English

28 C
Dhaka
বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১১, ২০২২
- Advertisement -

সিলেটে মাংস ব্যবসায়ীদের ধর্মঘটে রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীরা বিপাকে, চাপ বেড়েছে মুরগির দোকানে

- Advertisements -

জহিরুল ইসলাম মিশু: সিলেটে বৃহস্পতিবার ৭ এপ্রিল থেকে গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি করছেন না মহানগরী এলাকার ব্যবসায়ীরা। বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে এক জরুরি বৈঠকে সিলেট মহানগর মাংস ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির নেতৃবৃন্দ মাংস বিক্রি বন্ধের ঘোষণা দেন।

মাংস ব্যবসায়ীদের দাবি- সিলেট সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত মাংস বিক্রি করে তাদের লোকসান হয়। বার বার দাবি জানিয়েও সিসিক বিক্রিমূল্য বাড়াচ্ছে না। তাই তারা বাধ্য হয়ে মহানগরী এলাকায় গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন। তাদের এ ধর্মঘট চলবে অনির্দিষ্টকালের জন্য।

Advertisements

এদিকে, সিলেটে গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি বন্ধ করে দেওয়ায় বিপাকে পড়েছেন মহানগরী এলাকার রেস্টুরেন্ট, খাবার হোটেল ও পার্টি সেন্টারের মালিক-ব্যবস্থাপকরা। কাস্টমারদের চাহিদা মেটাতে তারা প্রথম দিনই হিমিশিম খাচ্ছেন বলে জানা গেছে। সিলেট মহানগরীতে মাংস না পেয়ে সিলেটের বাইরে থেকে বেশি দামে সংগ্রহ করছেন।অনেকে পার্শ্ববর্তী অন্য জেলা থেকে পর্যন্ত মাংস নিয়ে এসেছেন।

নগরীর জিন্দাবাজার এলাকার এক অভিজাত রেস্টুরেন্ট মেনেজার জানান, আমরা সিলেটে না পেয়ে সুনামঞ্জ থেকে গরুর মাংস নিয়ে এসেছি। কী করবো- কাস্টমারকে তো ফেরাতে পারবো না।

সিলেটে গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি বন্ধ থাকায় চাপ পড়েছে নগরীর মুরগির দোকানগুলোতে। শুক্রবার নগরীর কয়েকটি মুরগির দোকান ঘুরে দেখা গেছে, আগের মতোই ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৭০ টাকা, লাল মুরগির পিস ৪২০-৪৫০, সোনালী ও কক মোরগের পিস আকার-ভেদে ১৯০-২৫০ ও কোয়েল পাখির পিস আকার-ভেদে ২৫-৩৫ টাকা।

নগরীর এক মুরগির দোকানি জানান, গত কয়েকদিনের তোলানায় আজ বেচা-বিকি অনেক ভালো। তবে এখনও দাম বাড়ার খবর পাইনি। যদি পাইকার বা খামার থেকে আমাদের বাড়তি দামে কিনতে হয় তবে আমরা বাড়তি দামে বিক্রি করতে হবে।

Advertisements

গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি বন্ধের বিষয়ে সিলেট মহানগর মাংস ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালিক বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ মহানগরী এলাকায় গরুর মাংস ৬০০ ও ছাগলের মাংস ৮৫০ টাকা নির্ধারিত করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা যে দামে গুরু বা ছাগল ক্রয় করি সে অনুযায়ী সিসিক নির্ধারিত দামে মাংস বিক্রি করলে আমাদের লোকসান হয়। আমরা গত এক মাস থেকে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর কাছে দাম বাড়ানোর দাবি জানিয়ে আসলেও সর্বশেষ সিসিক কর্তৃক ধার্যকৃত দাম ওই ৬০০ ও ৮৫০ টাকাই রেখে দেওয়া হয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে আমরা বৃহস্পতিবার থেকে গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি বন্ধ করে দিচ্ছি। আমরা লোকসান দিয়ে তো ব্যবসা করতে পারবো না।

তিনি আরও জানান, সিলেটের বাইরে অন্যান্য স্থানে এ দামের চাইতে বেশি টাকায় গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি করা হয়। আমরা গরু-ছাগল ক্রয় করি সিলেটের বাইরে থেকে। তাই পশুর দাম পড়ে বেশি। আমরা সারাদেশে এক দাম নির্ধারিত করে দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

ব্যবসায়ীদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সিলেটে গরু ও ছাগলের মাংস বিক্রি বন্ধ রাখবেন বলে জানান তিনি। এদিকে নগরীর কয়েকজন রেস্টুরেন্টে ব্যবসায়ীরা জানান হঠাৎ করে ব্যবসায়ীরা মাংস বিক্রি বন্ধ করে দেওয়ায় আমরা বেশ বিপাকে পড়েছি। সিসিক কর্তৃপক্ষের প্রতি জোর দাবি, তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসে বিষয়টি দ্রুত সমাধান করা হোক।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন