English

29 C
Dhaka
সোমবার, মে ২৩, ২০২২
- Advertisement -

চিত্রনায়ক-অভিনেতা আনসারের আজ ২৮তম মৃত্যুবার্ষিকী

- Advertisements -
Advertisements
Advertisements

চিত্রনায়ক-অভিনেতা আনসারের আজ ২৮তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ১৯৯২ খ্রিষ্টাব্দের ২ আগস্ট, ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল মাত্র ৫৩ বছর। প্রয়াত গুণি এই অভিনেতার প্রতি জানাই গভীর শ্রদ্ধা। তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।
আনসার ১৯৩৯ খ্রিষ্টাব্দের ২৩ জানুয়ারী রংপুরে জন্মগ্রহন করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজী ভাষা এবং সাহিত্যে এমএ ডিগ্রী লাভ করেন।
জামান আলী খানের প্রযোজনায়, আব্দুস সাত্তার রচিত ‘বিদ্যালংকার প্রেস’ নাটকে, সর্বপ্রথম অভিনয় করেন।
মুস্তাফা মেহমুদ পরিচালিত, ‘মোমের আলো’ (১৯৬৮ খ্রিষ্টাব্দে মুক্তিপ্রাপ্ত) ছবিতে নায়ক হিসেবে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন আনসার। কিন্তু তাঁর অভিনীত প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘আয়না ও অবশিষ্ট’, মুক্তিপায় ১৯৬৭ খ্রিষ্টাব্দে।
নায়ক আনসার যেসব ছবিতে অভিনয় করেছেন সেগুলো হলো- আয়না ও অবশিষ্ট, মোমের আলো, মায়ার সংসার, নতুন প্রভাত, অধিকার, অনির্বাণ, কে আসল কে নকল, অশান্ত ঢেউ, কলংকিনী, সোনার খেলনা প্রভৃতি।
ঢাকার চলচ্চিত্রে অভিনয় করার আগে আনসার- বেতার, টেলিভিশন ও থিয়েটারে নিয়মিত অভিনয় করতেন।
তিনি টেলিভিশন নাট্যশিল্পী ও নাট্যকার সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৭৪ খ্রিষ্টাব্দে, এদেশে প্রথম নাটকের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ‘রঙ্গরূপ নাট্য একাডেমী’ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তিনি।
তখনকার সময়ে ঢাকার চলচ্চিত্রে নায়ক
আনসার দেখতে বেশ সুদর্শন ছিলেন। রোমান্টিক নায়কের ইমেজ তিনি খুব অনায়াসেই গড়তে পারতেন, যদি চিত্রপরিচালকদের সুনজরে থাকতেন। কি এক অজানা কারণে নির্মাতাদের কাছ থেকে তিনি যথাযথ সুযোগ-সুবিধা পান নি। তাই হাতেগোনা মাত্র কয়েকটি ছবিতে
নায়ক হিসেবে অভিনয় করেছিলেন। নির্মাতারা তাকে মূল্যায়ন করলে বা সঠিকভাবে কাজে লাগালে, তিনিও হয়তো বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের একজন জনপ্রিয়/জননন্দিত নায়ক হয়ে উঠতেন। বাংলাদেশের সিনেমা দর্শকদের স্মৃতিতে আজও অম্লান নায়ক আনসার।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন