English

23 C
Dhaka
মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২৩
- Advertisement -

সিলেটে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ, দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ

- Advertisements -

জহিরুল ইসলাম মিশু,সিলেট ব্যুরো,নিরাপদ নিউজঃ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, খালেদা জিয়ার মুক্তি, তত্ত্বাবধায়ক সরকার, সংসদকে বিলুপ্ত, সরকারকে পদত্যাগসহ বিভিন্ন দাবিতে শনিবার সিলেটে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশকে সামনে রেখে সরকারি আলিয়া মাদরাসা মাঠে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

সিলেটে দলটির গণসমাবেশ ঘিরে নেতাকর্মীরা মাঠে আসতে শুরু করেছেন। এসময় তারা ছোট-বড় মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে প্রবেশ করছেন।শুক্রবার সমাবেশস্থল গিয়ে দেখা গেছে, এরই মধ্যে কয়েক হাজার নেতাকর্মী সমাবেশস্থল সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা মাঠে অস্থায়ী প্যান্ডেলে অবস্থান করছেন। সমাবেশস্থলে নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে চলছে স্লোগান।

বিভিন্ন ক্যাম্পে ও মাঠের ভেতর যেন উৎসবের আমেজ।এদিকে সমাবেশস্থলের চারপাশে সিলেটের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা ও থানাভিত্তিক বড় বড় ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে। সেসব ক্যাম্পে এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীরা আগে থেকেই অবস্থান নিয়েছেন।

Advertisements

শুক্রবার সকালে সমাবেশস্থল পরিদর্শন করে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান,বিএনপির গণসমাবেশ আগামীকাল শনিবার। তবে আগামীকাল নয়, আজ রাতের মধ্যেই সিলেট নগরীর জনসমুদ্রে পরিণত হয়ে যাবে।আমাদের সমস্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। মাঠের সমস্ত কাজ সম্পন্ন। জুম্মার পরে থেকে এই সিলেট নগরী একটি জনসমুদ্রে পরিণত হবে। যেটা আপনারা আগামীকাল আশা করছেন, সেটা আজকে রাতের মধ্যেই দেখবেন। যে সমস্ত শহর লোকে লোকারণ্য হয়ে পড়বে।

আরিফ আরও বলেন, বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে জনতা আসছে। বাধা-বিপত্তি যে হচ্ছে না, সেটা কেউ বলতে পারবে না। প্রতিটা মুহূর্তে, প্রতিটা জায়গায় সুযোগ পেলেই চুলকানি দেওয়া হচ্ছে। তবে একটা কথা বিশ্বাস আমার, সিলেটে একটা রাজনৈতিক সম্প্রীতি আছে। আমরা প্রত্যেকে প্রত্যেকের গণতান্ত্রিক অধিকার দেওয়ার জন্য এমন মানুষ সিলেটে আছে। কাজেই এখানে অতিউৎসাহী কোনো কর্মকর্তা বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিউৎসাহী দু-চারজন ছাড়া আমরা সর্বাত্মক সহযোগিতা পেলেও বাইরের কিছু অতিউৎসাহী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা দুই-চারটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটাচ্ছেন বলে আমরা খবর পাচ্ছি।

বিএনপি নেতা ও হবিগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র জি কে গৌউছ বলেন,নবীগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্যসহ মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ ও সিলেটের বিভিন্ন উপজেলার কমপক্ষে ২০টি ক্যাম্প রয়েছে। আগাম গণসমাবেশে আসা এসব কর্মীরা গতকাল বৃহস্পতিবার রাত থেকেই ক্যাম্পে অবস্থান করেন। আর সেখানেই তাদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা হয়।

এদিকে সিলেটে শনিবার ধর্মঘট ডেকছে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনগুলো। তবে শুক্রবার থেকেই প্রায় বন্ধ হয়ে পড়েছে বাস চলাচল। বিশেষত দূরপাল্লার বাস সিলেট থেকে ছেড়ে যাচ্ছে না। অঘোষিত এই ধর্মঘটে বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা।বাস মালিকরা বলছেন, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজারে আজ থেকে পরিবহন ধর্মঘট শুরু হওয়ায় ঢাকাসহ দূরপাল্লার বাসগুলো সিলেট ছেড়ে যেতে পারছে না। দূরের বাস সিলেটে আসতেও পারছে না। তবে জেলার ভেতরে বাস চলাচল করছে বলে জানিয়েছেন তারা।

Advertisements

শুক্রবার দুপুরে সিলেট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায়, টার্মিনাল থেকে আন্তঃজেলা বাস ছাড়া দূরপাল্লার কোন বাস ছাড়ছে না। আন্তঃজেলা বাসও সংখ্যায় খুব কম। দূরপাল্লার বাসের কাউন্টারগুলোও বন্ধ।

ধর্মঘটের আগেই বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়া সম্পর্কে সিলেট জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল কবির পলাশ জানান, আমাদের ধর্মঘট শনিবার। কিন্তু মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জে আজকে থেকে ধর্মঘট শুরু হয়েছে। ঢাকাসহ অন্যান্য জেলায় যেতে হলে এই দুই জেলা পাড়ি দিয়ে যেতে হয়। কিন্তু দুই জায়গায়ই ধর্মঘট থাকায় দূরপাল্লার বাস আসা যাওয়া করতে পারছে না।

পাঁচদফা দাবিতে শনিবার সিলেটে ভোর ৬ টা থেকে ২৪ ঘন্টার বাস ধর্মঘট ডাকে বাস মালিক সমিতি। ভিন্ন চারটি দাবিতে শনিবার অন্য পরিবহনগুলোরও ধর্মঘট ডেকেছে সিলেট বিভাগীয় শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।তবে বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে গণসমাবেশ আয়োজনে বাধাবিপত্তি সৃষ্টি করতেই সরকার কৌশলে পরিবহনে ধর্মঘট ডাকিয়েছে।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন