English

17 C
Dhaka
রবিবার, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৩
- Advertisement -

স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করুন

- Advertisements -
Advertisements
Advertisements

মাহমুদুল হাসান সরদার: বর্তমানে সারা বিশ্বে সাধারণত মহিলাদের মধ্যে স্তন ক্যান্সারের হার বেড়েই চলছে এবং সচেতন না হলে এটি মহামারির মতোই বৃদ্ধি পাবে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা মনে করছেন।  নিয়মিত স্তন পরীক্ষা করা, নিজেই স্তনে গুটি বা চাকার মতো হচ্ছে কিনা তা লক্ষ্য রাখা এবং কিছু সন্দেহ হলে  লজ্জা না করে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে স্তন ক্যান্সার বৃদ্ধির হার কমানো যাবে বলে মনে করা হয়। মনে রাখতে হবে, শুরুতে ধরা পড়লে স্তনের ক্যান্সার অত্যন্ত নিরাময়যোগ্য হতে পারে।  তাই নিয়মিত স্তন পরীক্ষা করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকির কারণসমূহ

চিকিৎসৎসা বিজ্ঞানীরা নির্দিষ্ট স্বাস্থ্যের পরিস্থিতি এবং নির্ণয়ের ক্ষেত্রে কিছু পারস্পরিক সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছেন, তবে বেশির ভাগ ক্যান্সার কোনো ঝুঁকির কারণ ছাড়াই ঘটে।

* বয়স: ক্যান্সার যে কোনো বয়সে বিকাশ লাভ করতে পারে, তবে ২য় থেকে ৩য় টাইপের ক্যান্সার পাওয়া যায় ৫৫ বা তার বেশি বয়সের মহিলাদের মধ্যে। * উত্তরাধিকারসূত্রে জেনেটিক পরিবর্তন:  বিআরসিএ ১, বিআরসিএ ২ এবং সিইসিইসি ২ অস্বাভাবিকতাগুলো সমস্ত ক্ষেত্রে ৫-১০ পারসেন্ট পর্যন্ত সনাক্ত করা যায়।

* পারিবারিক ইতিহাস: স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত জেনেটিক ঝুঁকি দ্বিগুণ হয়ে যায়, যদি আপনি স্ত্রীর ক্যান্সারে আক্রান্ত- বোন, মা বা কন্যা ভরৎংঃ প্রথম স্তরের আত্মীয় হন। আপনার যদি প্রাথমিক স্তরের দু’জন আত্মীয় নির্ণয় করা থাকে তবে আপনার ঝুঁকি গড় থেকে ৫ গুণ বেশি। ৫০ বছরের বয়সের আগে বা ট্রিপল-নেটিভ স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত রক্ত শনাক্তকারীরাও আপনার ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।

* প্রসব এবং মাসিক চক্র: আপনার যদি ৩০ বছরের বয়সের আগে একটি পূর্ণ- মেয়াদি গর্ভাবস্থা বা আপনার প্রথম সন্তান না থাকে তবে আপনার স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি হতে পারে। ১২ বছর বয়সের আগে আপনার পিরিয়ড শুরু করা এবং ৫৫ বছর বয়সের পরে মেনোপজ কাটাতেও আপনার ঝুঁকি বাড়তে পারে।

* লাইফস্টাইল এবং পরিবেশগত কারণসমূহ: ধূমপান, মদ্যপান, ব্যায়ামের অভাব, ২৫ বছরেরও বেশি একটি ইগও, দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহ, ভিটামিন ডি-এর কম মাত্রা, সূর্য বা ক্যান্সারজনিত রাসায়নিকগুলির অত্যধিক এক্সপোজার এবং অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক ক্যান্সারজনিত কোষগুলোর বিকাশে অবদান রাখতে পারে।

প্রতিরোধে করণীয় 

১. ধূমপান এড়িয়ে চলুন। ধোঁয়ায় কার্সিনোজেনিক যৌগ রয়েছে যা ক্যান্সারের কারণ হতে পারে।

এটি আপনাকে চিকিৎসা-সম্পর্কিত পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলোর ঝুঁকিতে পরিণত করে। যদি বিকিরণের প্রয়োজন হয় তবে ফুসফুসের ক্যান্সার এবং/বা নিউমোনাইটিস হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেশি হতে পারে।

