English

32 C
Dhaka
সোমবার, মে ১৬, ২০২২
- Advertisement -

সাংবাদিক-লেখক গোলাম সারওয়ার-এর আজ দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী

- Advertisements -
Advertisements
Advertisements

সাংবাদিক-লেখক ও গীতিকার গোলাম সারওয়ার-এর আজ দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৩ আগস্ট, চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিঙ্গাপুরে, মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। প্রয়াত এই গুণি মানুষটির স্মৃতির প্রতি জানাই গভীর শ্রদ্ধা এবং তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।
গোলাম সারওয়ার ১৯৪৩ খ্রিষ্টাব্দের ১ এপ্রিল, বরিশাল জেলার বানারীপাড়ায়, জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে, স্নাতকোত্তর (বাংলায়) ডিগ্রি অর্জন করেন।
১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দে ‘দৈনিক পয়গম’-এ যোগ দিয়ে সাংবাদিক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন গোলাম সারওয়ার । এরপরে ‘দৈনিক সংবাদ’-এ বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর বানারীপাড়া ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশনে কিছুদিন প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োজিত ছিলেন। ১৯৭৩ খ্রিষ্টাব্দে ‘দৈনিক ইত্তেফাক’-এ সিনিয়র সহ-সম্পাদক হিসেবে যোগদান করেন। দৈনিক ইত্তেফাক-এ প্রধান সহ-সম্পাদক, যুগ্ম-বার্তা সম্পাদক ও বার্তা সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘ দুই যুগ। ছিলেন সাপ্তাহিক পূর্বাণী’র নির্বাহী-সম্পাদক ।
দীর্ঘদিনের সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা নিয়ে ১৯৯৯ খ্রিষ্টাব্দে প্রতিষ্ঠা করেন ‘দৈনিক যুগান্তর’, তিনি হন প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। ‘দৈনিক সমকাল’ প্রতিষ্ঠা করেন ২০০৫ খ্রিষ্টাব্দে । মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত গোলাম সারওয়ার ‘দৈনিক সমকাল’ পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
সাংবাদিকতার পাশাপাশি তিনি বিভিন্নভাবে জড়িত ছিলেন চলচ্চিত্রের সাথেও। বাজিমাৎ, বউ কথা কও, যদি জানতেম, রাজকুমারী চন্দ্রভান, ভাগ্যবতি’সহ কিছু ছবির জন্য গান লিখেছেন গোলাম সারওয়ার।
লেখালেখিতেও সুনাম অর্জন করেছেন গোলাম সারওয়ার। তাঁর প্রকাশিত গন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য- রঙিন বেলুন (ছড়াগ্রন্থ) এবং প্রবন্ধ সংকলন- সম্পাদকের জবানবন্দি, অমিয় গরল, আমার যত কথা, স্বপ্ন বেঁচে থাক ।
কাজের স্বীকৃতি হিসেবে গোলাম সারওয়ার রাস্ট্রীয় পুরস্কারসহ বিভিন্ন সংস্থা কর্তৃকও পেয়েছেন সম্মাননা।
সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে, একুশে পদকে ভূষিত হন।
২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে, কালচারাল জার্নালিস্টস ফোরাম অব বাংলাদেশ (সিজেএফবি) আজীবন সম্মাননা এবং ২০১৭ খ্রিষ্টাব্দে, আতাউস সামাদ স্মারক ট্রাস্ট আজীবন সম্মাননা লাভ করেন তিনি।
গোলাম সারওয়ার সম্পাদকদের সংগঠন, সম্পাদক পরিষদের সভাপতি ছিলেন। ছিলেন ফিল্ম সেন্সর বোর্ডের আপিল বিভাগের সদস্য । একাধিকবার জাতীয় প্রেসক্লাবের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন তিনি। বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। গোলাম সারওয়ার বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) পরিচালক ছিলেন। বাংলা একাডেমি ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির আজীবন সদস্য তিনি। রাজধানীর খ্যাতনামা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘উত্তরা হাইস্কুল এ্যান্ড কলেজ’র সভাপতি হিসেবে দীর্ঘ ১৮ বছর দায়িত্ব পালন করছেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক-লেখক ও গীতিকার গোলাম সারওয়ার। তাকে অনেকেই ‘সাংবাদিকদের শিক্ষক’ হিসেবে অভিহিত করেন। দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে তাঁর হাতে গড়া অনেক সাংবাদিকই এখন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। আমাদের দেশের পত্রিকা জগতের অনেক নব নব ধারার সৃষ্টি করেছেন তিনি।
একজন সাংবাদিক হয়েও, দেশকে শত্রুমুক্ত করতে, স্বাধীন করতে, মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছেন । একজন দেশপ্রেমিক এবং এদেশের একজন প্রথিতযশা সাংবাদিক হিসেবে মানুষ তাকে বহুকাল মনে রাখবে।
বাংলাদেশের সংবাদপত্রের জগতে গোলাম সারওয়ারের অনন্য অবদান, অবশ্যই ইতিহাস হয়ে থাকবে।
(তথ্যসূত্র ও ছবি- ইন্টারনেট থেকে নেয়া)

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন