English

30 C
Dhaka
শুক্রবার, আগস্ট ১৯, ২০২২
- Advertisement -

‘নিরাপদ সড়কের জন্য চাই সচেতন ড্রাইভার’

- Advertisements -
Advertisements
Advertisements

এমন এক বিষয়ের আজ অবতারণা করছি, যা নিয়ে অনেক লেখালেখি হয়েছে। এত লেখালেখির পরও বিষয়টি নিয়ে আবারো লিখতে হচ্ছে। বিষয়টি দুঃখজনক। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে দেশে রাস্তাঘাট এত বেশি ছিল না। এত উন্নয়নও ছিল না। ছিল না ফ্লাইওভার, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ধারণা। পুরো দেশে হাইওয়ের পরিমাণ ছিল মাত্র ৬ থেকে ৭ হাজার কিলোমিটার। আঞ্চলিক সড়ক ছিল না বললেই চলে।
তিন দশকের ব্যবধানে দেশে তাক লাগানো উন্নয়ন হয়েছে। রাস্তাঘাটের পরিমাণ অনেক বেড়েছে। সড়কের মাঝখানে ডিভাইডার এসেছে, সড়কের উপর উড়াল সড়ক হয়েছে। ফ্লাইওভার দিয়ে শাঁ শাঁ করে গাড়ি চলে। ফেরি পারাপার প্রায় নেই বললেই চলে। পদ্মা, মেঘনা, যমুনার উপর সেতু হয়েছে। বর্তমানে দেশে শুধু হাইওয়ের পরিমাণ হচ্ছে ২৫ হাজার কিলোমিটারের বেশি।
আঞ্চলিক সড়কের পরিমাণ পৌনে দুই লাখ কিলোমিটার। আমাদের রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। রোড মেকানিজমে উন্নয়ন ঘটেছে। জীবনযাত্রায় এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন, উন্নয়ন। কিন্তু যেটি সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সেই সচেতনতার খুব বেশি উন্নয়ন ঘটেনি। আর সচেতনতার উন্নতি হয়নি বলেই গত কয়েক বছর ধরে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন করতে হচ্ছে। নিরাপদ সড়কের দাবি করা হচ্ছে। এখানে আমার একটু ভিন্নমত রয়েছে। আমি সড়ক-মহাসড়কের দোষ দিই না, দিতে পারি না। সড়ক হচ্ছে একটি জড় পদার্থ।
নিজেকে অনিরাপদ করার কোনো শক্তিই তার নেই। রাস্তা কাউকে আপদে ফেলতে পারে না। এই রাস্তার সাথে আপদ যুক্ত করছি আমি, আপনি, আমরা। আমরাই দিনে দিনে সড়ককে অনিরাপদ করে রক্তাক্ত করছি। আমরা প্রত্যেকে যদি সচেতন হই, আইন মানি, নিজেকে সঠিক পথে পরিচালিত করি তাহলে সড়ক কখনো অনিরাপদ হবে না। শুধুমাত্র আইন মেনে চলাচল করলে বহু সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করা যাবে, ঠেকানো যাবে বহু অঘটন। দেশের প্রতিটি সড়ক-মহাসড়কই নিরাপদ হয়ে উঠবে।
এখানে নতুন একটি আপদের কথা আপনাদের সামনে তুলে ধরতে চাই। গত এক দশক আগেও এই আপদ এত প্রকট ছিল না। এত প্রাণহানির ঘটনাও ঘটত না। সেটি হচ্ছে মোটরসাইকেল। অত্যন্ত জনপ্রিয় এই বাহনের ব্যবহার পৃথিবীর উন্নত-অনুন্নত সব দেশেই আছে। কিন্তু দুনিয়ার কোথাও এত বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানোর নজির আছে বলে আমার জানা নেই। আমাদের দেশে একসময় মোটরসাইকেলের এমন জৌলুস ছিল না। হোন্ডা কিংবা ইয়ামাহা ব্র্যান্ডের সর্বোচ্চ একশ সিসির মোটরসাইকেল ছিল। রাস্তার পাশ দিয়ে চলাচল করত। মোবিলিটির জন্য অত্যন্ত জনপ্রিয় এই বাহনের বহুমুখী উন্নয়ন ঘটেছে। নানাভাবে চৌকশ করা হয়েছে। বেড়েছে সিসি।
ইউরোপ-আমেরিকায় হাইওয়েতে সবচাইতে জনপ্রিয় মোটরসাইকেল হলো হার্লে ডেভিডসন এইগুলো এত শক্তিশালী যে এরা অনায়াসে ২৫০০/৩০০০ সিসির গাড়িকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যেতে পারে। আর যারা চালায় তারাও বেশ মোটা তাগড়া। হেলমেট, জ্যাকেট পরে দুর্ঘটনায় নিজেকে সুরক্ষার প্রস্তুতি নিয়েই যাত্রা শুরু করে। প্রায় সময় তারা ৪/৫ জন দলবদ্ধ হয়ে চলে।
জ্বালানি খরচ সাশ্রয় এবং নান্দনিকতায় আগেকার যেকোনো সময়ের তুলনায় মোটরসাইকেল বর্তমানে স্বর্ণযুগ পার করছে। কিন্তু এই জনপ্রিয় বাহনটিই রাস্তায় নতুন আপদ হিসেবে দেখা দিয়েছে। রং সাইডে চলাচল না করলে যেন মোটরসাইকেলকে মানায় না-এমন একটি ভাব বহু চালকের। অধিকাংশ মোটরসাইকেল চালকই প্রচণ্ড স্পিডে শাঁ করে গাড়ির বাম পাশ দিয়ে এসে ডানে এমনভাবে বাঁক নেয় যেন তিনি বিশ্বজয় করে এই মাত্র হাজির হয়েছেন। অপরদিকে রং সাইড থেকে হুট করে বের হওয়া মোটরসাইকেলকে রক্ষা করতে স্পিডে থাকা গাড়িগুলোর অবস্থা টালমাটাল হয়ে ওঠে। অনেক চালক কন্ট্রোল করতে পারেন, অনেকেই পারেন না। ঘটে দুর্ঘটনা। সড়ক রক্তাক্ত হয়। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও প্রাণহানির মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। আমি বলছি না এসব দুর্ঘটনার সবগুলোই মোটরসাইকেল চালকের দোষ। তবে সচেতন হলেই রক্তাক্ত এসব দুর্ঘটনা বহুলাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব।
দুঃখজনক একটি পরিসংখ্যানের কথা এখানে উল্লেখ করতে চাই। গত এক বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় পাঁচ হাজারের মতো মানুষ মারা গেছেন। এর মধ্যে ১২শ জনের বেশি বিভিন্ন যানবাহনের চালক।

ইদানীং আরেকটা দিক লক্ষ্যণীয়, চালকদের ৯০ ভাগেরই দাড়ি-গোঁফ গজায়নি, অর্থাৎ বয়স ১৮ বছরের নিচে। লাইসেন্স পাওয়ার বয়সই হয়নি। আরো একটা কথা বলে রাখতে চাই, এখন আর লাইসেন্স লাগে না, টোকেন লাগে। এই ফাঁকে সরকার কত টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে, তা সহজেই অনুমেয়।
ভাবা যায়, যে দেশে চালকের সংখ্যা গাড়ি থেকে কম সেই দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় এক বছরে ১২শর বেশি চালক মারা যায়! যেকোনো মৃত্যুই কষ্টের। তবে এই ধরনের সম্পদগুলো যখন হারিয়ে যায় তখন কষ্টটা আরো একটু বেশি লাগে। একজন মানুষ শুধু একজনই নন, তিনি হয়তো কারো বাবা, কারো সন্তান, সর্বোপরি কেউ কেউ একটি পরিবারের একমাত্র অবলম্বন। একটু সচেতনতার অভাবে সেই মানুষটি যখন মারা যায় তখন আসলে ওই পরিবারে একটি পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। যার ওপর দিয়ে যায় শুধু তিনিই বুঝেন কি গেল বা কি হারালেন। অথচ একটু সচেতন হলে, সতর্কতার সাথে গাড়ি চালালে কিংবা আইন মেনে চলাচল করলে এসব দুর্ঘটনার অধিকাংশই ঠেকানো যেত। গাড়ির অনিয়ন্ত্রিত গতি দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। নিয়ন্ত্রিত গাড়ি চালালে সড়কে সিংহভাগ দুর্ঘটনা কমে যাবে। তাই এখন গাড়ির গতি কমিয়ে জীবন বাঁচাতে হবে। রাস্তায় বেঁধে দেওয়া গাড়ির গতিসীমা মেনে চলতে হবে, সচেতনভাবেই আইন মেনে চলতে হবে। রাস্তার টেক-বাঁকগুলো আরো একটু সহজ, সরল করা যায়। বিদেশে দেখেছি, সরু রাস্তার বাঁকে বড় বড় আয়না দেওয়া থাকে, যা দেখে চালক দেখতে পারে অন্য দিক থেকে কোনো গাড়ি আসছে কিনা।
এবার একটু ভিন্ন প্রসঙ্গে আসি। চট্টগ্রাম শহরের রাস্তাগুলো খানাখন্দে ভরপুর। শহরের অতি গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যস্ত কয়েকটি সড়ক তো বন্ধই। কোনো গাড়িই চলাচল করতে পারে না। যেগুলোতে গাড়ি চলাচল করে সেগুলোতে এত বেশি খানাখন্দ যে, গুনে শেষ করা যাবে না। শুধুমাত্র চট্টগ্রাম শহরের রাস্তায় যে পরিমাণ গর্ত রয়েছে পৃথিবীর সব দেশের সড়ক মিলে এতগুলো গর্ত আছে কিনা আমার সন্দেহ রয়েছে। বহু দেশে গিয়েছি, কিন্তু কোথাও সড়কে এত গর্ত দেখিনি। উন্নত বিশ্বের কথা বাদ দিন, আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতের রাস্তায়ও কোনো গর্ত নেই। ভারতের দিল্লি, মুম্বাই, কোলকাতা, হায়দ্রাবাদ, চেন্নাইয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোর কথা না হয় বাদই দিলাম, কয়েক হাজার ফুট উপরের সিমলা মানালির পাহাড়ি রাস্তায়ও একটি গর্তের দেখা পাওয়া যাবে না। সড়কে এই গর্ত বিদ্যমান রাখার পেছনে খুচরা যন্ত্রাংশ আমদানিকারকদের পরোক্ষ কোনো হাত আছে কিনা ভেবে দেখা দরকার।
শুধু সড়কই নয়, এখন ফুটপাত নিরাপদ করার দাবি জানানোর সময় এসেছে। শহরের ফুটপাতের পাশেই অগুনতি মৃত্যুকূপ। শহরে ফুটপাত থেকে পড়ে মানুষ মারা যাবে, এটা কি ভাবা যায়! আবার শহরের বুকে ফুটপাত থেকে নালায় পড়া একজন মানুষের মৃতদেহ খুঁজে পাওয়া যাবে না; এটা কি মেনে নেওয়া যায়? ফুটপাতে পড়ে একজন মানুষ পানিতে তলিয়ে গেলেন, অথচ পরিবার তার লাশটিই খুঁজে পেল না। এর থেকে বড় দুর্ভাগ্য আর কি হতে পারে! শহরের বুকে ফুটপাত থেকে নালায় পড়ে মারা গেলেন ব্যবসায়ী সালেহ আহমদ। একইভাবে মারা গেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী সাদিয়া। সাদিয়ার পরিবার ভাগ্যবান (?) তারা লাশটি খুঁজে পেয়েছে। অভাগা সালেহ আহমদের পরিবার লাশটিও খুঁজে পায়নি দুই মাসেরও বেশি সময়ে। এই ধরনের ঘটনার জন্য আমি সিটি কর্পোরেশন বা সিডিএকে দায়ী করি না। আমি আমাকেই দায়ী করি। এজন্য আমি সবার কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি। একটি সংবাদপত্রের সম্পাদক হিসেবে ফুটপাত এবং সড়কের অব্যবস্থাপনা এবং অনিয়ম নিয়ে আমরা প্রচুর সংবাদ, প্রতিবেদন প্রকাশ করেছি, লেখালেখি করেছি। অনেক ছবি ছাপিয়েছি। কিন্তু আমার দুর্ভাগ্য, আমরা সংশ্লিষ্টদের কাছে তা পৌঁছাতে পারিনি। তারা সচেতন হননি, ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। আমি যদি যথাযথভাবে লেখাগুলো তাদের কানে পৌঁছাতে পারতাম তাহলে এই ধরনের অঘটন ঘটত না। ফুটপাত ধরে হাঁটতে গিয়ে নালায় পড়ে মানুষের জীবন প্রদীপ নিভে যেত না। এই ব্যর্থতা আমার, এই দায় আমার।
সড়ক দুর্ঘটনা শুধু সড়কের উপর নির্ভর করে না। আনুষাঙ্গিক আরো বহু কিছু এর জন্য দায়ী। তবে সবচেয়ে বেশি জরুরি হচ্ছে চালকের সচেতনতা। একজন চালক যদি ফিটনেসবিহীন গাড়ি নিয়ে রাস্তায় না নামেন, একজন চালক যদি ট্রাফিক আইন লংঘন করে ঝড়ের গতি না তোলেন, একজন চালক যদি মোবাইলে কথা বলতে বলতে কিংবা পারিবারিক অশান্তি নিয়ে ঝগড়া করতে করতে নিয়ন্ত্রণহীন গতিতে গাড়ি না চালান, নেশাগ্রস্ত না থাকেন, তাহলে আমি হলফ করে বলতে পারি যে, সড়ক দুর্ঘটনা বহুলাংশেই কমে যাবে। তবে এজন্য সবাইকেই একইভাবে সচেতন হতে হবে।
এবার একটু বিদেশের ড্রাইভারের কথা বলি। উন্নত বিশ্বে একজন ড্রাইভার ছয় ঘণ্টার বেশি গাড়ি চালান না। ছয় ঘণ্টা পর নির্দিষ্ট স্টপেজে অন্য ড্রাইভার এসে গাড়ির স্টিয়ারিংয়ের নিয়ন্ত্রণ নেন। আগের ড্রাইভার নেমে নিজের গাড়ি চালিয়ে ঘরে চলে যান। আবার একটি বাস কতক্ষণ চলবে তাও নির্ধারিত। নির্দিষ্ট সময়ের এক ঘণ্টা বেশিও কোনো গাড়ি চলবে না। চুরি করে চালানোরও কোনো সুযোগ নেই। সিসিটিভি ক্যামেরাসহ প্রযুক্তির এত উৎকর্ষতা সাধন করেছে যে, কোনো গাড়ি কতক্ষণ চলেছে তার রেকর্ড তাদের সংশ্লিষ্ট দফতরে প্রতিনিয়ত আপডেট হয়। তারা বলতে পারে এই মুহূর্তে গাড়িটি কোথায় আছে। এর ব্যত্যয় হলে বাসার ঠিকানায় মামলার কাগজ ও জরিমানার স্লিপ পৌঁছে যায়; যা পরিশোধ না করে রাস্তায় নামার সুযোগ থাকে না। আরো একটি ব্যাপার আছে।
বিদেশের কোনো রাস্তায় কত কিলোমিটার বেগে গাড়ি চালাতে পারবেন তা নির্দিষ্ট করা আছে। রাতে, দিনের যেকোনো সময়ে নির্দিষ্ট গতিবেগের চেয়ে বেশি স্পিডে গাড়ি চালালে গোপন ক্যামেরায় তা ধরা পড়ে। এক্ষেত্রেও বাসার ঠিকানায় জরিমানার স্লিপ এবং মামলার কাগজ চলে যায়। কোন দিন কতটার সময় কোন কালারের শার্ট পরে আপনি কত বেগে গাড়ি চালিয়ে আইন লংঘন করেছেন তার বিস্তারিত তথ্য তাদের কাছে সংরক্ষিত থাকে। শুধু জরিমানা দিয়ে পার পাওয়া যায় না। ড্রাইভিং লাইসেন্সের পয়েন্টও কাটা পড়ে। এভাবে কয়েক দফা কাটা পড়লে ওই চালক জীবনের তরে গাড়ি চালানোর অধিকার হারিয়ে ফেলেন।
কোরিয়ার রাজধানী সিউল থেকে বাসে করে বুসান যাচ্ছিলাম। লক্ষ্য করলাম সমস্ত রাস্তায় ড্রাইভারকে চাঙ্গা রাখার জন্যে একজন সুন্দরী নারী রাখা হয়েছে, যে সারা রাস্তায় চালকের সঙ্গে কথা বলে যাচ্ছিল। দেখুন তারা যাত্রী সুরক্ষায় কত তৎপর। এই ছয় ঘণ্টা ওই বাসের সব কাজই তিনি করেন। কোনো হেলপার থাকে না, সহকারী থাকে না। বাসের সেন্সরে কার্ড ছোঁয়ালে ভাড়া আদায় হয় কিংবা নির্দিষ্ট বঙে টাকা রেখে দিলেই হয়। ড্রাইভার লুকিং গ্লাসে যাত্রী ওঠানামা এবং ভাড়ার ব্যাপারটি পরীক্ষা করেন। লাগেজ লকারের চাবি ড্রাইভার খুলে দেন, যাত্রীরা নিজেদের লাগেজ নিজেরাই ওঠানো নামানো সারেন। ছয় ঘণ্টা বাসটি সুষ্ঠুভাবে চালিয়ে নির্দিষ্ট স্থানে তিনি গাড়ি থেকে নিরাপদে নেমে পড়েন।
একজন চালক শুধু একজন চালকই নন, তার উপর বহু মানুষেরই জীবন নির্ভর করে। একটি বাসে চল্লিশ বা আরো বেশি মানুষ থাকে। একটি প্রাইভেট গাড়িতেও থাকে তিন থেকে দশ-বারো জন মানুষ। অন্যদের কথা বাদ দিয়ে শুধুমাত্র নিজের জন্য, নিজের পরিবারের জন্যও যদি একজন চালক সুন্দরভাবে গাড়ি চালান তাহলে দুর্ঘটনার পরিমাণ বহু কমে যাবে। নিজের এবং যাত্রীদের জীবন রক্ষার জন্য সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই।
জীবন একটি। এই জীবনটি একবার চলে গেলে আর কোনোদিন ফিরে আসবে না। কোনো অজুহাতই জীবন ফিরিয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে কাজ করবে না। নিজের জন্য, নিজের সন্তানের জন্য, নিজের পরিবারের জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে, বেঁচে থাকতে হবে। অসচেতনতা কিংবা বেপরোয়া গতির জন্য কেউ মারা গেলে তার পরিবারের কষ্ট দুনিয়ার অন্য কেউ লাঘব করতে পারবে না। কেউ করবেও না।
আজ মরে গেলে কাল খবর নেওয়ার কেউ থাকবে না। নিজে মরে গিয়ে বেঁচে গেলেও স্ত্রী-পুত্র পরিবার বেঁচে থেকে নরক যন্ত্রণা ভোগ করবে। তাই নিজের আদরের সন্তানের জন্য, নিজের প্রিয় মায়ের জন্য, নিজের প্রিয়তমা স্ত্রীর জন্য এবং সর্বোপরি নিজের নিরাপত্তার জন্য আইন মেনে নিয়ন্ত্রিত গতিতে সুষ্ঠুভাবে গাড়ি চালালে অনেক অঘটনই ঠেকানো যাবে। আর এই সচেতনতাই আমি, আপনি, আমরা, আপনার সন্তান, পরিবার, আপনার প্রতিবেশী, সমাজ এবং সর্বোপরি আমাদের এই প্রিয় স্বদেশকে নিরাপদ রাখবে।

লেখক : মোহাম্মদ আবদুল মালেক, সম্পাদক, দৈনিক আজাদী, চট্টগ্রাম।
সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ

আল কোরআন ও আল হাদিস

আজকের রাশিফল

- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন