English

21 C
Dhaka
শনিবার, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২৩
- Advertisement -

গ্রেটা থুনবার্গকে আটকের বিষয় অস্বীকার করল জার্মান পুলিশ

- Advertisements -

জার্মানির পুলিশ জলবায়ু রক্ষায় আন্দোলনকর্মী গ্রেটা থুনবার্গকে আটক করেনি বলে দাবি করেছে। পুলিশের দাবি, গ্রেটা থুনবার্গকে আটক করা হয়েছে বলে যে তথ্য ছড়িয়ে পড়েছে, তা বিভ্রান্তিকর।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম বলছে, কয়লা খনি সম্প্রসারণের পথ তৈরির জন্য একটি গ্রাম ভেঙে ফেলার বিরুদ্ধে বিক্ষোভের সময় অন্যান্য কর্মীর সঙ্গে জলবায়ুকর্মী গ্রেটা থুনবার্গকে গত মঙ্গলবার আটক করা হয়। তবে পরিচয় যাচাই করার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

Advertisements

জার্মানির পশ্চিমাঞ্চলীয় লুয়েৎজারথ গ্রাম থেকে প্রায় ৯ কিলোমিটার দূরে একটি কয়লা খনিতে প্রতিবাদ করার সময় গ্রেটা থুনবার্গকে আটক করা হয়। খনির প্রান্ত থেকে সরে না গেলে বলপ্রয়োগ করে সরিয়ে দেওয়া হবে বলে পুলিশ হুঁশিয়ারি দেওয়ার পরই আটকের ওই ঘটনা ঘটে।

বিবিসি জানিয়েছে, গ্রেটা থুনবার্গকে আটক করা হয়েছে বলে একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। লাখ লাখ মানুষ সেই ভিডিও দেখেছে। পরে জার্মান পুলিশের হস্তক্ষেপে ওই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়া থেকে অপসারণ করা হয়।

সুইডেনের জলবায়ুকর্মী গ্রেটা থুনবার্গ বলেছেন, জলবায়ু রক্ষায় আন্দোলন বা প্রতিবাদ কোনো অপরাধ নয়। জার্মানিতে কয়লা খনিবিরোধী আন্দোলনে অংশ নিয়ে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য আটক হওয়ার পর তিনি এই মন্তব্য করেন।

বৃহস্পতিবার রয়টার্স জানিয়েছে, কয়লা খনি সম্প্রসারণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের সময় জার্মানিতে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য আটক হওয়ার পর থুনবার্গ বুধবার বেশ দ্রুত তার প্রচার শুরু করেন। এ সময় জলবায়ু রক্ষা করা অপরাধ নয় বলে টুইটও করেন তিনি।

Advertisements

রয়টার্স বলছে, ওই কয়লা খনি সম্প্রসারণের জন্য জার্মানির পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য নর্থ রাইন-ওয়েস্টফালিয়ার গ্রামটি ভেঙে ফেলা হচ্ছে। পরিবেশ অধিকারকর্মীরা বলছেন, জার্মানির আর লিগনাইট বা বাদামি কয়লা খনন করা উচিত নয়। এর পরিবর্তে পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি সম্প্রসারণের দিকে মনোনিবেশ দেওয়া উচিত।

অল্প সময়ের জন্য আটক হওয়ার পর গ্রেটা থুনবার্গ এখন ঠিক কোথায় আছেন, তা স্পষ্ট নয়। বুধবার টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় তিনি বলেছেন, গতকাল (মঙ্গলবার) আমি একটি গোষ্ঠীর সঙ্গে শান্তিপূর্ণভাবে জার্মানিতে কয়লা খনির সম্প্রসারণের প্রতিবাদ করছিলাম। পুলিশ সে সময় আমাদের আটক করলেও সন্ধ্যার পর ছেড়ে দেওয়া হয়। জলবায়ু সুরক্ষায় আন্দোলন কোনো অপরাধ নয়।

কয়লা খনির সম্প্রসারণকে বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা হিসেবে বর্ণনা করেছেন থুনবার্গ। একই সঙ্গে জার্মানিকে বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম দূষণকারী দেশ হিসেবেও অভিযুক্ত করেছেন তিনি।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ

নতুন লুকে নজর কেড়েছেন নোরা

- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন