English

30 C
Dhaka
বুধবার, জুলাই ৬, ২০২২
- Advertisement -

পদ্মা সেতু আমাদের সাহসের প্রতীক, প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার অনন্য সৃষ্টি: স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী

- Advertisements -

জয়পুরহাট প্রতিনিধি: স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, পদ্মা সেতু আমাদের সাহসের প্রতীক, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনন্য সৃষ্টি। তার সাহসেই এই ধরনের সেতু তৈরি করা সম্ভব হয়েছে। শেখ হাসিনার হাজারো উদ্যোগের মাঝে এই সেতু অনন্তঃকাল আওয়ামীলীগের উন্নয়নের নজির হয়ে থাকবে।

বুধবার দুপরে জয়পুরহাট পুলিশ লাইন্স স্কুল মাঠে শহীদ পুলিশ সুপার নজমুল হক পুলিশ লাইন্স হাইস্কুলের নামকরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

Advertisements

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে যেভাবে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে একমাত্রতার তার পক্ষেই সব কিছু সম্ভব।

মন্ত্রী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, তোমাদের ভাগ্য এত ভাল যে, একজন মুক্তিযোদ্ধার নামের স্কুলে তোমরা পড়তে পারতেছ।

বাংলাদেশ পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জ এর ডিআইজি আব্দুল বাতেনের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. সামছুল আলম দুদু, জেলা প্রশাসক মো. শরীফুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা, জেলা পরিষদের প্রশাসক ও জেলা আ’লীগের সভাপতি আরিফুর রহমান রহমান রকেট, সাধারন সম্পাদক জাকির হোসেনসহ স্থানীয় সরকার দলীয় নেতৃবৃন্দরা।

Advertisements

এদিকে, সদর থানার চকবরকত পুলিশ ফাঁড়ির নবনির্মিত ভবন ও পুলিশ লাইন্সের নবনির্মিত মুক্তিযুদ্ধে কর্নার গৌরবময় স্বাধীনতা’র শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। পরে বিকেলে সন্ত্রাস, জঙ্গী ও মাদক বিরোধী সমাবেশে জেলার শতাধিক মাদক ব্যবসায়ীর স্বাভাবিক জীবনে প্রত্যাবর্তন ও অবৈধ কিডনি পাচার চক্রের প্রতারণার শিকার প্রায় ১৫জন অসহায়, দুস্থ ও অসুন্থ কিডনি দাতাদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে চট্রগ্রামের পুলিশ সুপার ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নজমুল হক। তার বাড়ি নওগাঁ জেলায়। তাঁর মেয়ে ডা. হাজরা শিরিন জয়পুরহাটে কর্মরত ছিলেন। তার জামাই ডাক্তার এম এ খালেক জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার বাসিন্দা। মূলত মেয়ে ডা. হাজরা শিরিনের উদ্যোগে জয়পুরহাট পুলিশ স্কুলটির নামকরণে উদ্যোগ নেয়।

ইতিপূর্বে শহীদ পুলিশ সুপারে পরিবার এ বিদ্যালয়ের উন্নয়নে বিশ লাখ টাকা অনুদান দেন। আজ আরো পনের লাখ টাকা ও একটি কম্পিউটার অনুদান হিসেবে দেন। এছাড়াও ডা. এম এ খালেক বলেন, যতদিন তার পরিবার বেচে থাকবেন ততদিন এ স্কুলের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাবেন আশা ব্যক্ত করেন।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন