English

30 C
Dhaka
বুধবার, জুলাই ৬, ২০২২
- Advertisement -

বেঙ্গালুরুতে ভয়াবহ যৌন নির্যাতনের শিকার সেই তরুণীসহ ৫ জন এখন ঢাকায়

- Advertisements -

প্রতিবেশী দেশ ভারতের বেঙ্গালুরুতে ভয়াবহ যৌন নির্যাতনের শিকার সেই তরুণীকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উইমেন সাপোর্ট অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে। তার সঙ্গে মানবপাচারের শিকার আরও ৪ তরুণীও ফেরত দিয়েছে ভারত।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, তাদের ঢাকায় আনা হচ্ছে। রাজধানীতে তেজগাঁওয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে তাদের রাখা হবে।

Advertisements

বাংলাদেশি ওই তরুণীকে ২০২১ সালে বেঙ্গালুরুতে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিও দুই দেশেই ‘ভাইরাল’ হয়েছিল। এরপর উভয় দেশের পুলিশের তৎপরতায় নির্যাতনকারী ও মানবপাচার চক্রের অনেকেই গ্রেপ্তার হন। গত শুক্রবার বাংলাদেশি ওই তরুণীকে নির্যাতনের ঘটনায় আলোচিত টিকটক হৃদয় বাবুসহ ১১ বাংলাদেশির সাজা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৭ জনকে যাবজ্জীবন এবং বাকিদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়ে বেঙ্গালুরুর বিশেষ আদালত এ রায় দেয় বলে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- চাঁদ মিয়া, মোহাম্মদ রিফাকদুল ইসলাম (হৃদয় বাবু), মোহাম্মদ আলামিন হোসেন, রকিবুল ইসলাম, মোহাম্মদ বাবু শেখ, মোহাম্মদ ডালিম ও আজিম হোসেন। তানিয়া খান নামের এক নারী আসামির ২০ বছর এবং মোহাম্মদ জামাল নামের একজনের ৫ বছরের দণ্ড দিয়েছেন বিচারক। আর ফরেনার্স অ্যাক্টের অধীনে নুসরাত ও কাজল নামে দুজনের ৯ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বিচারে খালাস পেয়েছেন একজন।

Advertisements

২০২০ সালের মে মাসে বেঙ্গালুরুতে ২২ বছরের এক বাংলাদেশি তরুণীকে বিবস্ত্র করে শারীরিক নির্যাতনের পর দল বেঁধে ধর্ষণ করা হয়। কয়েক দিন বাদে নির্যাতনের ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওটি দেখার পর প্রথম পদক্ষেপ নেয় আসাম পুলিশ। ওই ভিডিও থেকে পাঁচ নিপীড়কের ছবি প্রকাশ করে তাদের ধরিয়ে দেওয়ার জন্য টুইটারে পুরস্কারের ঘোষণা দেয় তারা। পরে ওই ঘটনায় বেঙ্গালুরু পুলিশ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে। এদের মধ্যে টিকটক হৃদয় বাবুসহ ২ জন পালানোর সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে গ্রেপ্তার হয় বলে তখন জানায় ভারতের পুলিশ।

ওই ঘটনায় ঢাকার হাতিরঝিল থানায় মানবপাচার ও পর্নগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা করেন নির্যাতনের শিকার মেয়েটির বাবা। পরে ঢাকার পুলিশ হৃদয় বাবুর সহযোগীসহ অনেককেই গ্রেপ্তার করে, বেরিয়ে আসে মানবপাচারের আরও অনেক তথ্য।

সাবস্ক্রাইব
Notify of
guest
0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
View all comments
Advertisements
সর্বশেষ
- Advertisements -
এ বিভাগে আরো দেখুন