২. ব্যায়াম নিয়মিত অনুশীলন রক্তে শর্করাকে নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে এবং হরমোনের ইনসুলিনের মাত্রা সীমাবদ্ধ করে যা স্তনের কোষগুলো কীভাবে বৃদ্ধি পেতে পারে এবং ক্যান্সারজনিত জিনগত পরিবর্তনগুলো বিকাশ করতে পারে তা প্রভাবিত করতে পারে।

৩. একটি স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখুন (২৫ বিএমআইয়ের কম) ফ্যাট কোষগুলো ইস্ট্রোজেন তৈরি করে, যা নির্দিষ্ট ধরনের স্তন ক্যান্সারের বিকাশ এবং বৃদ্ধিকে উদ্দীপিত করতে পারে। অতিরিক্ত ফ্যাট কোষগুলো শরীরের প্রদাহকে ট্রিগার করতে পারে, যা পুনরাবৃত্তির উচ্চতর সুযোগের সাথে যুক্ত হয়েছে।

৪.  স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধের ডায়েট অনুসরণ করুন এর মাধ্যমে * ফলমূল এবং শাকসবজি সমৃদ্ধ একটি খাদ্য বজায় রাখুন * পুরো শস্য, চর্বিযুক্ত প্রোটিন এবং অ চর্বিযুক্ত দুধ এবং দুগ্ধজাতগুলো বেছে নিন * মাংস, হাঁস-মুরগি এবং মাছ থেকে ত্বক এবং ফ্যাট সরান বা আলাদা করে খান। * চিনি, পরিশোধিত কার্বোহাইড্রেট এবং অ্যালকোহল  পরিত্যাগ করুন। * ছোট আকারের অংশ খান।

৫. রাসায়নিক, বিষ, সূর্য এবং অন্যান্য বিকিরণের ক্ষতিকারক এক্সপোজার এড়িয়ে চলুন। আরও অধ্যয়ন স্তন ক্যান্সারের পরিবেশগত কারণগুলো এবং প্লাস্টিক, প্রসাধনী, খাদ্য, জল এবং অন্যান্য ভোক্তা পণ্যগুলোতে প্রাপ্ত নির্দিষ্ট রাসায়নিকের প্রভাব সম্পর্কে গবেষণা শুরু করে। খাদ্য উৎপাদনে কীটনাশক, অ্যান্টিবায়োটিক এবং হরমোনের ব্যবহারও ভূমিকা নিতে পারে।

৬. বার্ষিক স্তন পরীক্ষার সময়সূচি প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্তকরণ এখনও ক্যান্সার বৃদ্ধি এবং ছড়াতে রোধ করার সেরা উপায়। পর্যায় ৫ এবং পর্যায় ১০০  স্তন ক্যান্সারের জন্য ০ বছরের বেঁচে থাকার হার প্রায় ১ পার্সেন্ট, এটি প্রথমদিকে ধরা খুব গুরুত্বপূর্ণ।

৭. যদি নিচের স্তন ক্যান্সারের লক্ষণগুলো অনুভব করতে শুরু করেন তাহলে চিকিৎসককে জরুরি দেখান   * অবসাদ * গলদা বা ঘন অঞ্চল ত্বকের নিচে অনুভূত হয় * অনিচ্ছাকৃত ওজন হ্রাস বা বৃদ্ধি * ত্বকের পরিবর্তন, যেমন হলুদ হওয়া, গা ফধৎশ হওয়া বা ত্বকের লালচেভাব * অব্যক্ত রক্তক্ষরণ, ক্ষত বা ঘা যা নিরাময় করে না * অন্ত্র বা মূত্রাশয় অভ্যাস পরিবর্তন। * ক্রমাগত কাশি, শ্বাস নিতে সমস্যা, বদহজম বা খাওয়ার পরে অস্বস্তি। * খিঁচুনি বা গিলতে অসুবিধা। * অবিরাম, অব্যক্ত ফেভার্স, রাতের ঘাম বা পেশী এবং/ বা জয়েন্টে ব্যথা

লেখক: ক্যান্সার চিকিৎসক ও চিফ কনসালট্যান্ট, সরদার হোমিও হল, ৬১/সি, আসাদ এভিনিউ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ

আল কোরআন ও আল হাদিস

আজকের রাশিফল

- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন