English

32 C
Dhaka
বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২
- Advertisement -

বুধবার মুখ্যমন্ত্রী পদে মমতার শপথ

- Advertisements -

নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে তৃতীয়বারের মতো পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতায় বসছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জি। তিনি নতুন সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে আগামী বুধবার (৫ মে) শপথ নেবেন।

সোমবার (৩ মে) বিকেলে তৃণমূল ভবন থেকে বৈঠক শেষে শপথ গ্রহণের জন্য এই দিন ধার্য করা হয় বলে জানিয়েছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কালীঘাটে সংবাদ সম্মেলনের পরে তৃণমূল কার্যালয়ে পরিষদীয় দলের সঙ্গে আলোচনায় বসেন মমতা ব্যানার্জি। বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সামনে এসে  সিদ্ধান্ত জানান মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

Advertisements

তিনি জানান, মমতাই পরিষদীয় দলের নেত্রী নির্বাচিত হয়েছেন। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, আগামী ৫ মে শপথ নেবেন তিনি। তারপর ৬ ও ৭ মে বাকি বিধায়করা শপথ নেবেন।

পার্থ আরও জানান, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, বিধানসভার স্পিকার হবেন বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ই। স্পিকার নির্বাচনের দিন দায়িত্ব পালন করবেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। কারা মন্ত্রী হবেন সে বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি; সেটা মমতা ঠিক করবেন।

সোমবার বিকেলে তৃণমূল ভবনে আসেন মমতা ব্যানার্জি। তিনি নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে মমতাকে বিধানসভার পরিষদীয় দলের দলনেত্রী নির্বাচিত করেন জয়ী বিধায়করা।

এছাড়া বৈঠকে বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘প্রোটেম স্পিকার’ হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। তাকেই বিধানসভার অধ্যক্ষ পদে বসানোর প্রস্তাব দেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন তৃণমূল মহাসচিব। আগামী ৬ মে ‘প্রোটেম স্পিকার’ হিসেবে বিধায়কদের শপথবাক্য পাঠ করাবেন বিমান। আর তার হাতে সুব্রত মুখোপাধ্যায় দায়িত্ব তুলে দেবেন।

Advertisements

এবারের বিধানসভা নির্বাচনে ২৯২ আসনের মধ্যে ২১৩টি আসনে জিতেছে তৃণমূল। যদিও পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ আসন নন্দীগ্রামে জিততে পারেননি মমতা। এই আসনে ফল নিয়ে চরম নাটকীয়তার পর রোববার রাতে নির্বাচন কমিশন ঘোষণা দেয়, নন্দীগ্রামে বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী জিতেছেন।

এর আগে নন্দীগ্রামে পরাজিত মমতা মুখ্যমন্ত্রী হতে পারবেন কি-না এ নিয়ে কথা ওঠে। বলা হয়েছিল, ভারতের সংবিধানের ১৬৩ ও ১৬৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তৃণমূল কংগ্রেসকে ক্ষমতা ধরে রেখে মমতা যদি নন্দীগ্রামে শুভেন্দুর কাছে হেরে যান, তাহলে অন্য কোনো একটি আসন থেকে নির্বাচিত হয়ে আসতে ৬ মাস সময় পাবেন তিনি। সেক্ষেত্রে দলের কোনো এক সদস্যকে পদত্যাগ করে তার আসনটি শূন্য করে দিতে হবে। আর সেখান থেকেই নির্বাচন করে রাজ্যের ২৯৪ আসনের বিধানসভার আইনপ্রণেতা নির্বাচিত হবেন মমতা।

টানা ছয় মাস মন্ত্রী কিংবা মুখ্যমন্ত্রী থাকতে হলে তাকে রাজ্যের কোনো একটি আসন থেকে নির্বাচিত হয়ে আসতে হবে। তা না হলে ১৮০ দিন পর তার পদ বাতিল হয়ে যাবে।

ভারতের সংবিধানের ১৬৩ ও ১৬৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, দেশটিতে কাউকে মুখ্যমন্ত্রী বা রাজ্যের মন্ত্রিপরিষদের সদস্য হতে হলে বিধানসভার সদস্য হতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচন করবেন রাজ্যের বিধানসভার সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতারাই।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন