনো। অনেকটা জোড়াতালি দিয়েই ফেরিগুলো চালানো হয়। কয়েক দিন চললেই ফেরিগুলো আবার বিকল হয়ে পড়ে। সাময়িক মেরামতের নামে ভাসমান কারখানায় নিয়মিত চলে জোড়াতালির কাজ। প্রশ্ন হচ্ছে, এভাবে জোড়াতালি দিয়ে আর কত দিন? আমরা সড়ক-মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহনের কথা বলি। মেয়াদোত্তীর্ণ ফেরি নৌপথে চলে কী করে?

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন