English

28 C
Dhaka
বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
- Advertisement -

বগুড়া জেলা নিসচা এর আয়োজনে রেল যাত্রীদের মাঝে সচেতনতামুলক কর্মশালা এবং লিফলেট বিতরণ

- Advertisements -

গোলাম রব্বানী শিপন, বগুড়া: রেলযাত্রীদের সচেতন করতে নিরাপদ সড়ক চাই বগুড়া জেলা শাখার আয়োজনে বিশেষ আলোচনা ও সচেতনামূলক লিফট বিতরন করা হয়েছে।

Advertisements

সোমবার ১৫ আগস্ট বিকালে বগুড়ার রেলস্টেশনে এই কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। এসময় নিরাপদ সড়ক চাই বগুড়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক রকিবুল ইসলাম সোহাগ দুর্ঘটনার বেশকিছু কারন উল্লেখ করে বলেন, দেশে আশঙ্কা হারে রেল ক্রসিংয়ে দুর্ঘটনা ঘটছে। এটি যেনো নিত্যকার ঘটনায় পরিণত হয়েছে। বিস্ময়কর ব্যাপার হচ্ছে, নিরাপদ পরিবহন ব্যবস্থা হিসেবে ট্রেন বিবেচিত হলেও এর চলাচলের পথে দুর্ঘটনা প্রায় নিয়মিত ঘটছে। এসব দুর্ঘটনার মূল কারণ হিসেবে অরক্ষিত রেলপথ, অবৈধ লেভেলক্রসিং, গেটম্যানের অভাব এবং চলাচলকারীদের অসচেতনতা। অনেকাংশে সমস্যা চিহ্নিত হলেও রেল কর্তৃপক্ষে তা সমাধানে কার্যকর উদ্যোগ কমই দেখা যায়, যার ফলে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটে চলেছে। লেভেলক্রসিংয়ে সবসময় গেটম্যান যেমন থাকে না, তেমনি অবৈধ ক্রসিংয়ে কেউই থাকে না। অবৈধ ক্রসিং বন্ধ করারও কোনো উদ্যোগ রেল কর্তৃপক্ষ আজ পর্যন্ত নেয়নি। এর ফলে যেকোনো এলাকায় স্থানীয়রা লেভেলক্রসিং সৃষ্টি করে রেলপথকে বিপজ্জনক করে তুলেছে। বিশ্বের আর কোথাও এভাবে লেভেলক্রসিং তৈরি হয় বলে আমাদের জানা নেই।

Advertisements

লেভেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় যেসব দুর্ঘটনা ঘটেছে, এক্ষেত্রে গেটম্যানের অবহেলা ও অবৈধ লেভেল ক্রসিংয়ের যেমন দায় রয়েছে, তেমনি বেপরোয়া ভাবে চলা দুর্ঘটনার শিকারদেরও দায় রয়েছে। গাড়ি নিয়ে লেভেলক্রসিং পার হওয়ার সময় চালক চলন্ত ট্রেন দেখবে না, এটা হতে পারে না। নিরাপদ দূরত্ব থেকেই ট্রেন দেখা যায়। তারপরও লেভেলক্রসিং পার হওয়ার সময় গাড়ির চালক ও যাত্রীরা কেন সচেতন হবে না? কেন তারা বিপজ্জনকভাবে পার হতে যাবে? রেল লাইনে শুধু গাড়ি দুর্ঘটনাই নয়, অনেক অসচেতন লোকজনও কাটা পড়ে নিহত হয়েছে। অনেক তরুণ-তরুণী কানে হেডফোন লাগিয়ে রেল লাইনের উপর দিয়ে হাঁটতে গিয়ে ট্রেনের নিচে পড়েছে। অনেকেই আবার চলন্ত ট্রেনের জানালা দিয়ে মাথা বের করে মোবাইলে সেলফি তোলার সময় মাথায় আঘাত পেয়ে মৃত্যুবরণ করছে এসবই চরম অসচেতনতা। বলা বাহুল্য, চলন্ত ট্রেন গাড়ির মতো যখন-তখন, যেখানে-সেখানে ব্রেক চেপে থামানো যায় না। এটি গতিশীল এবং নির্দিষ্ট স্টেশন ছাড়া কোথাও থামে না। এই বিষয়টি সম্পর্কে সকলেরই অবগত থাকা আবশ্যক। এক্ষেত্রে ট্রেন কর্তৃপক্ষকে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করতে হবে। ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালাতে হবে। এরই ধারাবাহিকতায় আজকের এই জনসচেতনতামূলক কর্মশালা এবং লিফলেট বিতরণ

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বগুড়া রেলস্টেশন এর ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আল-আমিন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ইমরান তালুকদার নিপু, দপ্তর সম্পাদক জাহিদুর রহমান, কার্যনির্বাহী সদস্য ডাঃ আবু রায়হান প্রমূখ।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন