English

29 C
Dhaka
শনিবার, জুন ১৫, ২০২৪
- Advertisement -

আজিজ-বেনজীরের মতো দুর্নীতিবাজদের গ্রেপ্তার করতে হবে: নুর

- Advertisements -
বাজার কারসাজি, দুর্নীতি, লুটপাট ও অর্থ পাচারের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে আজ শুক্রবার (২৪ মে) বিকেল সাড়ে ৩টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে গণঅধিকার পরিষদ ঢাকা মহানগর উত্তর- দক্ষিণ। সমাবেশ শেষে প্রেস ক্লাব থেকে মিছিল শুরু করে বিজয়নগর পানিরট্যাংকির মোড়ে গিয়ে শেষ হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি ডাকসুর সাবেক নুরুল হক নুর বলেন, ‘স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী কয়েক ঘণ্টায় এমপি আনারের হত্যার তথ্য দিলেন অথচ এক যুগ পার হলেও সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যার তথ্য দিতে পারেন না। তার মানে সরকার হত্যাকারীদের রক্ষা করছে।

দুর্নীতি ও গণতন্ত্রকে বাধাগ্রস্ত করায় সাবেক সেনা প্রধান জেনারেল আজিজকে যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। জেনারেল আজিজ তার প্রভাব খাটিয়ে তার সন্ত্রাসী ভাইদের রাষ্ট্রপতির ক্ষমায় মুক্ত করেছেন। আজিজের মতো সন্ত্রাসী পরিবারের একজন সদস্যকে সেনাপ্রধান বানিয়েছে কে?’
 

তিনি আরো বলেন, ‘সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীরের হাজার কোটি টাকার সম্পদ। সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীরকে ডিএমপি কমিশনার থেকে র‍্যাব প্রধান, পুলিশ প্রধান কে বানিয়েছে? এ দায় সরকার ও সরকার প্রধান এড়াতে পারে না।

আজিজ, বেনজীরের মতো আরো অনেক দুর্নীতিবাজ, দুর্বৃত্ত আছে হোক সে ব্যবসায়ী, আমলা সকলকে গ্রেপ্তার করতে হবে। রাজনৈতিক আন্দোলনের পাশাপাশি, দুর্নীতি, লুটপাট, দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। সামাজিক আন্দোলনকে রাজনৈতিক আন্দোলনে পরিণত করে রাজপথে তারুণ্যের বিপ্লবে ফ্যাসিবাদের পতন ঘটাতে হবে। তার জন্য রাজপথের সাহসী নেতৃত্ব প্রয়োজন।
মুক্তিযুদ্ধের মতো তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে।’
সরকার প্রধান ৪০/৪২টা টেলিভিশন আর পত্র-পত্রিকার সাংবাদিক ডেকে বার বার ভোট, নির্বাচন নিয়ে মিথ্যাচার করছে উল্লেখ করে নুর বলেন, ‘লুটেরা, চোর-ডাকাতরা জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে জোরজবরদস্তি করে দেশ চালাচ্ছে। এভাবে দেশ চলতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন দেশ ভাড়া দিয়ে তো ক্ষমতায় থাকবো না। ভাড়া দেবেন কি, দেশ তো ভারতের কাছে বিক্রি করেই ক্ষমতায় আছেন।
আপনারা ভারতের ইজারাদার হয়ে দেশ চালাচ্ছে। আর বন্ধু রাষ্ট্র আপনাদের এমপিদের হাড়-মাংস আলাদা করে হত্যা করছে।আমরা প্রতিহিংসার রাজনীতি চাই না। তাই সরকারকে অনুরোধ করবো এখনও সময় আছে নিজেদের ভুলের জন্য জনগণের কাছে ক্ষমা চান ,,সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দিন।’গণঅধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. রাশেদ খাঁন বলেন, ‘দেশটা আজ খাদের কিনারে। সাবেক সেনাপ্রধান, পুলিশ প্রধানদের দুর্নীতি, অপকর্ম আন্তর্জাতিক মহলের কাছে বাংলাদেশিদের হেয়-প্রতিপন্ন করেছে। আজিজ, বেনজীররা গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে মাফিয়াতন্ত্র কায়েমে সরকারকে সহযোগিতা করেছে। এখন সরকার বলছে, তাদের দায় নেবে না। প্রশাসনে আরো যারা আজিজ, বেনজীর আছে এই ঘটনা থেকে তাদের শিক্ষা নেওয়া দরকার। সরকার প্রধান বলেছেন, বঙ্গোপসাগরে ঘাটি করার প্রস্তাব দিয়েছিল এক শেতাঙ্গ। আমরা জানতে চাই, ঘটনা সত্যি হলে তার নাম বলেন। আর কারা খ্রিস্টান রাজ্য বানাতে ষড়যন্ত্র করছে? আপনার কাছে তথ্য থাকলে সেগুলো জাতির কাছে খোলাসা করেন, অন্যথায় বক্তব্যের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আওয়ামী লীগের একজন এমপি চোরাকারবারি ও অবৈধ ব্যবসার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সব তথ্য সরকার বের করেছে, অথচ সাগর-রুনি হত্যার প্রতিবেদন শতবারের বেশি পিছিয়েছে। সরকার ইচ্ছে করেই সাগর-রুনির হত্যাকারীদের ধরে না। আমরা দেশে প্রতিহিংসা চাই না। আমরা সরকারকে বলব, পদত্যাগ করে সকল দলকে নিয়ে জাতীয় ঐক্যমত প্রতিষ্ঠায় কাজ করুন, তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন। অন্যথায় দেশে যে সংকট শুরু হয়েছে, তা আরো ঘনীভূত হবে।’

গণঅধিকার পরিষদ ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক নুরুল করিম শাকিলের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য দেন গণঅধিকার পরিষদের উচ্চতর পরিষদের সদস্য আবু হানিফ, শাকিল উজ্জামান, অ্যাড. নুরে এরশাদ সিদ্দিকী, সহসভাপতি বিপ্লব কুমার পোদ্দার, সিনি. যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান আল মামুন, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক খালিদ হাসান,আইন সম্পাদক অ্যাড. শওকত হোসেন, প্রচার সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি নাজিম উদ্দীন, যুব অধিকার পরিষদের সভাপতি মনজুর মোর্শেদ মামুন, সাধারণ সম্পাদক নাদিম হাসান, শ্রমিক অধিকার পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহমান প্রমুখ।
সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন